× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১১ মে ২০২১, মঙ্গলবার, ২৮ রমজান ১৪৪২ হিঃ

করোনায় মারা গেলেন সোনালী ব্যাংক কর্মকর্তা

করোনা আপডেট

অর্থনৈতিক রিপোর্টার
১৮ মে ২০২০, সোমবার

করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন আরেক ব্যাংক কর্মকর্তা। রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার (পিও) মাহবুব এলাহী গতকাল রোববার রাতে কুমিল্লায় মারা যান। এক সপ্তাহে আগে তার শরীরে করোনা সনাক্ত হয়। এ নিয়ে তিনিসহ ৪ জন ব্যাংকার মারা গেলেন।

সোনালী ব্যাংক সূত্র জানায়, সোনালী ব্যাংকের মতিঝিলে লোকাল অফিসে কর্মরত ছিলেন মাহবুব এলাহী। করোনার লক্ষণ দেখা দেয়ায় গত ৭ই মে ছুটি নিয়ে কুমিল্লায় নিজবাড়ী চলে যান। পরে ১০ই মে টেস্টে করোনা পজিটিভ আসে।

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি হয়ে কয়েকদিন চিকিৎসা নিয়ে বাড়ী চলে যান। গতকাল রাতে তিনি নিজ বাসাতেই মারা যান। তার একটি এক মাসের মেয়ে রয়েছে।
মেয়েসহ তার স্ত্রী চিকিৎসার জন্য ভারতের চেন্নাইতে রয়েছেন। গত সপ্তাহের ব্যাংকের দেয়া সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার (এসপিও) তালিকায় তার নাম রয়েছে। কিন্তু মেয়ের মুখ না দেখে এবং প্রমোশন অর্ডার হাতে পাওয়ার আগেই মারা গেলেন এই ব্যাংক কর্মকর্তা। সোনালী ব্যাংকের লোকাল অফিসের উপ-মহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) মো. মনিরুজ্জামান বলেন, কুমিল্লায় নিজবাড়ীতে তিনি মারা গেছেন মাহবুব এলাহী।

তার মৃত্যুতে আমরা শোকাহত। তিনি নিবেদিত একজন ব্যাংকার ছিলেন। চালান সেকশনের একজন দক্ষ কর্মকর্তা। তিনি বলেন, লোকাল অফিস লকডাউন করা হবে কিনা এই বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেবেন।

সোনালী ব্যাংক সূত্র জানায়, করোনার বিষয়টি কাউকে না প্রকাশ করতে ব্যাংকের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তাকে নিষেধ করেন। তবে চিকিৎসা বিষয়টি ভালোভাবে চালিয়ে যেতে ছুটি দেন।

রোববার বিকালে মাহবুব এলাহী নিজেই ফেসবুকে স্ট্যাটাসের করোনা পজিটিভ হওয়ার কথা লেখেন। রাত ৯ টার দিতে মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুতে সোনালী ব্যাংকের কর্মকর্তারা সমবেদনা ও শোক প্রকাশ করেছেন।

উল্লেখ্য, সোনালী ব্যাংকের ৩০ জন করোনা সংক্রমণিত হয়েছেন। অন্যান্য ব্যাংকের সংক্রমণ আছে। তিনিসহ ৪ জন মারা গেছেন। এরমধ্যে সিটি ব্যাংকের দুইজন এবং রুপালী ব্যাংকের ১ জন কর্মকর্তারা। এর বাইরে করোনা লক্ষণ নিয়ে চট্টগ্রামের মারা গেছেন আরও ২ ব্যাংক কর্মকর্তা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
MORSIDUL
১৭ মে ২০২০, রবিবার, ১০:৩৩

প্রণোদনা ভাতা দেওয়ার দরকার নাই।বরং চিকিৎসা ভাতা ঠিকমতো দেওয়ার দরকার এবং চিকিৎসা করার জন্য প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা দরকার। সরকারের পক্ষ থেকে যেহেতু ব্যাংকাররা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দেশের অর্থনীতিকে সচল রাখার জন্য অবদান রাখছেন।

অন্যান্য খবর