× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৬ নভেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার
রাশিয়ার হস্তক্ষেপ তদন্তে অনীহা

বৃটিশ প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ আন্তঃদলীয় গ্রুপের

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ২৯ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৩:৩০

বৃটেনের নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের অভিযোগ তদন্তে অনীহার কারণে বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিয়েছে আন্তঃদলীয় একটি গ্রুপ। এতে রয়েছেন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের এমপি এবং পিয়ার’রা। রয়েছেন জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক সাবেক একজন উপদেষ্টা। প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন যেন অভিযোগের বিষয়ে একটি নিরপেক্ষ তদন্ত অথবা সরকারি তদন্ত করতে বাধ্য হন- এ দাবিতে হাইকোর্টে অভিযোগ জমা দিয়েছে এই গ্রুপ। জাতীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থায় ব্যর্থতার অভিযোগে এ জাতীয় আইনি ব্যবস্থা এটাই প্রথম। এ খবর দিয়েছে অনলাইন গার্ডিয়ান। এতে বলা হয়, গত জুলাই মাসে পার্লামেন্টের ইন্টেলিজেন্স এন্ড সিকিউরিটি কমিটি (আইএসসি) রাশিয়া ইস্যুতে একটি রিপোর্ট প্রকাশ করে। এতে বলা হয়, ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত ব্রেক্সিট বিষয়ক গণভোটে ক্রেমলিন হস্তক্ষেপ করেছিল বলে অভিযোগ আছে।
কিন্তু দেখা যায় এ ঘটনায় সরকার বা তার কোনো গোয়েন্দা সার্ভিস তদন্ত করতে ব্যর্থ হয়েছে। ডাউনিং স্ট্রিটকে এ ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত করার জন্য আহ্বান জানিয়েছিল ডাউনিং স্ট্রিটের কাছে। একই সঙ্গে ভবিষ্যতে যাতে কোনো বিদেশি রাষ্ট্র হস্তক্ষেপ করতে না পারে সে জন্য একটি আইনগত কাঠামো প্রতিষ্ঠার সুপারিশ করা হয়েছিল। কিন্তু এসব সুপারিশে কান দেয়নি প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন ১০ ডাউনিং স্ট্রিট। তারা উল্টো বলেছে, সফলতার সঙ্গে বৃটেনে বিঘœ ঘটাতে মস্কো সফল হয়েছে এমন কোনো প্রমাণ নেই।
এখন ওইসব পার্লামেন্টারিয়ানের গ্রুপ এ বিষয়ে বিচার বিভাগীয় পর্যালোচনা দাবি করেছেন। তারা যুক্তি দেখিয়েছেন যে, সংবিধানের তৃতীয় অনুচ্ছেদের অধীনে যে বাধ্যবাধকতা আছে তা মানতে নিষ্ক্রিয়তা দেখিয়েছে সরকার। এর ফলে একটি নতুন নির্বাচন হওয়ার নিয়ম রয়েছে। হাইকোর্টে করা ওই আইনি অভিযোগে বরিস জনসনকে বিবাদী হিসেবে দেখানো হয়েছে। এই গ্রুপের এমন অবস্থানে সমর্থন রয়েছে ২০১০ থেকে ২০১২ সালে পর্যন্ত সাবেক প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক সাবেক এক নম্বর উপদেষ্টা লর্ড পিটার রিকেটস। তিনি জয়েন্ট ইন্টেলিজেন্স কমিটিরও সাবেক চেয়ার ছিলেন।
সাক্ষী হিসেবে রিকেটস বলেছেন, ব্রেক্সিট ভোট নিয়ে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের বিষয়ে কোনো তথ্যপ্রমাণ চায়নি সরকার- এতে তিনি খুব বিস্মিত হয়েছেন। তিনি আরো বলেন, রাশিয়ার অতীতের এই হস্তক্ষেপের ফলে ভবিষ্যত নির্বাচনগুলো ঝুঁকিতে পড়তে পারে। এ বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে আমি বুঝতে পারছি না, সরকার কেন এ অভিযোগ তদন্ত করে দেখছে না। রিকেটস মনে করেন, অভিযোগের বিষয়ে বিবেচ্য ও ক্রমবর্ধমান প্রমাণ আছে। রাশিয়া ২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন এবং ফ্রান্সে ২০১৭ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হস্তক্ষেপে সক্রিয় ছিল। বৃটেনের নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো জাতীয় নিরাপত্তা। এর মর্যাদাকে সমুন্নত রাখতে হবে।
বরিস জনসনের বিরুদ্ধে অভিযোগকারীদের মধ্যে রয়েছেন লিবারেল ডেমোক্রেট দলের লর্ড স্ট্রাসবার্গার, ক্রস-বেঞ্চার ব্যারোনেস হুইটক্রফট, লেবার দলের বেন ব্রাডশ, ক্রিস ব্রায়ান্ট, গ্রিন দলের এমপি লুকাস, এসএনপির পররাষ্ট্র বিষয়ক মুখপাত্র  অ্যালিন স্মিথ প্রমুখ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
ঊর্মি
২৯ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৯:৪০

হাইকোর্ট মামলাটি গ্রহণও করলো !!!

সুলতান
২৯ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৮:১৪

রাশিয়া যদি ব্রিটেনের নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করে থাকে তবে ধন্যবাদ রাশিয়াকে, বাকি সবই মহান আল্লাহ্ ভাল জানেন

অন্যান্য খবর