× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২৯ মে ২০২২, রবিবার , ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৭ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

সীমান্ত, সন্ত্রাস এবং পাক-আফগানিস্তান সম্পর্ক

দেশ বিদেশ

অনলাইন ডেস্ক
১৫ জানুয়ারি ২০২২, শনিবার

গত বছরের আগস্টে আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের পর থেকে তালেবানের সঙ্গে সখ্যতা গড়ার চেষ্টা করছে পাকিস্তান। দেশটিতে তাদের ক্ষমতা ফিরে পেতে একগুচ্ছ সমর্থন আশা করছে পাকিস্তান।

মার্কিন বাহিনীর চলে যাওয়ার পর পাকিস্তান-আফগানিস্তান সম্পর্কের পাঁচ মাসে তারা কাছাকাছি-প্রকৃত শক্তিকে সুসংহত করার চেষ্টা করছে। যদিও দেশটিতে কোভিড মহামারি এবং ধসে পড়া অর্থনীতির ফলে মানবিক সংকট তৈরি হয়েছে।

পাকিস্তান তালেবানের কাছ থেকে প্রথম যে সহায়তা চায় তা হলো বিদ্রোহী তেহরিক-ই-তালেবান পাকিস্তান (টিটিপি) দমনে সহায়তা। বিগত সাত বছর ধরে, টিটিপি ধ্বংসযজ্ঞ চালানোর জন্য আফগান অঞ্চলকে নিরাপদ আশ্রয় হিসেবে ব্যবহার করেছে। ফলে পাকিস্তান জুড়ে আনুমানিক ৮৩ হাজার হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। এটি পারস্পরিক আদর্শিক সহানুভুতি প্রকাশ করে এবং কাবুল ধ্বংস করতে টিটিপির সঙ্গে তালেবানের সঙ্গে যুদ্ধ পাকিস্তানের ষড়যন্ত্রের জটিলতা প্রকাশ করেছে।


পাকিস্তান চায় তালেবান টিটিপিকে উচ্ছেদ করুক, কিন্তু পরেরটি বাধ্যতামূলক নয়। ইসলামাবাদ তাদের মধ্যস্থতাকারী হিসেবে ‘বড় ভাইয়ের’ ভূমিকা পালন করছে। কিন্তু গত ১০ই ডিসেম্বর তালেবানের মধ্যস্থতায় যুদ্ধবিরতির পর গত চার সপ্তাহ ধরে উপজাতীয় এলাকায় সহিংসতা ছড়িয়ে পড়েছে।

সংবাদ মাধ্যমগুলোর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অনেক পাকিস্তানি সৈন্য মারা গেছে। তালেবান বলছে, টিটিপির সঙ্গে তাদের সমস্যার সমাধান করার দায়িত্ব এখন পাকিস্তানের।

পাকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা মইদ ইউসুফ এই মাসের শেষের দিকে কাবুল সফর করবেন। বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ ও মিশ্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন পাকিস্তান সরকারি কর্মকর্তা এক্সপ্রেস ট্রিবিউনকে বলেছেন “আমরা তালেবান নেতৃত্বকে বলেছি, টিটিপিকে একটি ‘টেস্ট কেস’ হিসেবে বিবেচনা করতে।” কেবল টিটিপিকে দমন কাবুলের অন্তর্বর্তী সরকারকে ‘বিশ্বের চোখে প্রমাণপত্র উপস্থাপন’ করতে সক্ষম করতে পারে।
ওই কর্মকর্তা বলেন, তালেবান যদি পাকিস্তানের উদ্বেগগুলো সমাধান করতে না পারে, তবে আল-কায়েদা এবং অন্যান্য সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার প্রতিশ্রুতি কে বিশ্বাস করবে।
তিনি বলেন, “আফগান তালেবান যদি পাকিস্তানের উদ্বেগকে আমলে নিতে ব্যর্থ হয় তাহলে এটা ক্ষতিকর হবে। একটি বিশ্ব সম্প্রদায়, বিশেষ করে পশ্চিমারা জিজ্ঞাসা করবে- দেখুন, তারা এমনকি পাকিস্তানকে সন্তুষ্ট করতে পারে না; তাহলে তারা কীভাবে অন্যান্য দেশের সন্ত্রাসবাদের উদ্বেগগুলো মোকাবেলা করবে।”

ডন সংবাদপত্রের সম্পাদকীয়তে (১০ জানুয়ারি) বলা হয়েছে, নিষিদ্ধ টিটিপিসহ অনেক গোষ্ঠী অতীতে কাবুলের নতুন শাসকদের সঙ্গে যুদ্ধ করেছে। সহিংস চরমপন্থী সংগঠনের সঙ্গে সহযোগিতার এই ইতিহাস এবং বিদেশি সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোকে নিরাপদ আশ্রয় প্রদানে তাদের ভূমিকাই তালেবানকে স্বীকৃতি দিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের ন্যায়সঙ্গত অনিচ্ছার কারণ।
২০১৮ সালে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সহ অনেক বিশ্ব নেতা ইসলামাবাদের বিরুদ্ধে জঙ্গিবাদে জড়িত থাকার এবং জঙ্গিবাদের প্রচারের অভিযোগ করেছেন। সম্পাদকীয়টি উদ্বেগের প্রতিফলন করে। কারণ, টিটিপি দৃশ্যত আফগানিস্তানে পুনঃসংগঠিত হচ্ছে এবং বেশ কয়েকটি সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে।
সাত বছরের তালেবান-টিটিপি ইতিহাসের সাথে তুলনায়, ডুরান্ড লাইনে আফগানিস্তানের সঙ্গে পাকিস্তানের দ্বন্দ্ব দীর্ঘ ৭২ বছরের পুরোনো। এই সীমান্ত লাইন ব্রিটিশ কর্মকর্তার নামে নামকরণ করা হয়েছে, যে আফগান রাজাকে এটিতে স্বাক্ষর করতে বাধ্য করেছিলেন।

গত বছরের শেষের দিকে নানগরহার সীমান্তে তালেবান এবং পাকিস্তানি সৈন্যরা সংঘর্ষে লিপ্ত হয়েছে। কিছু রিপোর্ট অনুযায়ী, ২ হাজার ৬০০ কিলোমিটারের সীমান্তের কাজ শেষ না করতে মর্টার ফায়ারও হয়েছে। পাকিস্তান এর জন্য ‘দুর্বৃত্তদের’ দায়ী করেছে।

এই সীমান্ত পশতুনদের বিভক্ত করবে- এই কারণে তালেবানসহ কাবুলের কোনো সরকারই এই সীমান্তকে মেনে নেয়নি। কূটনৈতিক সূত্রগুলো ইঙ্গিত দিয়েছে, মইদ ইউসুফের সফরটি কাবুলকে এ ব্যাপারে চাপ প্রয়োগ করতে পারে।

সূত্র : আল-আরাবিয়্যা
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর