× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৬ নভেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার
মাটির নিচ দিয়ে নেয়ার প্রতিশ্রুতি

ঝুলন্ত তার অপসারণ অভিযান আপাতত বন্ধ

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১৯ অক্টোবর ২০২০, সোমবার, ৯:৪০

রাজধানীর ইন্টারনেট ও ক্যাবল টিভির ঝুলন্ত তার কাটা আপাতত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (আইএসপিএবি) এবং ক্যাবল অপারেটর্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (কোয়াব) তার মাটির নিচ দিয়ে নেয়ার প্রতিশ্রুতি দিলে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান ডিএসসিসি’র মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস। গতকাল এ বিষয়ে আইএসপিএবি ও  কোয়াব নেতাদের সঙ্গে মেয়রের সমঝোতা বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। বৈঠকের শেষে গণমাধ্যমে ব্রিফিংকালে মেয়র বলেন, আজকের পর থেকে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে রাস্তায় কোনো ঝুলন্ত তার কাটা হবে না। আমাদের বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, মাটির নিচ দিয়ে তারা নিজ খরচে তারের সংযোগ নেবেন এবং সঙ্গে সঙ্গে ওপরে ঝুলন্ত তার কেটে দেবেন। আর এটি আগামী নভেম্বরের মধ্যেই তারা শেষ করবেন বলে আমাদের কথা দিয়েছেন। সে কারণেই আমরা তার কাটবো না।
তাপস বলেন, সোমবার থেকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকার ধানমণ্ডি থেকে মাটির নিচ দিয়ে তার নিবেন। ঢাকা সিটি করপোরেশন বিনা খরচে তাদেরকে সহায়তা করবে।
আশা করি নভেম্বর মাসের মধ্যেই ঢাকা সিটি করপোরেশনকে তারের জঞ্জাল থেকে মুক্ত করতে পারবো। এক প্রশ্নের উত্তরে ডিএসসিসি মেয়র বলেন, বৃহত্তর স্বার্থে ঢাকা সিটি করপোরেশনের সৌন্দর্যবর্ধনের জন্য আমরা তাদেরকে সর্বোচ্চ ছাড় দিবো। তাদেরকে অনেক বেশি ছাড় দিয়েছি। এমনকি সড়ক পুনঃখননের জন্য যে ক্ষতিপূরণ প্রয়োজন, এই সময়ের মধ্যে আমরা আর নিবো না। আগামী নভেম্বর মাসের মধ্যে তার অপসারণ করতে তাদেরকে বিনীতভাবে অনুরোধ করেছি। তারা যদি এই সময়ে তার মাটির নিচ দিয়ে নিতে সক্ষম হয়, তাহলে ২০২১ সালে আমার নগরবাসীকে একটি তারের জঞ্জালমুক্ত ঢাকা উপহার দিতে পারবো। তার মাটির নিচ দিয়ে নিতে সিটি করপোরেশনের রাস্তা খোঁড়ারও অনুমতি দেয়া হয়েছে জানিয়ে মেয়র বলেন, বিনা খরচে আমরা সেটা করার সুযোগ তাদেরকে দিচ্ছি। আমাদের মধ্যে কিছু দ্বিমত ছিল, কিন্তু বৃহত্তর স্বার্থে সবরকম ছাড় দিয়েছি। এমন কি সড়ক খোঁড়ার পর মেরামতের কাজও সিটি করপোরেশনের খরচেই মেরামত করা হবে। এ কাজে রাস্তা, ফুটপাথ, নর্দমা অর্থাৎ ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের যেসব অবকাঠামো ব্যবহার করার প্রয়োজন হবে তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে সেসব অবকাঠামো ব্যবহারের সুযোগ দেয়া হবে।
এনটিটিএন গাইড লাইন অনুযায়ী আইএসপিএবি ও কোয়াব নিজ উদ্যোগে ট্রান্সমিশন ব্যবস্থাপনা সৃষ্টি করতে পারে না, সে ক্ষেত্রে বিটিআরসির সঙ্গে কোনো সমন্বয় করা হবে কিনা জানতে চেয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ব্যারিস্টার শেখ তাপস বলেন, যেহেতু মন্ত্রী (ডাক ও টেলিযোগাযোগ) আমাদেরকে আশ্বস্ত করেছেন এবং গতকাল মন্ত্রীর সঙ্গে তাদের (আইএসপিএবি ও কোয়াব নেতৃবৃন্দের) কথা হয়েছে এবং আজকে মন্ত্রীর সঙ্গে আমার দু’দফা কথা হয়েছে, সেজন্য এ বিষয়টি নিয়ে তিনি উদ্যোগ গ্রহণ করবেন। বৈঠক শেষে আইএসপিএবি সভাপতি এমএ হাকিম বলেন, আজ থেকেই আমরা ঝুলন্ত তার নামিয়ে মাটির নিচে সংযোগের কাজ শুরু করে দেবো। আশা করি নভেম্বরের মধ্যেই পারবো। মেয়রের সঙ্গে বৈঠকের পর আমাদের মধ্যে সমঝোতা হয়েছে। বৈঠকে তার অপসারণ অভিযান স্থগিত হওয়ায় এখন আর আমরা ধর্মঘটে যাচ্ছি না। মাটির নিচ দিয়ে তার সরবরাহ হলে এর প্রভাব গ্রাহকদের ওপর পড়বে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এজন্য গ্রাহকদের ফি বাড়ানো হবে না। আমরা আগের খরচেই সংযোগ রাখতে পারবো। এর আগে গত মাস থেকে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় ঝুলন্ত তারের জঞ্জাল সরাতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এতে ইন্টারনেট ও ডিশ সংযোগের কয়েক লাখ লাইন বিচ্ছিন্ন হয়। বিপাকে পড়ে আইএসপিএবি ও কোয়াব। ১৮ই অক্টোবর সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ইন্টারনেট সংযোগ বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছিল ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (আইএসপিএবি) ও ক্যাবল অপারেটর্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (কোয়াব)। এ নিয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এবং আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সঙ্গে ভার্চ্যুয়াল বৈঠক করেন দুই সংগঠনের নেতারা। পরে তারা ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠক থেকে ধর্মঘট প্রত্যাহরের কথা জানান সংগঠনের নেতারা। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এবিএম আমিন উল্লাহ নুরী, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা আরিফুল হক, কোয়াবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এসএম আনোয়ার পারভেজ, আইএসপিএবি’র সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর