× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২০ মে ২০২২, শুক্রবার , ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৮ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

টিকার জন্য টাকা আদায়, পরে মাইকিং করে টাকা ফেরত

শেষের পাতা

বেড়া (পাবনা) প্রতিনধি
১৯ জানুয়ারি ২০২২, বুধবার

পাবনার বেড়া উপজেলায় টিকা প্রদানে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা আদায় নিয়ে অভিযোগ ওঠার পর তা আবার ফেরত দেওয়া হয়েছে। রোববার  উপজেলার ঢালারচর উচ্চ বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ টিকা প্রদানের জন্য প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ৬০ টাকা করে আদায় করেছিল। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হলে প্রশাসনের চাপে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ পরদিন সোমবার সকালে মাইকিং করে শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে ডেকে এনে সেই টাকা ফেরত দিতে বাধ্য হয়।
গত রোববার  ছিল উপজেলার দুর্গম এলাকায় অবস্থিত ঢালারচর উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের টিকা প্রদানের নির্ধারিত দিন। এ সময় বিদ্যালয়ের প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে টিকা গ্রহণের ফি’র কথা বলে ৬০ টাকা করে আদায় করে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এ নিয়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভ দেখা দিলেও বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের চাপে এই টাকা দিতে বাধ্য হয় শিক্ষার্থীরা।
শিক্ষার্থীরা জানায়, বিনামূল্যে টিকা প্রদানের কথা থাকলেও টিকা প্রদানের আগে প্রত্যেকের কাছ থেকে ৬০ টাকা করে নেওয়া হয়। টাকা দেওয়ার পরেই টিকা গ্রহণের সুয়োগ পায় শিক্ষার্থীরা।
তবে এই ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ অন্যান্য শিক্ষকরা জানান, শিক্ষার্থীদেরকে ফাইজারের টিকা দেওয়া হচ্ছে।
এই টিকা শুধুমাত্র এসি রুমেই দেওয়ার নির্দেশনা থাকায় শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয় থেকে অন্তত ২৫ কিলোমিটার দূরে গিয়ে টিকা নিতে হত। এ কারণে শিক্ষক, অভিভাবক ও বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা সিদ্ধান্ত নেন বিদ্যালয়ে এসি কিনে সেখানেই শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়া হবে। এ জন্য এসি কেনা বাবদ শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৬০ টাকা করে আদায়ের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বিষয়টি শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকেরা আনন্দ সহকারেই মেনে নিয়েছিলেন বলে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের দাবি। টিকা প্রদানের দু’দিন আগে বিদ্যালয়ের একটি কক্ষে এসি বসানো হয়। কিন্তু টাকার বিনিময়ে টিকা প্রদানের বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তা নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়। বিষয়টি জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের নজরে এলে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে দ্রুত শিক্ষার্থীদেরকে টাকা ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। বিষয়টি তদারকির দায়িত্ব দেওয়া হয় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা খবির উদ্দিনকে। এ ছাড়া বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককেও কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়। রোববার  ঢালারচর উচ্চ বিদ্যালয়ের আটশ’ ৫৬ জন শিক্ষার্থীকে টিকা দেয়া হয়। তাদের মধ্য থেকে সাত শ’ ৮৩ জনের কাছ থেকে টাকা আদায় করা হয়েছিল। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে সোমবার সকালে মাইকিং করে শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে ডেকে এনে প্রায় সবার টাকাই ফেরত দিয়ে দেয়া হয়। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সরজমিন উপস্থিত থেকে বিষয়টি তদারকি করেন। এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা খবির উদ্দিন বলেন, ‘টিকা প্রদানের মতো একটি স্পর্শকাতর বিষয়কে সামনে রেখে এভাবে টাকা গ্রহণ করা কোনোভাবে ঠিক হয়নি। তাই টাকা ফেরত দেওয়ার পাশাপাশি প্রধান শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে।’  ঢালারচর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রশীদ বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি থেকে রক্ষা করার জন্যই বিদ্যালয়ে টিকা প্রদানের উদ্যোগ নিয়েছিলাম। এসি কেনার মূল টাকা বিদ্যালয়ের ফান্ড থেকেই নেওয়া হয়েছে। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা স্বেচ্ছায় টাকা দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করায় যৎসামান্য টাকা নেওয়া হয়েছিল। বিষয়টি নিয়ে এমন সমালোচনা হবে- ভাবিনি।’ বেড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহা. সবুর আলী বলেন, ‘টাকার বিনিময়ে কোনোভাবেই টিকা প্রদানের সুযোগ নেই। তাই দ্রুততার সঙ্গে টাকা ফেরতের নির্দেশ দেওয়া হয়।’
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর