× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৭ নভেম্বর ২০২১, শনিবার , ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া নির্বাচন হতে দেবো না: ফখরুল

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার
(৪ সপ্তাহ আগে) অক্টোবর ২৭, ২০২১, বুধবার, ১০:১২ অপরাহ্ন

নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া এদেশে আর কোনো নির্বাচন হতে দেয়া হবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বুধবার বিকেলে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে ‘জাতীয়তাবাদী যুবদলের ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী’ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা পরিষ্কারভাবে বলে দিতে চাই একটি নিরপেক্ষ নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া এদেশে কোনো নির্বাচন হতে দেয়া হবে না এবং একটি নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন করতে হবে। এর মধ্য দিয়েই আমরা একটি নতুন সরকার গঠন করব। আর যুবদলকে অনুরোধ করব, তারা যাতে স্বপ্ন দেখতে শুরু করে। তারা যেন স্বপ্ন দেখে একটি আধুনিক রাষ্ট্রের, একটি আধুনিক জাতি গঠনের।

তিনি বলেন, স্বাধীনতার ঘোষক ও যুবদলের প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান যখন যুবদলের প্রতিষ্ঠা করেছিলেন তখন তিনি এমন একটি দল গঠন করতে চেয়েছেন যে দল ভবিষ্যতে বিএনপিকে নেতৃত্ব দেবে, রাষ্ট্রকে নেতৃত্ব দেবে ও জাতি গঠনে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখবে। ৪৩ বছরে জাতীয়তাবাদী যুবদল নিঃসন্দেহে তার সেই স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে পেরেছে। আমি আজকের এই দিনে স্মরণ করতে চাই যুবদলের যে সব নেতাকর্মী গণতান্ত্রিক আন্দোলনে শহীদ হয়েছেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা পরিষ্কার করে বলেছি, আমরা এই সরকারের পরিবর্তন চাই। এই যুবকরাই সেই পরিবর্তন আনতে পারে। আর সেই পরিবর্তন আনতে হলে অবশ্যই আওয়ামী লীগ সরকারের পতন ঘটাতে হবে।

যুবদল সভাপতি সাইফুল আলম নীরবের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকুর সঞ্চলনায় আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান, দক্ষিণের আহ্বায়ক আব্দুস সালাম, বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব যুবদলের সাবেক সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল খায়রুল কবির খোকন, যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোরতাজুল করিম বাদরু, সহ-সভাপতি আলী আকবর চুন্নু, সিনিয়র যুগ্ম-সম্পাদক নুরুল ইসলাম নয়ন, মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, ছাত্রদলের সাবেক সহ সভাপতি আলমগীর হাসান সোহান প্রমুখ।।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
jaman
২৮ অক্টোবর ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১২:২৮

সেই শক্তি আগে অর্জন করেন।

mamun
২৮ অক্টোবর ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৮:৩৭

Yes, Caretaker Government is final target.

Kazi
২৭ অক্টোবর ২০২১, বুধবার, ৭:০৫

নির্বাচন আটকানোর শক্তি যে নাই আওয়ামীলীগ ভালভাবেই জানে । হুমকি দিয়ে কথা রক্ষা করতে পারবেন না । দলের তৃণমূলের সদস্য ও নেতাদের কাছে লজ্জিত হবেন।

Mohammad Hoque
২৮ অক্টোবর ২০২১, বৃহস্পতিবার, ২:৪১

This is an illusion that election in Bangladesh would be neutral.

Desher Bhai
২৮ অক্টোবর ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১২:০১

Do not talk big anymore. You cannot do anything.

অন্যান্য খবর