× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২২ মে ২০২২, রবিবার , ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২০ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

নারায়ণগঞ্জে পোশাক কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ থেকে
২৯ জানুয়ারি ২০২২, শনিবার

নারায়ণগঞ্জে রপ্তানিমুখী একটি তৈরি পোশাক কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বিকাল সাড়ে ৪টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বন্দরের মদনপুরে অবস্থিত জাহিন নিটওয়্যার লিমিটেডে এ ঘটনা ঘটে। তবে গতকাল প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। ঘটনার সময় প্রতিষ্ঠানে শুধু ২০ জন নিরাপত্তারক্ষী
দায়িত্বে ছিলেন। অগ্নিকাণ্ডে কয়েকশ’ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেছে মালিকপক্ষ। খবর পেয়ে প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শ্রমিকদের যারা আশপাশে বসবাস করেন তারাও ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। খবর পেয়ে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, ডেমরা, সোনারগাঁও ও বন্দর থেকে ফায়ার সার্ভিসের ১৩টি ইউনিট আগুন নেভানোর কাজ শুরু করে।
জাহিন নিটওয়্যারের মালিক এম জামাল উদ্দিন বলেন, গতকাল বিকালে প্রতিষ্ঠানের নিচ তলায় থাকা ডাইং সেকশন থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলে নিরাপত্তারক্ষীদের কাছ থেকে তিনি জানতে পেরেছেন।
খবর পেয়ে তিনি দ্রুত প্রতিষ্ঠানে যান। তবে আগুনের সূত্রপাত কী থেকে সেটি সম্পর্কে তিনি কিছু জানাতে পারেননি।  
জামাল উদ্দিন জানান, প্রতিষ্ঠানটিতে রপ্তানির জন্য তৈরি করে রাখা প্রচুর তৈরি পোশাক মজুত ছিল। সেগুলো আগুনে পুড়ে গেছে। এছাড়া প্রতিষ্ঠানে থাকা যন্ত্রাংশও পুড়ে গেছে। বলতে গেলে একটি প্রতিষ্ঠান পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গেছে। তিনি দাবি করেন, আগুনে ক্ষতির পরিমাণ হবে কয়েকশ’ কোটি টাকা।
নিরাপত্তারক্ষীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রতিষ্ঠানটির ৩টি ভবন রয়েছে। এর দু’টি তিনতলা এবং একটি দোতলা। আগুন প্রতিটি ভবনেই ছড়িয়ে পড়েছে। ফলে প্রতিটি ভবনে থাকা যন্ত্রাংশের পাশাপাশি তৈরি করে রাখা পোশাক পুড়ে গেছে। নিরাপত্তারক্ষীরা জানান, প্রতিষ্ঠানটিতে ৫ হাজার শ্রমিক কাজ করতো।
ফায়ার সার্ভিস আন্ড সিভিল ডিফেন্সের নারায়ণগঞ্জ কার্যালয়ের উপ-সহকারী পরিচালক আবদুল্লাহ আল আরেফিন বলেন, আগুনের সূত্রপাত তদন্ত ছাড়া বলা যাবে না। ক্ষতির পরিমাণও তদন্তেই উঠে আসবে। ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ-পরিচালক দিনু মনি শর্মা শুক্রবার সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় জানান, আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে না এলেও এটি আর বাড়ার কোনো সম্ভবনা নেই। তারা কাজ করছেন।
বন্দর থানার ওসি দীপক চন্দ্র সাহা বলেন, অগ্নিকাণ্ডের কারণে মহাসড়কে যানবাহন চলাচল কিছু সময় বন্ধ ছিল। তবে পুলিশ সড়কের এক পাশ দিয়ে যান চলাচল সচল রাখার কাজ করছে।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর