× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৩১ অক্টোবর ২০২০, শনিবার

কোভিডে মৃত্যুর পরও পুনঃনির্বাচিত এই মেয়র

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, মঙ্গলবার, ১০:৫৭

রোমানিয়ার দক্ষিণে একটি ছোট গ্রামের মেয়র আয়ন আলিম্যান। পৌর নির্বাচনের ১০ দিন আগেই কোভিডে আক্রান্ত হয়ে মারা যান তিনি। কিন্তু ডেভেসেলু নামে ওই গ্রামটির বাসিন্দারা এরপরও তাকেই তৃতীয়মারের মতো মেয়র নির্বাচন করেছেন। তাও বিশাল ব্যবধানে। দিনের বেলা তাকে ভোট দিয়েই মানুষজন সন্ধ্যায় তার কবরে মোমবাতি প্রজ্বলন করে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেছেন। এ খবর দিয়েছে এবিসি নিউজ।

খবরে বলা হয়, রোববারের নির্বাচনের আগে আগে আয়ন আলিম্যান মারা যাওয়ায় তার নাম ব্যালট থেকে সরানো যায়নি। তবে তার মৃত্যুর খবর ছোট্ট গ্রামটিতে ঝড়ের বেগে ছড়িয়ে পড়ে। পুরো গ্রামে বাসিন্দার সংখ্যা ৩ হাজারের চেয়ে কিছুটা বেশি।

বেঁচে থাকলে নির্বাচনের দিন জনপ্রিয় এই মেয়র তার ৫৭তম জন্মদিন পালন করতেন।

আলিম্যানের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই গ্রামের শত শত মানুষ রোববার ভোটকেন্দ্রে ভিড় জমায়। মৃত জেনেও তাকেই ভোট দেয় মানুষ। রোববার সন্ধ্যায় প্রাথমিক নির্বাচনী ফলাফলে দেখা গেছে যে, মোট ১৬০০ মানুষ ভোট দিয়েছে তাকে। এদের মধ্যে ১০৫৭ জনই আলিম্যানের পক্ষে রায় দিয়েছে। ফলাফল ঘোষণার পর বিপুল সংখ্যক মানুষ তার সমাধিতে গিয়ে শ্রদ্ধা জানায়। অনেকে বলেন, ‘এটি তোমারই বিজয়।’ আরেকজন লিখেছেন, ‘আমরা তোমাকে গর্বিত করবো। আমরা জানি যে উপর থেকে তুমি দেখছো।’

বামপন্থী সোশ্যাল ডেমোক্রেট পার্টির (পিএসডি) সদস্য ছিলেন আলিম্যান। তার সহকারী নিকোলে ডোবরেও একই দলের সদস্য। তিনি স্থানীয় টেলিভিশন চ্যানেল ডিজি২৪-কে বলেন, 'আর কোনো প্রতিদ্বন্দ্বীই তার মতো ভোটারদের আস্থা পাননি।' ডোবরে জানান, তিনি নিজেও আলিম্যানকেই ভোট দিয়েছেন।

ডেভেসেলু গ্রামের এই মিষ্টি সাফল্যের পরও, পিএসডি দল দেশব্যাপী খুব ভালো করতে পারেনি। রাজধানী বুখারেস্টের মেয়র পদে দলটির ক্ষমতাসীন প্রার্থী হেরে গেছেন। জিতেছেন মধ্য-ডানপন্থী ন্যাশনাল লিবারেল পার্টি, এনএলপির প্রার্থী। এই দলি রাষ্ট্রীয় সরকারের নিয়ন্ত্রণে।

পিএসডি আগে ছিল ক্ষমতায়। তবে পার্লামেন্টে আস্থা ভোটে হেরে ক্ষমতা থেকে ছিটকে পড়ে দলটি। মূলত, বিচারবিভাগের ওপর আক্রমণ ও ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগের মুখে দুরবস্থায় পড়ে পিএসডি। এ নিয়ে দেশজুড়ে ব্যাপক প্রতিবাদ-বিক্ষোভও দেখা দেয়। এছাড়া ব্রাসেলস থেকেও কড়া সমালোচনা আসে।

রোববার প্রায় ১ কোটি ৯০ লাখ ভোটার স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ভোট দেন। দেশজুড়ে মোট ৪৩ হাজার প্রার্থী এতে বিভিন্ন পদে নির্বাচিত হয়েছেন। এই নির্বাচনকে দেখা হচ্ছিল আগামী জাতীয় নির্বাচনের পূর্বাভাস হিসেবে। এখন পর্যন্ত পাওয়া প্রাথমিক ফলাফল অনুযায়ী, ৬ই ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় পার্লামেন্ট নির্বাচনে পিএসডি'র জয়ের সম্ভাবনা কম। তবে ডেভেসলুতে দলটির বিজয় নিশ্চিতভাবেই আশাজাগানিয়া।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর