× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২০ মে ২০২২, শুক্রবার , ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৮ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

তামিম টি-টোয়েন্টি খেলবে না- ‘অবাক সুজন’

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার
২৪ জানুয়ারি ২০২২, সোমবার

আগেই গুঞ্জন ছিল বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগে (বিপিএল) ভালো না করলে হয়তো টি-টোয়েন্টি ছাড়ার ঘোষণা দেবেন জাতীয় ওয়ানডে দলের অধিনায়ক তামিম ইকবাল। এমনটাই তিনি জানিয়েছিলেন তার পরিচিত মহলে। কিন্তু মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকার হয়ে পর পর দুই ম্যাচেই ফিফটি হাঁকালেন দেশসেরা এই ওপেনার। কিন্তু ঠিক এমন সময়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি জানালেন এক বোমা ফাটানো তথ্য। শনিবার রাতে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে জানিয়ে দিলেন তামিম নাকি টি-টোয়েন্টি খেলতে আর জাতীয় দলে ফিরতে চান না! তার এই মন্তব্যের পর আবার টাইগার ক্রিকেটে জমে উঠেছে তামিমের টি-টোয়েন্টি খেলা বা না খেলার নাটক। বিশেষ করে বিসিবির অন্যতম প্রভাবশালী পরিচালক ও জাতীয় দলের টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন বিশ্বাসই করতে পারছেন না। তিনি নিজেই অবাক হয়েছেন এমন তথ্য শুনে। গতকাল সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে খালেদ মাহমুদ বলেন, ‘একটু অবাকই (তামিম টি-টোয়েন্টি খেলবেনা) হয়েছি আমি।
নিউজিল্যান্ড যাওয়ার আগেও আমি তামিমের সঙ্গে কথা বলেছিলাম যে কেন খেলবি না বা কারণ কী। তখন এতো কথা হয়নি। আমি বলেছিলাম আমি ফিরি আগে। তারপর কথা বলবো। তার সঙ্গে কথাও হয়নি, তার আগেই পাপন ভাই অলরেডি বলে দিয়েছেন, তামিম হয়তো পাপন ভাইকে বলেছে!’ সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে ইনজুরিতে পড়েন তামিম ইকবাল। এরপর তার ফিটনেস আর এই ফরম্যাটে খেলার যোগ্যতা নিয়েও উঠতে থাকে প্রশ্ন। তার মধ্যে যোগ হয় টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমদুল্লাহ রিয়াদের সঙ্গে তার দ্বন্দের বিষয়। এখানেই শেষ নয়, নানা আলোচনা-সমালোচনার মধ্যে তামিম বিশ্বকাপ থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার করে নেয়ার ঘোষণা দেন সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে এক ভিডিও বার্তায়। আগুনে ঘি পড়ে সমালোচনা তুঙ্গে ওঠে। তবে শেষ পর্যন্ত দেশসেরা এই ওপেনারকে ছাড়াই বিশ্বকাপ খেলতে যায় বাংলাদেশ। সেখানে তার অভাবটা দারুণভাবে দেখা গেছে। বিশ্বকাপ থেকে লজ্জা নিয়েই বিদায় নেয় টাইগাররা।
গুঞ্জন ছিল তামিম হয়তো আর টি-টোয়েন্টি খেলবেন না। কিন্তু বিপিএলের ৮ম আসরে তিনি মিনিষ্টার গ্রুপ ঢাকার হয়ে খেলছেন। যে দলের অধিনায়ক মাহমদুল্লাহ। তারই ডাকে তামিম শুধু খেলছেনই না দল সাজাতেও ড্রাফটের দিন ছিলেন অধিনায়কের পাশে। শুধু তাই নয়, দেশের দুই ফরম্যাটের অধিনায়ক স্পষ্ট করে জানিয়ে দেন তাদের মধ্যে কোন দ্বন্দ্ব নেই, সবই গুজব। এর মধ্যে আবারো নাজমুল হাসান পাপনের মন্তব্যে শুরু হয়েছে নতুন আলোচনা-সমালোচনা। তামিম নিজের মুখে এখনো টি-টোয়েন্টি থেকে অবসরে ঘোষণাই দেননি।
অন্যদিকে তামিম ইকবাল টি-টোয়েন্টি দলে ফিরবেন কিনা সেটি তার ব্যক্তিগত বিষয় বলেই মনে করেন খালেদ মাহমুদ। তবে তা নিয়ে তামিমের সঙ্গে কথা বলবেন বলেও জানান তিনি। সুজন বলেন, ‘এটা অবশ্যই প্রত্যেকের ব্যক্তিগত ব্যাপার। ওর (তামিম) জায়গায় আমাদের টপ অর্ডার ব্যাটার কেউ রেডি আছে তা না। তার পরও এটা তার ব্যক্তিগত ব্যাপার। কেউ যদি না চায় তাকে তো চাপ দেয়া যাবে না। আমাদের সামনে এগোতেই হবে। ক্রিকেট তো বসে থাকবে না। আমি যদিও বাবলের মধ্যে আছি। আমি চাই না ফোনে কথা বলতে। সামনা সামনি বললে ভালো হয়। তামিমের সঙ্গে নিশ্চয়ই কথা হবে। ওদের সঙ্গে খেলা আছে। খেলা শেষে পারলে কথা বলবো। আসলেই ওর সমস্যাটা কোথায়। মনমালিন্যের ব্যাপার যেটা আছে যেসব ছোটখাটো সমস্যা আছে, এটা ইম্পর্টেন্ট ব্যাপার। ইগোস্টিক থাকে, অনেক সময় হয়ে যায়। অনেক সময় ছোটোখাটো ব্যাখ্যাটা ভুল হয়। সেটাকে ঠিক করার চেষ্টা করবো।’ জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক বলেন, ‘এটা অবশ্যই, আমার দায়িত্বই বাংলাদেশের সেরা দলটা তিন ফরম্যাটে খেলুক। সাকিব খেলছে না বা তামিম খেলছে না, আমি জানি খেলার শেষের দিকেই চলে আসছে এরা সবাই। হয়তোবা আরও ২-৩ বছর খেলবে। আমি ফোকাস করতে চাই যে আগামী একটা বছর বাংলাদেশের যেহেতু অনেক খেলা আছে। আমি সাকিবের সঙ্গে ইতোমধ্যে কথা বলেছি। আমাদের টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অনেক পয়েন্ট আছে, ওয়ানডের অনেক পয়েন্ট আছে। আমরা চাই যে ওদের হাত ধরে এই পজিশনে আসছি। এর থেকে কেন ভালো হবো না।’
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর