× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ১৯ মে ২০২২, বৃহস্পতিবার , ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৭ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

কেন শিক্ষার্থীরা পাচ্ছে না শতভাগ বই, দায়টা কার?

মত-মতান্তর

পিয়াস সরকার
২৩ ডিসেম্বর ২০২১, বৃহস্পতিবার

সময়মতো নতুন বই মিলবে তো? এই প্রশ্ন গণমাধ্যমে আলোচনায় ছিল সপ্তাহ দুয়েক ধরে। বছরের প্রথম দিনেই শিক্ষার্থী হাতে নেয় নতুন বই। ১১ বছর ধরেই দেশে চলে আসছে বই উৎসব। তবে এবার তা হচ্ছে না। শুধু তাই নয় এবছর করোনার স্থবিরতাতেও হয়েছে বই সরবরাহ। এবার কেন হলো না, দায়টা কার বা কাদের?

২০১০ সালে থেকে বই উৎসবের সূচনা হয়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শিক্ষায় যতটুকু অর্জন তার মধ্যে বছরের প্রথম দিনে বই তুলে দেয়া অন্যতম। অভিযোগ আছে এবছরের বই উৎসব না হওয়া পিছনে অন্যতম কারণ জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) অবহেলা ও পছন্দের প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেয়া।

২০২২ সালে ৪ কোটি শিক্ষার্থীর হাতে তুলে দেয়া হবে ৩৫ কোটি বই।
প্রাথমিকের ১০ কোটি এবং মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের জন্য ২৫ কোটি বই ছাপাতে হবে। এর মধ্যে মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রাথমিকের ছাপানো হয়েছে ৯ কোটি ৫৪ হাজার বই। বই ছাপানোর পর বাঁধাই, কাটিংসহ নানা কাজে লেগে যাবে বেশ কিছু সময়।

মাধ্যমিকের বাংলা ও ইংরেজি ভার্সন অষ্টম ও নবম শ্রেণি, ইবতেদায়ি স্তরের তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণি, দাখিল স্তরের অষ্টম ও নবম শ্রেণির এবং এসএসসি ও দাখিল ভোকেশনালের ২৪৮ লটের বই ছাপার জন্য পুনঃদরপত্র আহ্বান করা হয়। এতেই বাঁধে বিপত্তি। ২৪৮ লটে ১০ কোটি সাত লাখ ৫২ হাজার ৮৪০টি বই। যার ১০ লাখ ৮৬ হাজার ২৪৮টি বই ছাপানের জন্য পুনঃদরপত্র আহ্বান করা হয়। আর ১৮৮টি লটের মাধ্যমে মাধ্যমিকের ষষ্ঠ ও সপ্তম, ইবতেদায়ি স্তরের প্রথম ও দ্বিতীয়, দাখিল স্তরের ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণির ১১ কোটি ১২ লাখ ৪৪ হাজার ৮৯৫টি বই ছাপার জন্য পুনঃদরপত্র দেয়া হয় ১৯শে জুলাই।

প্রিন্টিং ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ বলছে, কয়েকজন কর্মকর্তা এনসিটিবি থেকে ট্রান্সফার হয়ে গেছে। এই কর্মকর্তাদের অতি উৎসাহ, লোভ এবং তারা লাভবান হওয়ার জন্য এ কাজটি করে উৎসবটিকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দিয়েছে।

হচ্ছে না বই উৎসব। শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন বই উৎসব হবে না করোনার কারণে। এছাড়াও তিনি বলেন, নতুন বছরের প্রথম দিন শিক্ষার্থীরা সব নতুন বই পাবে না। যে কয়টি বই বাকি থাকবে সেগুলো জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহের মধ্যে বিতরণ করা হবে।

কিন্তু কেন শিক্ষার্থীরা শতভাগ বই হাতে পাবে না? দায়টা কার? বই নিয়ে যে সুনাম অর্জন করেছে বাংলাদেশ। তা ক্ষুণœ হলো কেন? তার উত্তর কি মিলবে?
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Munir Hossain
২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২২, বুধবার, ৫:৫৭

সরকারের কোন দায় নেই সরকার তো উন্নয়ন এর জুয়ারে দেশ ভাসিয়ে দিয়েছে। আর সেই জুয়ারে হয়তো বই ভেসে গিয়েছে।

অন্যান্য খবর