× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৩ জানুয়ারি ২০২২, রবিবার , ৯ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

আলাদাভাবে অনুশীলনে ঘাম ঝরালেন সাকিব

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার
৩ ডিসেম্বর ২০২১, শুক্রবার

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ব্যক্তিগত উদ্যোগে ক’দিন ধরেই অনুশীলন করছিলেন সাকিব আল হাসান। গতকালও দ্রুতই মাঠে হাজির হন তিনি। মিরপুরে গতকাল চট্টগ্রাম থেকে ফেরা বাংলাদেশ দলের অনুশীলন ছিল দুপুর দেড়টা থেকে। কিন্তু সাকিব চলে এলেন বেলা ১১টায়। প্রায় আড়াই ঘণ্টা মিরপুরের ইনডোরে নিবিড় ব্যাটিং অনুশীলন চালিয়ে যান সাকিব।
তিনজন পেস বোলার সাকিবকে নেটে বোলিং করেন। ছিলেন বাঁহাতি স্পিনার, অফ স্পিনার আর লেগ স্পিনারও। সাকিব তার একাডেমি থেকেই এই ছয়জন বোলার নিয়ে এসেছিলেন। ঘণ্টাখানেক ব্যাটিং অনুশীলন শেষে সাকিব ড্রেসিংরুমের দিকে আসেন।
পুরোটা সময় টেস্ট মেজাজের ব্যাটিং করেন এই বাঁহাতি অলরাউন্ডার। সাকিব বাংলাদেশ দলের জৈব সুরক্ষা বলয়ের বাইরে ছিলেন। যে কারণে এককভাবে অনুশীলন করেন তিনি। গতকাল দুপুর ১২টার দিকে করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য নমুনা দেয়ার পর বিশ্রামে ছিলেন সাকিব। দেড়টার দিকে মাঠে এসে অনুশীলন শুরু করে বাংলাদেশ দল। নেগেটিভ রিপোর্ট পাওয়ার পর তাদের সঙ্গে যোগ দেন সাকিব। ইনডোরে বোলিং মেশিনে কিছুক্ষণ ব্যাটিং করে বাইরে এসে আড্ডা দেন সতীর্থদের সঙ্গে। জাতীয় দলের নেটে এ দিন আর ব্যাটিং করেননি সাকিব। পরে করেন স্রেফ দুই বল, দীর্ঘদিনের সতীর্থ মুশফিকুর রহীমকে।
টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মাঝপথে পাওয়া হ্যামস্ট্রিং চোটের কারণে পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে সাকিবকে পায়নি বাংলাদেশ। এরপর প্রথম টেস্টের দলে থাকলেও সম্পূর্ণ সুস্থ না হওয়ায় শেষ মুহূর্তে বাদ পড়েন সাকিব। তবে আগামীকাল শুরু হতে যাওয়া মিরপুর টেস্টের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন তিনি। মাঠে ফেরার জন্য কয়েক দিন থেকেই নিজের মতো করে অনুশীলন করছেন সাকিব। তার ঘনিষ্ঠ কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিনের সঙ্গেও কয়েকটি সেশনে কাজ করেছেন ব্যাটিং নিয়ে। সব ঠিক থাকলে পাকিস্তানের বিপক্ষে মিরপুর টেস্ট দিয়ে গত ফেব্রুয়ারির পর প্রথমবারের মতো দেশের মাটিতে টেস্ট খেলবেন সাকিব। সব মিলিয়ে বাংলাদেশের সবশেষ ৬ টেস্টের মাত্র দুটিতে খেলেন তিনি। বছরের শুরুতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষ চট্টগ্রাম টেস্টের মাঝপথে চোট পেয়ে ছিটকে যান। খেলতে পারেননি মিরপুরে পরের টেস্টে। পরে আইপিএলের জন্য খেলেননি শ্রীলঙ্কায় দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে। জুলাইয়ে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একমাত্র টেস্ট দিয়ে ফেরেন এই সংস্করণে। এরপর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পাওয়া হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটের জন্য খেলতে পারেননি পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে। পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্টে ব্যাট হাতে দারুণ সফল সাকিব। ৪ টেস্টে ৮ ইনিংসে এক সেঞ্চুরি ও তিন ফিফটিতে তার সংগ্রহ ৪১২ রান। সর্বোচ্চ ১৪৪। গড় ৬৮.৬৬। টেস্টে কোনো দলের বিপক্ষে এটাই তার সর্বোচ্চ গড়। তবে বিপরীত চিত্র বোলিংয়ে। ৬ ইনিংসে নিতে পেরেছেন কেবল ৯ উইকেট। সেরা ৮২ রানে ৬ উইকেট। গড় ৬৩.৮৮। বোলিংয়ে কেবল পাকিস্তানের বিপক্ষেই তার গড় পঞ্চাশের বেশি। একাধিক টেস্ট খেলেছেন এমন দেশের মধ্য কেবল তাদের বিপক্ষেই বাঁহাতি এই স্পিনারের উইকেট দুই অঙ্কে যায়নি।
ঐচ্ছিক অনুশীলনে ঘাম ঝরলো বাবর-আজহারদেরও

ঢাকা টেস্ট রেখে গতকাল ছিল পাকিস্তান দলের খেলোয়াড়দের ঐচ্ছিক অনুশীলন। সেখানে যোগ দেননি দলের সব ক্রিকেটার। তবে অধিনায়ক বাবর আজমের সঙ্গে আজহার আলী, ফাওয়াদ আলম, সৌদ শাকিল ও কামরান গুলামরা সকাল থেকেই মিরপুরের একাডেমি মাঠে অনুশীলনে ঘাম ঝরান। সিরিজের প্রথম টেস্টের দলে ছিলেন না সৌদ শাকিল ও কামরান গুলাম। আর বাবর, ফাওয়াজ, আজহাররা দলে থাকলেও ব্যাট হাতে প্রত্যাশা মতো রান করতে পারেননি। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে প্রথম ইনিংসে ‘গোল্ডেন ডাক’ মারেন আজহার আলী। বাবর আজম ১০ ও ফাওয়াদ আলম করেন ৮ রান। দ্বিতীয় ইনিংসে চাপমুক্ত অবস্থায় ক্রিজে গিয়ে দলের আট উইকেটের জয়ে আজহার ২৪ ও বাবর ১১ রানে অপরাজিত থাকেন। আগামীকাল মিরপুরের শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে শুরু হবে বাংলাদেশ পাকিস্তান সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট। ম্যাচ সামনে রেখে আজ পূর্ণাঙ্গ অনুশীলন করবে সফরকারী পাকিস্তান দল।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর