× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৩১ অক্টোবর ২০২০, শনিবার

ধামরাইয়ে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগ নেতাকে মারধর

বাংলারজমিন

ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি | ১ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৭:৫৬

দাওয়াত না দেয়ার পরও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন অনুষ্ঠানে যাওয়ার পথে বালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি আহমদ হোসেনকে লাঞ্ছিত ও তার এপিএস ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল গণিকে মারধর করা হয়েছে। এ ঘটনায় ওই এলাকায় চরম উত্তেজনা চলছে। বুধবার বিকালে বাস্তা-নয়াচর ও বনেরচর এলাকাবাসী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে তার জন্য বিশেষ মোনাজাত ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এ অনুষ্ঠানে তাকে দাওয়াত না দিলেও সে স্থানীয় এমপি বেনজীর আহমদের সঙ্গে অনুষ্ঠানে যোগ দেয়াকালে আয়োজকরা ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে লাঞ্ছিত করে। পরে বালিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল আলীম স্থানীয় এমপি বেনজীর আহমদের উপস্থিতিতে মাইকে ঘোষণা দিয়ে তাকে প্রত্যাখ্যান করেন। এ সময় অনুষ্ঠানে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়। এ ঘটনার পর এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে।
জানা যায়, ধামরাইয়ের বালিয়া ইউনিয়নের বাস্তা নয়াচর ও বনেরচর গ্রামবাসীর উদ্যোগে  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন।
বিকালে বাস্তা বাজার মাঠে হাজারো নেতাকর্মী তাদের প্রিয় নেত্রীর জন্মদিন অনুষ্ঠানে যোগদান করেন। উক্ত অনুষ্ঠানে বালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আহমদ হোসেনকে দাওয়াত না দিয়ে ওই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রার্থী সাবেক ঢাকা জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মজিবর রহমানকে দাওয়াত করেন নেতাকর্মীরা। কিন্তু এমপি বেনজীর আহমদের সঙ্গে চেয়ারম্যান আহমদ ওই অনুষ্ঠানস্থলে যান। এ সময়  মজিবর  সমর্থক মিজানসহ তার নেতাকর্মীরা আহমদ  হোসেন ও তার আস্থাভাজন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল গণিকে লাঞ্ছিত করেন। এক পর্যায়ে গণিকে মারধর করা হয়। পরে স্থানীয় এমপির হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়।
 এসময় নেতাকর্মীরা বক্তব্যে অভিযোগ করেন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলনে ত্যাগী নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে চাটুকারদের পদ-পদবি দিয়েছে উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি ও বালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আহমদ হোসেন। এতে ইউনিয়নের নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
 এবিষয়ে বালিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল গণি জানান, স্থানীয়  মজিবর রহমান ও মিজানুর রহমান আমাকে মারধর করেছেন। আমি দলীয় নেতাকর্মীদের কাছে বিচার চাই।
উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি ও বালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আহমদ হোসেন বলেন, বিষয়টি দুঃখজনক।
 

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর