× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২২ মে ২০২২, রবিবার , ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২০ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

নোয়াখালীতে সালিশে ২ গ্রুপের সংঘর্ষ, ইউপি সদস্যসহ আহত ৭

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, নোয়াখালী থেকে
২১ জানুয়ারি ২০২২, শুক্রবার

নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলায় গ্রাম্য সালিশি বৈঠকে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে ইউপি সদস্যসহ ৭ জন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় স্থানীয় এলাকাবাসী ইমন নামে এক যুবককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে। নোয়াখালী কবিরহাট উপজেলার সুন্দলপুর মডেল ইউনিয়নে একটি সালিশি বৈঠক চলাকালে আজাদ হোসেন আরজু (৩৫) নামের এক ইউপি সদস্যকে (মেম্বার) কুপিয়ে জখম করেছে একদল দুর্বৃত্ত। এ সময় তাদের হামলায় আরও অন্তত ৭জন আহত হয়। পরবর্তীতে ওই সন্ত্রাসীরা সদর উপজেলার অশ্বদিয়া ইউনিয়নের ৩ ভাইয়ের দোকান এলাকায় যাত্রীবাহী গাড়ির গতিরোধ করে সুন্দলপুরের লোকজনকে নামিয়ে মারধর করে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার রাতে আব্দুল্যাহ মিয়ারহাট বাজারে এ ঘটনা ঘটে। আহত আরজু মালিপাড়া গ্রামের ইউপি সদস্য। স্থানীয় ইউপি সদস্য জাকের হোসেন জানান, গত রোববার দুপুরে অশ্বদিয়া ইউনিয়নের তিন ভাইয়ের দোকানের ৫-৬ জন যুবক আব্দুল্যা মিয়ারহাট পশ্চিম বাজারে আসে।
এ সময় তাদের বড় ভাই না বলায় সাবেক ইউপি সদস্য আমিন উল্যার ছেলে জামির উদ্দিন কছিকে মারধর করে। পরে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে কছিকে উদ্ধার করে। এ ঘটনার বিচারের জন্য উভয় পক্ষের লোকজনকে নিয়ে সালিশি বৈঠকের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গতকাল সন্ধ্যায় মিয়ারহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের হল রুমে সালিশি বৈঠক বসে। তিনি আরও জানান, সন্ধ্যায় বৈঠকের শেষ পর্যায়ে অশ্বদিয়া ইউনিয়নের তিন ভাইয়ের দোকানের লোকজন উত্তেজিত হয়ে বাদী ও শালিসদারদেরকে গালমন্দ শুরু করে। এর কিছুক্ষণ পর তারা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বাদী ও সালিশদারদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। হামলাকারীরা ইউপি সদস্য আজাদ হোসেন আরজুসহ দুইজনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। এ সময় আরও ৭ জনকে পিটিয়ে আহত করা হয়। গুরুতর অবস্থায় আরজু মেম্বারসহ আহতদের উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনার জের ধরে, রাতে জেলা শহর মাইজদী ও সোনাপুর থেকে আব্দুল্যাহ মিয়ারহাটের উদ্দেশে ছেড়ে আসা সিএনজি’সহ সকল ধরনের যানবাহনকে তিন ভাইয়ের দোকান এলাকায় গতিরোধ করে মিয়ারহাটের লোকজনকে নামিয়ে মারধর করে ওই হামলাকারীরা। ওইস্থানে হামলার শিকার আব্দুল্যা মিয়ার হাট সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংক এজেন্ট শাখার পরিচালক কামাল উদ্দিন জানান, রাতে তারা সোনাপুর থেকে সিএনজিযোগে মিয়ারহাটে আসার পথে তিন ভাইয়ের দোকান এলাকায় তাদের গাড়ি থেকে নামিয়ে মারধর করে। তার সাথে থাকা মোবাইল, মানিব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে যায় তারা। হামলায় তার মাথা ও নাকের ডানপাশে পেটে যাওয়ায় সেখানে একটি ফার্মেসিতে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে মিয়ার হাটে আসেন। কবিরহাট থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জয়নাল আবেদীন মানবজমিনকে জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। তিন ভাইয়ের দোকানে লোকজনকে পথরোধ করে মারধরের ঘটনাটি সুধারাম মডেল থানা পুলিশের হস্তক্ষেপে নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। এসব বিষয়ে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর