× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৯ জানুয়ারি ২০২২, শনিবার , ১৫ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

বিজিবি’র অভিযানে ৬ কোটি টাকার ইয়াবা জব্দ

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার
(২ মাস আগে) নভেম্বর ২৬, ২০২১, শুক্রবার, ২:৩৪ অপরাহ্ন

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-এর (বিজিবি) অভিযানে দুই লাখ পিস ইয়াবা জব্দ করা হয়েছে। জব্দ করা ইয়াবার বাজার মূল্য প্রায় ছয় কোটি টাকা বলে জানিয়েছে বিজিবি।

সংস্থাটির টেকনাফ ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মোহাম্মদ ফয়সল হাসান খান জানান, টেকনাফ ব্যাটালিয়নের অধীনস্থ হোয়াইক্যং বিওপি বৃৃহস্পতিবার রাতে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারে এগারোকানী আলমগীরের প্রজেক্ট এলাকা দিয়ে ইয়াবার একটি বড় চালান মিয়ানমার হতে বাংলাদেশে পাচার হবে। উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে হোয়াইক্যং বিওপি’র একটি বিশেষ টহলদল ওই এলাকায় গিয়ে কয়েকটি উপদলে বিভক্ত হয়ে এগারোকানী এলাকায় বেঁড়ীবাধের আঁড় নিয়ে গোপনে অবস্থান গ্রহণ করে।

রাত পৌঁনে ১১টার দিকে উক্ত এলাকা দিয়ে ৩ জন চোরাকারবারী ২টি প্লাষ্টিকের বস্তা নিয়ে নাফ নদী পার হয়ে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে আসে। টহলদল চোরাকারবারীদের দেখা মাত্রই তাদেরকে চ্যালেঞ্জ করে খুব দ্রুত তাদের দিকে অগ্রসর হয়। কিন্তু তারা দূর থেকে বিজিবি টহলদলের উপস্থিতি বুঝতে পেরে তাদের কাছে থাকা বস্তা ফেলে দিয়ে নাফ নদীতে ঝাঁপ দিয়ে সাঁতার কেটে পার্শ্ববর্তী মিয়ানমার সীমান্ত অতিক্রম করে পালিয়ে যায়।

অধিনায়ক বলেন, এলাকাটি বাংলাদেশ মিয়ানমার সীমান্তের খুব কাছাকাছি। দুরত্ব মাত্র ৫০০ মিটার হওয়ায় ইয়াবা পাচারকারীরা দ্রুত পালিয়ে যায়। পরে টহলদল ওই স্থানে পৌঁছে তল্লাশী অভিযান পরিচালনা করে ইয়াবা পাচারকারীদের ফেলে যাওয়া দুটি প্লাষ্টিকের বস্তা উদ্ধার করে।
উদ্ধারকৃত বস্তার ভিতর থেকে ছয় কোটি টাকা মূল্যমানের দুই লাখ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ করতে সক্ষম হয়।

ইয়াবা কারবারীদের আটকের জন্য ওই এলাকা ও নদীর তীরসহ পার্শ্ববর্তী স্থানে কয়েক ঘণ্টা অভিযান চালিয়ে কোন পাচারকারী কিংবা তাদের সহযোগীকে আটক করা যায়নি। উক্ত স্থানে অন্য কোন অসামরিক ব্যক্তিকে পাওয়া যায়নি তাই ইয়াবা কারবারীদের শনাক্ত করাও সম্ভব হয়নি। তবে তাদেরকে শনাক্ত করার জন্য অত্র ব্যাটালিয়নের গোয়েন্দা কার্যক্রম চলমান রয়েছে।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর