× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৮ অক্টোবর ২০২০, বুধবার

বদলে যাওয়া সেই সড়কটি

মন ভালো করা খবর

শামীমুল হক | ১৬ মার্চ ২০২০, সোমবার, ১০:৫৫

সড়কের দুই পাশে ফুলের টব। দেয়ালে নানা অঙ্কন। এক অন্যরকম আবহ। অথচ কদিন আগেও এ সড়ক দিয়ে মানুষ চলত নাকে রুমাল দিয়ে। আর পুরো সড়কটিই দখলে ছিল ভবঘুরেদের। দেড় যুগ আগে সড়কটি নির্মাণ হওয়ার পরই এটি তাদের দখলে চলে যায়। সম্প্রতি এ সড়কটি দলখমুক্ত করার পাশাপাশি সৌন্দর্যমণ্ডিত করেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ২১ নং ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত ওয়ার্ড কমিশনার আসাদুজ্জামান আসাদ।

নির্বাচনের পরদিন থেকেই আসাদ তার কাজ শুরু করেন।
নির্বাচনের পরদিনই তার কর্মীবাহিনী নিযে মাঠে নেমে পড়েন পোস্টার উঠানোর কাজে। একদিনেই তার নির্বাচনী এলাকা থেকে সকল পোস্টার সরিয়ে ফেলেন।

হাতিরপুল বাজারের পূর্বদিকে আজিজ সুপার মার্কেটের পশ্চিম পাশের সড়কটি দেড় যুগ ধরে বেদখল হয়ে ছিল। কাগজে কলমে ‘পরীবাগ শাহবাগ সড়ক’ নাম হলেও স্থানীয় ব্যক্তিদের কাছে এটি ‘নালিরপার রোড’ নামে পরিচিত। চওড়া অন্তত ৪০ ফুট। সড়কটির পূর্বদিকে পরীবাগ ওয়াপদা অফিসার্স কলোনি। আর পশ্চিম দিকে ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির (ডিপিপিসি) একটি কার্যালয়।

সড়কটি দখল করে গড়ে ওঠা দোকানপাট, গ্যারেজ, রিকশা-ভ্যান শ্রমিক লীগের কার্যালয়সহ অস্থায়ী সব স্থাপনা সরিয়ে দেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ২১ নম্বর ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত কাউন্সিলর মো. আসাদুজ্জামান। এটি যাতে আর দখল হযে না যায়, এ জন্য কয়েকটি পরিকল্পনা হাতে নেন। ইতোমধ্যে সড়কের ফুটপাতে বসানো হয়েছে ফুলের টব। দেয়ালে আঁকা হয়েছে ঐতিহাসিক সব ছবি। এ সড়ক দিয়ে এখন আর নাকে রুমাল চেপে চলাচল করতে হয়না। সড়কের আশপাশের বাসিন্দাদের কথা- ২০০১ সালে সড়কটির সংস্কারের পর পরই সড়কে ছিন্নমূল, ভবঘুরে ও রিকশাচালকরা অস্থায়ী ঘর তৈরি করে থাকা শুরু করে। পরে ফুটপাথে দোকানপাট গড়ে ওঠে। এছাড়া ময়লার ভাগাড়ে পরিণত হয়। বর্তমানে সড়কটি যেন প্রাণ ফিরে পেয়েছে। আর আমরা এখন দরজা জানালা খুলে বসবাস করতে পারছি। তারা বলেন গত প্রায় দেড় যুগ বাসার জানালা খুললেই ভেসে আসত দুর্গন্ধ। এ থেকে এখন আমরা মুক্ত।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর