× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৮ জানুয়ারি ২০২২, শুক্রবার , ১৪ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

সবুজ চোখের শরবত আশ্রয় নিলেন ইতালিতে

অনলাইন


(২ মাস আগে) নভেম্বর ২৭, ২০২১, শনিবার, ৩:৩৩ অপরাহ্ন

সবুজ চোখের বিখ্যাত আফগান মেয়ে, যার নাম শরবত গুলা, ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক পত্রিকার হাত ধরে গোটা বিশ্বের কাছে পরিচিত হয়ে ওঠেন তিনি। ১৯৮৪ সালের প্রকাশিত তার ছবি গোটা বিশ্বের নজর কাড়তে সক্ষম হয়েছিল। স্টিভ ম্যাককারি তুলেছিলেন সবুজ চোখের আফগান কিশোরীর মুখ। সেই থেকেই সারা পৃথিবীতে আফগান নারীর এক প্রতীকস্বরূপ হয়ে উঠেছেন শরবত গুলা।

সেই শরবত গুলা এবার তালেবানি শাসনে বিধ্বস্ত আফগানিস্তান ছেড়ে উড়ে গেলেন ইতালি। সেখানেই বসত গড়বেন তিনি। তাঁকে সবরকম সাহায্য করতে রাজি ইতালি প্রশাসন। প্রধানমন্ত্রী মারিও দ্রাঘির দফতরের তরফে বিবৃতি দিয়ে এ কথা জানানো হয়েছে। ১৯৮৪ সালে ‘ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক’ পত্রিকার প্রচ্ছদে ছাপা হয়েছিল কিশোরী শরবতের মুখ।
মুহূর্তে তিনি খ্যাতির শীর্ষে পৌঁছে যান। পরে ২০০২ সালে ফের তাঁকে খুঁজে বের করেন ম্যাককারি।

২০১৪ সালে দেশ ছেড়ে পাকিস্তানে চলে যান শরবত। কিন্তু সেখানে তাঁর অভিজ্ঞতা খুব সুখকর নয়। ভুয়া পরিচয়পত্র রাখার অভিযোগ তোলা হয় তাঁর বিরুদ্ধে। এরপরই তিনি ফের ফিরে আসেন নিজের দেশে। সেই সময় খোদ প্রেসিডেন্ট নিজের প্যালেসে একটি অনুষ্ঠানে তাঁকে অভ্যর্থনা জানান। তাঁর হাতে তুলে দেন নতুন এপার্টমেন্টের চাবি।

তালেবানরা আফগানিস্তান দখলের পর শত শত আফগান যখন কাবুল ছেড়ে পালাচ্ছিলেন তখন অন্যান্য পশ্চিমা দেশের মত ইতালিও আফগানদের উদ্ধারে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়। এবার তাদের তরফেই শরবতকে রোমে আসার বন্দোবস্ত করে দেয়া হয়েছে। প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, সবুজ চোখের শরবতের ছবি হয়ে দাঁড়িয়েছে আফগান ইতিহাসের সংঘর্ষ ও অস্থিরতার অধ্যায়ের এক প্রতীক। প্রধানমন্ত্রী মারিও দ্রাঘির অফিস থেকে জানানো হয়েছে, ইতালির মাটিতে আফগানদের অভ্যর্থনা জানাতে সরকার প্রস্তুত।

সূত্র: euronews.com
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর