× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৪ নভেম্বর ২০২০, মঙ্গলবার

বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে সবজি

দেশ বিদেশ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | ২৪ অক্টোবর ২০২০, শনিবার, ৮:৪৬

নতুন করে দাম না বাড়লেও আগের মতোই চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে সব ধরনের সবজি। অবশ্য গত সপ্তাহে একশ’ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া বরবটি ও শসার দাম কমে এসেছে। বাজারে এখন ৫টি সবজির কেজি ১০০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। আর পেঁপে বাদে বাকি সবজিগুলোর কেজি ৫০ টাকার উপরে। এদিকে দুই দফায় আলুর দাম বেঁধে দেয়া হয়েছে। এরপরও দাম নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। সরকার খুচরায় আলুর কেজি ৩৫ টাকা নির্ধারণ করলেও ৪৫ টাকার নিচে মিলছে না কোথাও। এমনকি কোনো কোনো ব্যবসায়ী এখনো আলুর কেজি ৫০ টাকা বিক্রি করছেন।
গতকাল রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।
খিলগাঁও বাজারের ব্যবসায়ী আশরাফ আলী বলেন, আমাদের আলু দুইদিন আগে কেনা। এই আলু গড়ে ৪২ টাকা কেজি কিনে আনা। সেই আলু বাছাই করে ৫০ টাকা বিক্রি করেছি। এতে কোনো রকমে আসল উঠে আসবে। এর নিচে বিক্রি করলে লোকসান গুনতে হবে। তবে পাইকারি থেকে নতুন করে কম দামে আলু কিনতে পারলে আমরাও কম দামে বিক্রি করবো।
মালিবাগ হাজীপাড়া বাজারে ৪৫ টাকা কেজি আলু বিক্রি করা ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর বলেন, আলুর দাম কমার তথ্য শুধু খবরে দেখি। বাজারে তো দাম কমতে দেখি না। আমি প্রতিদিন শ্যামবাজার থেকে পণ্য আনা-নেয়া করি। পাইকারিতে আলুর দাম দুই দিন আগে যা ছিল এখনো তাই আছে। পাইকারিতে না কমলে আমরা কীভাবে কম দামে বিক্রি করবো?
এদিকে গত সপ্তাহের মতো এখনো শিম, পাকা টমেটো, গাজর, বেগুন ও উস্তার কেজি একশ’ টাকার ঘরে রয়েছে। এর মধ্যে পাকা টমেটো গত কয়েক মাসের মতো এখনো ১২০ থেকে ১৪০ টাকা এবং গাজর ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।
তবে শিমের দাম কিছুটা কমে ৮০ থেকে ১১০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে, যা গত সপ্তাহে ছিল ১২০ থেকে ১৪০ টাকা। আর শসার কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৭০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৯০ থেকে ১০০ টাকা।
বরবটির কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৮০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৮০ থেকে ১২০ টাকা। বেগুন গত সপ্তাহের মতো ৮০ থেকে ১১০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। এক কেজি উস্তা বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১০০ টাকায়।
এ সব সবজির পাশাপাশি বাজারে অন্য সবজিগুলোও স্বস্তি দিচ্ছে না। পটলের কেজি ৬০ থেকে ৮০ টাকা, গত সপ্তাহের মতো ঢেঁড়সের কেজি ৭০ থেকে ৮০ টাকায়। দাম অপরিবর্তিত রয়েছে ঝিঙা, কাঁকরোল, ধুন্দুল, কচুর লতি। ঝিঙার কেজি ৭০ থেকে ৮০ টাকা, কাঁকরোল ৬০ থেকে ৭০ টাকা, একই দামে বিক্রি হচ্ছে কচুর লতি।
লাউয়ের পিস গত সপ্তাহের মতো বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ টাকা। এক হালি কাঁচা কলা বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। বাজারে আসা শীতের আগাম সবজি ফুলকপি ও বাঁধাকপির পিস বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৫০ টাকা।
স্বস্তি মিলছে না কাঁচামরিচ ও পিয়াজের দামেও। এক কেজি কাঁচামরিচ ২০০ থেকে ২৫০ টাকায়। পিয়াজের কেজি ৮০ থেকে ৯০ টাকায়।
কাওরান বাজারের ব্যবসায়ী হারুন বলেন, গত সপ্তাহে একশ’ টাকা কেজি বিক্রি করা শিম গতকালও ৬০ টাকায় বিক্রি করেছি। এভাবে গত সপ্তাহের তুলনায় বেশকিছু সবজির দাম কমেছে। তবে যেভাবে বৃষ্টি শুরু হয়েছে তাতে সবজির দাম আরো বেড়ে যেতে পারে।
রামপুরার ব্যবসায়ী বলেন, সবজির দাম বেশি হলেও গত সপ্তাহের তুলনায় এখন বেশিরভাগ সবজি কম দামে বিক্রি হচ্ছে। গত সপ্তাহে এক কেজি শসা একশ’ টাকা বিক্রি করেছি, এখন ৬০ টাকা বিক্রি করেছি। ৮০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া পটল ৬০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। ১০০ টাকার গাজর ৮০ টাকায় বিক্রি করেছি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর