× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২৬ মে ২০২২, বৃহস্পতিবার , ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৪ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

২৫শে জানুয়ারি বাকশাল দিবস পালন করবে বিএনপি

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার
(৪ মাস আগে) জানুয়ারি ১৮, ২০২২, মঙ্গলবার, ৭:৫৫ অপরাহ্ন

১৯৭৫ সালের ২৫শে জানুয়ারি বাংলাদেশে একদলীয় শাসন ব্যবস্থা প্রবর্তনের দিনটিকে ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবসের’ পরিবর্তে এখন থেকে ‘বাকশাল দিবস’ হিসেবে পালন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি। আজ মঙ্গলবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের স্থায়ী কমিটি এই সিদ্ধান্তের কথা স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান জানান।

তিনি বলেন, সোমবার স্থায়ী কমিটির সভায় আগামী ২৫শে জানুয়ারি মঙ্গলবার দেশব্যাপী সকল মহানগর ও জেলায় মহান মুক্তিযুদ্ধের সূবর্ণ ফসল গণতন্ত্রকে জবাই করে একদলীয় স্বৈরশাসন জারির দিনটিকে ‘বাকশাল দিবস’ হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। মহান স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন কমিটি ওইদিন সারা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাসরত দলমতনির্বিশেষে গণতন্ত্রমনা বাংলাদেশীদের অংশগ্রহনের ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানের আয়োজন করবে।

১৯৭৪ সালের ২৫শে জানুয়ারি তৎকালীন আওয়ামী লীগ সরকার জাতীয় সংসদে চতুর্থ সংশোধনীর মাধ্যমে একদলীয় শাসন ব্যবস্থা প্রবর্তন করার বিল পাস করে।

গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন হয়। গত সোমবার রাতে দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সভাপতিত্বে স্থায়ী কমিটির বৈঠক হয়।।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Shahidul islam
১৯ জানুয়ারি ২০২২, বুধবার, ১২:৩৩

Mr.what are doing ? BNP don't haven't other job? If your party's make bakshal day awl will more happy. After few days awl deklered bakshal.

আবুল এইচ ভুঁইয়া
১৮ জানুয়ারি ২০২২, মঙ্গলবার, ১২:০৩

বিএনপির আর কোন ইশু নাই।

আবুল কাসেম
১৮ জানুয়ারি ২০২২, মঙ্গলবার, ৯:০৪

দিবস পালন করেন আর যাই করেন আগামী সংসদ নির্বাচনে তত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে ছাড়া অংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত আপনাদের। কিন্তু, যদি পরিস্থিতি অনুকূলে আসে তখন হয়তো সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হতে পারে। যদি হয় তাহলে ইভিএম কারসাজি সম্পর্কে কতটুকু সচেতন। ইভিএম বিশেষজ্ঞদের বরাত দিয়ে ইভিএমের অস্বচ্ছতা, বিড়ম্বনা, ত্রুটি বিচ্যুতি ও ভোটাররা ভোট দিয়ে কাকে ভোট দিয়েছে তা বুঝতে বা জানতে না পারা এবং যে কেউ ইচ্ছা করলে ফলাফল পাল্টে দিতে পারেন ইত্যাদি বিষয়ে জনগণকে সচেতন করে তোলা জরুরি। তৈমুর আলম খন্দকার বলেছেন ইভিএম ডাকাতির বাক্স। যদি তা-ই হয় বা মনে করেন তাহলে এর বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তুলতে হবে।

অন্যান্য খবর