× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২০ অক্টোবর ২০২০, মঙ্গলবার
সরকারি কর্মকর্তাদের প্রধানমন্ত্রী

আত্মবিশ্বাস নিয়ে জনগণের জন্য কাজ করুন

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, শুক্রবার, ৯:২১

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে একটি দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন গড়ে তোলার শপথ নিয়ে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রতি নিজস্ব উদ্যোগেই ‘শুদ্ধাচার’ ও এর পরিকল্পনা বাস্তবায়নের নির্দেশ দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী গতকাল অ্যানুয়াল পারফরমেন্স এগ্রিমেন্ট (এপিএ)-২০২০ স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ নির্দেশ দিয়ে বলেন, ‘আমরা দেশে একটি ঘুষ ও দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসনিক ব্যবস্থা গড়ে তুলতে চাই। আপনাদেরকেই এই শুদ্ধাচারের পরিকল্পনা করতে হবে এবং কীভাবে তা বাস্তবায়ন করা যায় সেই উপায় বের করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই পরিকল্পনা তৃণমূল পর্যন্ত পৌঁছাতে ও তা সফলভাবে কার্যকর করতে হবে। ‘আর যারাই এটা করতে পারবে, তাদেরকে পুরস্কৃত করা হবে। প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে যুক্ত হন। প্রধানমন্ত্রী সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সব ধরনের দুর্নীতি থেকে মুক্ত থাকার পাশাপাশি আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে কাজ করার নির্দেশ দেন। তিনি তাদেরকে জনগণের পাশে থাকারও নির্দেশ দেন।
বলেন, আপনারা যখন কোনো কাজ করবেন, তখন তা আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে করবেন। কে কি বললো বা কে কি লিখলো সেদিকে কান দেবেন না। এসব দিকে কান দিলে কোনো কাজই করতে পারবেন না। দেশে কিছু মানুষের স্বভাবই হচ্ছে অন্যের সমালোচনা করা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তারা সামান্য ভুল হলেই অনেক কিছু বলেন। কিন্তু তারা দেশ ও দেশের মানুষের জন্য নিজেরা কিছুই করেন না।
তিনি বলেন, ‘কিন্তু আপনাদেরকে আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে সঠিক কাজটি করে যেতে হবে। যদি আপনাদের এই আত্মবিশ্বাস থাকে যে, আপনারা যা করলেন তা জনগণের কল্যাণের জন্য এবং জনগণ এর সুফল ভোগ করবে, তবে আমি বলতে চাই যে, আপনারা তাই করুন। জনগণের পাশে থাকা প্রতিটি সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর দায়িত্ব।

তিনি বলেন, ‘জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে ক্ষমতায় এসেছি বলে তাদের পাশে থাকা আমাদেরও দায়িত্ব। আমরা জনগণের কাছে অঙ্গীকারাবদ্ধ। আর যারা সরকারি চাকরি করেন তারাও জনগণের সেবা করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।
করোনাভাইরাস মহামারি প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনা মোকাবিলায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অত্যন্ত দক্ষতার পরিচয় দিয়েছে এবং সরকার প্রাথমিক পর্যায়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করে কোভিড-১৯ কে নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্ষম হয়েছে।
তিনি বলেন, অনেকেই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সমালোচনা করেন। কিন্তু মন্ত্রণালয় যথেষ্ট দক্ষতার সঙ্গে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সক্ষম হয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, এটা মাথায় রাখতে হবে যে, চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীসহ স্বাস্থ্যসেবায় নিয়োজিত কর্মীরা কাজ না করে বসে থাকেননি, তারা নিরলসভাবে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে কোভিড-১৯ মোকাবিলা করেছেন। অনেক চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী কোভিড আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন। তাদের পাশাপাশি, প্রশাসন, সশস্ত্র বাহিনী ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা এবং আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা অত্যন্ত আন্তরিকতার সঙ্গে এই রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন এবং এই দুর্যোগপূর্ণ সময়ে জনগণকে সাহায্য করেছেন।’

করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে শিক্ষার্থীদের নিয়ে উদ্বিগ্ন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এটি তাদের পড়াশোনাকে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করছে। শুধু বাংলাদেশ নয়, মহামারিজনিত কারণে সমগ্র বিশ্বের অর্থনীতি স্থবির হয়ে পড়েছে এবং সমগ্র বিশ্বের মানুষ এর জন্য ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। কোভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাবের প্রেক্ষিতে উন্নয়নমূলক কাজের গতি কমিয়ে আনা হয়েছে। এতে কোনো সন্দেহ নেই যে, আমরা যেভাবে এগিয়ে চলেছি তাতে বাধা সৃষ্টি হয়েছে। তবে আমাদের এই বাধা অতিক্রম করতে হবে এবং এটি স্বীকার করেই কাজ করতে হবে।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ দুর্যোগপ্রবণ দেশ হওয়ায় দুর্যোগ আসবে। তবে আমাদের দুর্যোগ মোকাবিলা করেই এগিয়ে যেতে হবে।
শেখ হাসিনা বলেন, সরকার একটি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে যা দেশের জিডিপি’র চার শতাংশের বেশির সমতুল্য। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের আগে কোনো দেশই এ জাতীয় প্যাকেজ ঘোষণা করেনি এবং আমরা এজন্য অর্থ মন্ত্রণালয়কে ধন্যবাদ জানাই।’ আমরা যেখানেই প্রয়োজন সেখানে প্রণোদনা প্যাকেজের পাশাপাশি হাত খুলে নগদ অর্থ সরবরাহ করেছি এবং ফলস্বরূপ আমাদের অর্থনীতির চাকা সচল রয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের অগ্রগতি অব্যাহত থাকবে এবং আমরা পিছিয়ে যাবো না আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলা গড়ে তুলবো। লক্ষ্য অর্জনের জন্য আমি সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানাই।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Kazi
১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৩:৪১

Appreciate the order. But who will stop interference of party leaders, this is a question ? Openly party local leaders challenge and threat the law enforcement authorities, BCS service cadres.

অন্যান্য খবর