× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২২ জানুয়ারি ২০২২, শনিবার , ৮ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

আলোচনায় সোহিনী

বিনোদন

বিনোদন ডেস্ক
২৬ নভেম্বর ২০২১, শুক্রবার

অভিনেত্রী হিসেবে নিজেকে আগেই প্রমাণ করেছেন সোহিনী সরকার। এবার নতুন করে আলোচনায় এলেন তিনি। হৈচৈ প্ল্যাটফরমে সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে তার অভিনীত নতুন ওয়েব সিরিজ ‘মন্দার’। এ ছবিতে একদিকে যেমন খোলামেলা ও ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে তাক লাগিয়েছেন, অন্যদিকে অভিনেত্রী হিসেবেও নিজেকে পুরোপুরি মেলে ধরেছেন সোহিনী। উচ্চাকাঙ্ক্ষা, পাপ ও পতনের গল্প ‘মন্দার’। বাজার সফল বাংলা অভিনেতা হিসেবে অনির্বাণ এখন যথেষ্টই থিতু, তবু পরিচালনার লাগাম হাতে পেয়েই  ঝুঁকি নিয়েছেন এ সিরিজে। পাঁচ পর্বের এই ছোট্ট সিরিজ আদতে একটি দীর্ঘ ছায়াছবি। পৃথক শিরোনাম দিয়ে ভেঙে ভেঙে বলা, এই পর্যন্তই।
ভালো ছায়াছবির প্রথম শর্ত ‘ছবি’, যা একবার দেখে ফেললে গেঁথে যায়, ঘুরে-ফিরে আসে অবরে-সবরে। শুধু বর্শা-গাঁথা মাছ বা সাগর কিনারে পড়ে থাকা বডিতে ঢেউয়ের আগ-পিছু নয়। টিউবের আলোয় লাইলির চটচটে মুখ, আঁধার জল কিনার, মোক্ষম মুহূর্তে পা ফাঁক করে পড়ে থাকা গাছের যোনি।
রাতের জঙ্গলে বাঁক কেটে ডাইনির ডেরায় মোটরবাইক যাওয়ার টপশট, নৌকার কিনারে গ্রস্ত লাইলি বা তার ঠিক আগে মেঝের ছাদ হয়ে ওঠা দর্শকের সম্ভ্রম দাবি করে। অনির্বাণের এই ছবির বড় সম্বল অভিনয়। বিশেষ করে বুনো বিড়ালের মতো চোখ টানতে বাধ্য ‘লাইলি’ সোহিনী সরকার অসাধারণ অভিনয় করেছেন। ‘মন্দার’ চরিত্রে দেবাশিস মণ্ডল অভিনয় করেছেন এখানে। তিনি সোহিনীর স্বামী। লোভে পাপ ও পাপে মৃত্যু- এই বিষয়টিকে খুব সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে সিরিজটিতে। সোহিনী নিজেও এতটা সাড়া এখান থেকে পাবেন ভাবেননি। তিনি বলেন, এ সিরিজ অবমুক্ত হওয়ার পর থেকে প্রশংসার জোয়ারে ভাসছি। অনেকেই আমাকে ‘লাইলি’ বলেই সম্বোধন করছেন। একটি উপকূল অঞ্চলের উচ্চাবিলাষী স্ত্রীর ভূমিকায় অভিনয় করেছি। যেখানে অভিনয়ের সুযোগ ছিল। অনেকেই বলছেন এখানে আমি মাত্রাতিরিক্ত ঘনিষ্ঠ দৃশ্য করেছি। তবে বিশ্বাস করুণ সেটা কেবল চরিত্রের প্রয়োজনেই। সিরিজটি যারা দেখেছেন তারা অন্তত বিষয়টি বুঝতে পারবেন। দিন শেষে এটি একটি টিমওয়ার্ক ছিল, যা দর্শক বেশ ভালোভাবে গ্রহণ করছেন।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর