× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৯ জানুয়ারি ২০২২, শনিবার , ১৫ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম স্থিতিশীল হলে দেশেও পুননির্ধারণ করা হবে: অর্থমন্ত্রী

অনলাইন

অর্থনৈতিক রিপোর্টার
(১ মাস আগে) ডিসেম্বর ১, ২০২১, বুধবার, ৫:৪১ অপরাহ্ন

আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম এখনও স্থিতিশীল নয় উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী আ.হ.ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম স্থিতিশীল পর্যায়ে এলেই দেশের বাজারে তেলের দাম পুনর্নির্ধারণ করা হবে।

বুধবার সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা বলেন।

মুস্তফা কামাল বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম এখনও উঠানামা করছে। কোনদিন জ্বালানি তেলের দাম ২০ ডলার কমে তো, পরের দিন ২ ডলার বাড়ে। যখন তেলের দাম আন্তর্জাতিক বাজারে কমে স্থিতিশীল হবে, তখন আমরাও সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবো।

আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম বাড়ার প্রেক্ষাপটে গত ৩রা নভেম্বর ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়িয়ে ৮০ টাকা নির্ধারণ করে সরকার। তারপর থেকেই আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম কমতে থাকায় ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি, বাংলাদেশ গার্মেন্ট ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশনসহ ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন সংগঠন তেলের দাম কমোনোর দাবি করে আসছে।

আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমার কারণে দেশেও দাম কমানো হবে কি-না, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে সম্প্রতি জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন থেকে দাম কমানোর প্রস্তাব পেলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবেন তিনি।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্য সমর্থন করে বলেছেন, সংশ্লিষ্ট প্রতিমন্ত্রী যে কথা বলেছেন, সেটি আমারও বক্তব্য।

সম্প্রতি জাতীয় সংসদে অর্থমন্ত্রী বলেছেন, তার কাছে অর্থপাচারকারীদের কোন তালিকা নেই। বিরোধী দলের সাংসদদের কাছে পাচারকারীদের তালিকা চান তিনি।  

এর কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, পত্র-পত্রিকায় কিছু নাম আমি পেয়েছি, যাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ ব্যাংকসহ সংশ্লিষ্ট সংস্থা কাজ করছে। আইনগত ব্যবস্থাও নেয়া হচ্ছে।
গত দুই বছরে অর্থ পাচার বন্ধে কি ব্যবস্থা নিয়েছি, তার অগ্রগতি কি এবং কতজন শাস্তি পেয়েছে, সে তথ্য তুলে ধরা হবে।

আমি অর্থ পাচারকারীদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারবো না। ব্যবস্থা নেবে আইন মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলো- বলেন তিনি।

অর্থপাচারকারীদের সম্পর্কে জানতে অর্থমন্ত্রীর নিজস্ব কোন ম্যাকানিজম রয়েছে কি-না, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, আমার কোন ম্যাকানিজম নেই। ম্যাকানিজম রয়েছে সরকারের। কেউ পাচার করলে তার বিরুদ্ধে মামলা হয়, তাকে গ্রেপ্তার করে জেলে নেয়া হয়। বিচার ব্যবস্থার মাধ্যমে তাদের শাস্তি দেয়া হয়।

করোনাভাইরাসের নতুন ভেরিয়েন্ট ওমিক্রন বাংলাদেশে এখনও সংক্রমিত হয়নি জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, যদি এ ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটে এবং তাতে দেশের মানুষ ও অর্থনীতির ওপর কোন প্রভাব পড়ার আশঙ্কা থাকে, তাহলে তা মোকাবেলায় অতীতের মতো সব ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের বিরুদ্ধে টিকার কার্যকারিতা নিয়ে মডার্নার সিইও সন্দেহ প্রকাশের পর মঙ্গলবার (৩০শে নভেম্বর) আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম প্রায় ৩ শতাংশ কমে গেছে। এতে তেলের চাহিদা নিয়ে উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
আবুল কাসেম
১ ডিসেম্বর ২০২১, বুধবার, ৪:৫৭

আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতিদিন তেলের দাম নিম্নমুখী। আমাদের দেশে কি কারণে, কোন যুক্তিতে তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে তা দুঃসাধ্য, কিন্তু সহজসাধ্য। এটাকে কেন্দ্র করে একমাস ধরে দেশের ভেতর তৈরি হয়েছে নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি। জনজীবনে দুর্ভোগের সীমা ছাড়িয়ে গেছে। আমাদের শান্তি, স্বস্তি নির্বাসিত হয়েছে। আমাদের নাভিশ্বাস উঠেছে দ্রব্য মূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে ও অতিরিক্ত বাস ভাড়া পরিশোধ করতে গিয়ে। দয়া করে আমাদের স্বস্তি ভিক্ষা দিন। তেলের দাম কমান। সাথে সাথে পরিবহন ভাড়াও কমানোর ব্যবস্থা করেন। দ্রব্যমূল্য কমিয়ে দেন।

অন্যান্য খবর