× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৩ জানুয়ারি ২০২২, রবিবার , ৯ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

রৌমারীতে ফরম ফিলাপ বঞ্চিত পরীক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, ভাঙচুর, স্মারকলিপি

বাংলারজমিন

রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি
১ ডিসেম্বর ২০২১, বুধবার

রৌমারী টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের ২৫ শিক্ষার্থীর ফরম ফিলাপ না হওয়ায় বিক্ষোভ মিছিল, কলেজের আসবাবপত্র ভাঙচুর ও শিক্ষামন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে শিক্ষার্থীরা। গতকাল দুপুরে কলেজের দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী এ বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নেয়।  মফিজুর রহমান, হাসান মিয়া, মিঠু মিয়া, সিরাজুল ইসলাম, জাকির হোসেন, ওমর ফারুকসহ শিক্ষার্থীরা জানায়, আগামী ২রা ডিসেম্বর এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। সেজন্য গত ২৯শে নভেম্বর আমাদের এডমিট দেয়ার কথা। কিন্তু হঠাৎ করে কলেজের ল্যাব সহকারী রেজা মিয়া আমাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে বলেন, ২৫ জন পরীক্ষার্থীর এডমিট আসেনি। তাই আমরা যেন কোনো হট্টগোল না করি। তিনি আরও বলেন, ‘আগামী ৩ মাসের মধ্যে বিশেষ ব্যবস্থায় তোমাদের পরীক্ষা নেয়া হবে।’ বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর আসল গোমর ফাঁস হয়। মূলত ওই ২৫ শিক্ষার্থীর ফরমই পূরণ করেননি অধ্যক্ষ হুমায়ুন কবির। অথচ ফরম পূরণের জন্য প্রত্যেক শিক্ষার্থীর নিকট থেকে ২৫শ’ থেকে ৩ হাজার টাকা নিয়েছেন তিনি।
তারা আরও জানান, প্রায় প্রতিবছরই এমন ঘটনা ঘটান ওই অধ্যক্ষ। প্রত্যেক প্রতিষ্ঠানের জন্য ফরম ফিলাপের একটি নির্দিষ্ট কোটা বরাদ্দ থাকে। তিনি কোটার বাইরেও অনেক শিক্ষার্থীর নিকট অতিরিক্ত টাকা নিয়ে ফরম পূরণ করেন না। তারা আরও জানায়- অধ্যক্ষ তাদের বলেন, ‘আগের পরীক্ষায় তুমি পাস করোনি তাই তোমার এডমিট আসেনি।’ তিনি আমাদের আবারো একাদশ শ্রেণিতে পরীক্ষা দিতে বলেন। আর যদি পরীক্ষা না দেই তাহলে ব্যবহারিক মার্ক কমিয়ে দেয়ার হুমকি দেন। অধ্যক্ষ হুমায়ুন কবির উপবৃত্তির নাম দেয়ার কথা বলে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর নিকট থেকে ৫শ’ টাকা, আইডি কার্ড দেয়া কথা বলে ৩শ’ টাকা এবং ভর্তি করানোর কথা বলে প্রতি শিক্ষার্থীর নিকট থেকে ৭ থেকে ৮ হাজার টাকা নিয়েছেন। এ বিষয়ে অধ্যক্ষ হুমায়ুন কবিরের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, যারা একাদশ শ্রেণিতে পাস করেনি তাদের ফরম ফিলাপ হয়নি। পাস না করা শিক্ষার্থীদের নিকট কেন টাকা নিলেন, ‘এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, টাকা তো নিতে চাই না ওরা জোর করেই দিয়ে যায়।’
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর