× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ১৯ মে ২০২২, বৃহস্পতিবার , ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৭ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

কলকাতা কথকতা /যৌন সম্পর্কে উদার হয়ে উঠছে কলকাতা

কলকাতা কথকতা

বিশেষ সংবাদদাতা, কলকাতা
(৩ মাস আগে) জানুয়ারি ২৪, ২০২২, সোমবার, ১০:৩৩ পূর্বাহ্ন

পশ্চিমবঙ্গের অন্য বড় শহরগুলির তুলনায় কলকাতা যৌন সম্পর্কের বিষয়ে অনেক উদার হয়ে উঠছে। রোববার সেক্সুয়াল প্যাটার্ন অ্যান্ড বিহেভিয়ার অব কলকাতা শীর্ষক এক আলোচনা চক্রে উঠে এলো এই কথা। কলকাতার ৫৫ শতাংশ তরুণ-তরুণী বিয়ে নামক প্রতিষ্ঠানটি সম্পর্কে আগ্রহ হারিয়েছেন। ২২ থেকে ৩৫ বছর বয়স্ক তরুণ-তরুণিরা, যাঁরা স্বনির্ভর, তাঁরা বিবাহ বহির্ভূত যৌন সম্পর্কের ওপর বেশি আস্থাশীল। এমনকি, কম উপার্জনের তরুণ-তরুণিরাও বিবাহে আস্থা হারাচ্ছেন। এর জন্য হিন্দি এবং বাংলা টেলি সিরিয়ালের প্রভাবকে অনেকটা দায়ী করে সেমিনার স্বীকার করে নিয়েছে ডিভোর্স এর অনুপাতিক হারও এর একটা বড় কারণ।

যৌন সম্পর্কের অবনতি বা যৌন শীতলতার জন্য ডিভোর্সের হার প্রায় ২১ শতাংশে পৌঁছেছে আরবান কলকাতায়। এর ফলেও বিবাহে আগ্রহ কমছে।
৫৫ শতাংশের মধ্যে ৪৮ শতাংশ বিয়ের ক্ষেত্রে সেক্সুয়াল কমপাটিবিলিটিকে গুরুত্ব দিচ্ছেন। ৭ শতাংশ আবার ওয়ান নাইট স্ট্যান্ডে বিশ্বাসী। মনোবিদদের মতে পেশাগত জীবনের অত্যাধিক স্ট্রেস এবং স্ট্রেন এর জন্যে দায়ী। অতিমারি জীবন সম্পর্কে একটি কেয়ার ফ্রি মানসিকতার জন্ম দিয়েছে। তার ফলেও অনিত্যতা সম্পর্কে বিশ্বাসী হয়ে পড়ছে মানুষ এবং চিরন্তন বন্ধনে আর জড়াতে চাইছে না। বিস্ময়ের ব্যাপার যে ৫৫ শতাংশ বিবাহ বহির্ভূত যৌন সম্পর্কে বিশ্বাসী তাদের মধ্যে ২৬ শতাংশ অপেক্ষাকৃত ছোট শহর থেকে কলকাতায় এসেছে রুটি রুজির টানে। এদের কাছে বিয়ে মানে একটি নারীদেহ অথবা পুরুষদেহ ভোগ করার লাইসেন্স মাত্র। এঁদের কাছে বিয়ের আলাদা কোনও তাৎপর্য নেই। উত্তরাধিকার প্রশ্নেও এরা নির্বিকার।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Lutfullah Ansary
২৫ জানুয়ারি ২০২২, মঙ্গলবার, ১০:০৫

মহা বিপদের কথা, এই যদি হয় আমাদের তথাকথিত সমাজ ব্যবস্থা। তাহলে আমরা আমাদের পরিবার এর কাছে লজ্জায় মুখ দেখানোর কোন উপায় থাকবেনা। বিদেশী টিভি চ্যানেল বিশেষ করে ভারতি সিরিয়াল নির্ভর চ্যানেল গুলি এই সমস্থ কাজে আমাদের জুবসমাজকে আরও উৎসাহিত করছে। তাই সময়ের দাবি এই সমস্থ টিভি চ্যানেল বন্ধ করা প্রয়োজন।

ferdous
২৪ জানুয়ারি ২০২২, সোমবার, ১:৫৭

This is a newspaper patronized by India. Front page head line is covered by India's News. They always publish the anti islamic activities.

A.R.Sarker
২৪ জানুয়ারি ২০২২, সোমবার, ১২:২২

কিয়ামত এর আলামত ক্রমেই স্পষ্ট হচ্ছে।

সানী চৌধুরী
২৩ জানুয়ারি ২০২২, রবিবার, ১১:৪৭

বাংলাদেশেকেও ফ্রী সেক্সের দেশ বানাতে চাইছে একটি মহল। যারা বানাতে চাচ্ছেন তাদের মনে রাখা উচিত তাদেরও ঘরে মেয়ে ও বউ আছে তারাও কারো না কারো যৌন খোরক হবে।

মাসুদ
২৪ জানুয়ারি ২০২২, সোমবার, ১২:০৪

আগে নিজ পরিবারের সদস্যদের যৌন সম্পর্কের বিষয়ে উদার হতে উৎসাহিত করেন।

Abdul Hannan
২৩ জানুয়ারি ২০২২, রবিবার, ১০:০৩

এসব বিষয় আমাদের দেশে প্রচারে আপনাদের উদ্দেশ্যটা কি?

রুহুল আমীন যাক্কার
২৩ জানুয়ারি ২০২২, রবিবার, ১০:০২

অসুবিধা নেই। মানব সভ‍্যতার বিপরীতে ওরা ওদের মতো চলতে থাকলে প্রকৃতি ওদের জন‍্য এইডস বা এর'চে মারাত্মক কিছু নিয়ে অপেক্ষমান আছে। বেগুন ভাজা খাইতে মজা; খাওজাইতেও মজা কিন্তু পরে শুধু জ্বালাপোড়া!

অন্যান্য খবর