× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ১৯ জানুয়ারি ২০২২, বুধবার , ৫ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

লাল-সবুজের মহোৎসব উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন

অর্থনৈতিক রিপোর্টার
(১ মাস আগে) ডিসেম্বর ১, ২০২১, বুধবার, ৮:৪৮ অপরাহ্ন
ফাইল ছবি

বিজয় এসেছে যাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে, যে মহান নেতার নেতৃত্বে মিলেছে বাঙালির নিজস্ব মানচিত্র, যার সুদক্ষ শাসনে দেশ উঠে এসেছে উন্নয়নের মহাসড়কে, তাদের সবার প্রতি বিনম্র কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে বিজয়ের মাসে ১৬ দিনব্যাপী লাল-সবুজের মহোৎসবের আয়োজন করেছে দেশের শীর্ষ বাণিজ্যিক সংগঠন এফবিসিসিআই।

আজ সন্ধায় রাজধানীর হাতিরঝিলের অ্যাম্ফিথিয়েটারে ভার্চ্যুয়ালি এই মহোৎসব-এর উদ্বোধন ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ সময় অনুষ্ঠানে সশরীরে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান ও ডিএনসিসির মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম। এতে সভাপতিত্ব করেন এফবিসিসিআই সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন। এফবিসিসিআই’র এই বিজয় উৎসবে সার্বিক সহযোগিতা করছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, দেশের অর্থনৈতিক জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৮ ভাগে তুলেছিলাম, যা দক্ষিণ এশিয়ায় সর্বোচ্চ অর্জন। কিন্তু করোনার কারণে আমরা ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে পারি নাই। শুধু আমরাই নই, গোটা বিশ্ব অর্থনৈতিক ধাক্কা খেয়েছে।

দেশের শীর্ষ ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে গ্রামের মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বেড়েছে। সুপরিকল্পতভাবে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি।
তাই আপনারা প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করুন। সেখানে বিনিয়োগ করুন। উৎপাদন বেশি হবে। বেশি পণ্য বিক্রি হবে। আপনাদেরও আয় বাড়বে।

তিনি বলেন, আমরা এখন উন্নয়নশীল দেশ। সামনে অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে। তার জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে এখনই।

সবশেষে এরকম অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান ও ডিএনসিসির মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম ও এফবিসিসিআই সভাপতি মো. জসিম উদ্দিনকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী।

এফবিসিসিআই’র পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, যাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে বাংলাদেশ পেয়েছি, তাদের সবার প্রতি বিনম্র কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে এফবিসিসিআই আয়োজন করেছে ১৬ দিনব্যাপী লাল সবুজের মহোৎসব।

অর্থনৈতিক অগ্রগতি কিংবা সামাজিক সূচকের শক্তিশালী অবস্থান, দুর্বল এক শিশুরাষ্ট্র থেকে বিশ্বের অন্যতম প্রতিশ্রুতিশীল অর্থনৈতিক শক্তি, পরর্নিভরতা থেকে বেরিয়ে এসে, আত্মনির্ভরতায় বলীয়ান হয়ে ওঠা; বাংলাদেশের ৫০ বছরের গল্পটা সফলতার, অর্জনের।

১৬ দিনের মহা উৎসবের সংক্ষিপ্ত বিবরণ:

১লা ডিসেম্বর: স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পীদের নিয়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আতশবাজি উৎসব;

২রা ডিসেম্বর: শিশু কিশোর ও বিশেষ শিশুদের অংশগ্রহণে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান;

৩রা ডিসেম্বর: নারীদের অংশগ্রহণে বিশেষ অনুষ্ঠান;

৪ঠা ডিসেম্বর: নজরুল উৎসব;

৫ই ডিসেম্বর: রবীন্দ্র উৎসব;

৬ই ডিসেম্বর: নৃত্য উৎসব;

৭ই ডিসেম্বর: অঞ্চলভিত্তিক অনুষ্ঠান: ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগ;

৮ই ডিসেম্বর: অঞ্চলভিত্তিক অনুষ্ঠান: চট্টগ্রাম ও রংপুর বিভাগ;

৯ই ডিসেম্বর: অঞ্চলভিত্তিক অনুষ্ঠান: রাজশাহী ও বরিশাল বিভাগ;

১০ই ডিসেম্বর: অঞ্চলভিত্তিক অনুষ্ঠান: খুলনা ও সিলেট বিভাগ;

১১ই ডিসেম্বর: সশস্ত্র ও পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠান;

১২ই ডিসেম্বর: লোকসংগীত;

১৩ই ডিসেম্বর: চলচ্চিত্র তারকাদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠান;

১৪ই ডিসেম্বর: মঞ্চনাটক;

১৫ই ডিসেম্বর: কনসার্ট ও

১৬ই ডিসেম্বর: রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠান সরাসরি সম্প্রচার ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আতশবাজি।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর