× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৯ নভেম্বর ২০২০, রবিবার

সিনেমা-নাটকে কবুল উচ্চারণে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে নোটিশ

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ২৯ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৭:০৭

সিনেমা-নাটকে বিয়ের দৃশ্যে কবুল শব্দ উচ্চারণের ওপর নিষেধাজ্ঞা চেয়ে আইনি নোটিশ পাঠানো হয়েছে। সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. মাহমুদুল হাসান এ নোটিশ পাঠিয়েছেন। তথ্য, আইন ও ধর্ম সচিব এবং বাংলাদেশ ফিল্ম সেন্সর বোর্ডকে (বিএফসিবি) এ নোটিশ দেয়া হয়েছে। নোটিশ পাওয়ার ৩ দিনের মধ্যে ‘কবুল’ শব্দ উচ্চারণের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে। অন্যথায় হাইকোর্টে রিট আবেদন দাখিল করা হবে বলে নোটিশে বলা হয়েছে।

আইনজীবী মো. মাহমুদুল হাসান বলেন, বাংলাদেশে বিভিন্ন সিনেমা, নাটকে বিবাহের দৃশ্যায়নে মুসলিম অভিনেতা ও অভিনেত্রীরা বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা পূরণসহ ‘কবুল’ শব্দ উচ্চারণ করে থাকেন। এর কারণে উক্ত মুসলিম আইন (শরীয়ত) অনুযায়ী অভিনেতা ও অভিনেত্রীরা স্বামী-স্ত্রী হিসেবে গণ্য হবেন। এখানে অভিনয়ের যুক্তি দেখিয়ে এই বিয়েকে অস্বীকার করা যাবে না। এজন্যই সিনেমা বা নাটকে বিয়ের দৃশ্যে ‘কবুল’ শব্দ উচ্চারণ বন্ধ হওয়া প্রয়োজন।
নোটিশে আরো বলা হয়, বিয়ে এবং বিয়ে রেজিস্ট্রেশন দুটোই পৃথক বিষয়।
মুসলিম নারী ও পুরুষের মধ্যে বিবাহ অনুষ্ঠিত হয় মুসলিম আইন (শরীয়ত) অনুযায়ী। অপরদিকে বিয়ে অনুষ্ঠিত হওয়ার সর্বোচ্চ ৩০ দিনের মধ্যে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে মুসলিম ম্যারেজ অ্যান্ড ডিভোর্স (রেজিস্ট্রেশন অ্যাক্ট ১৯৭৪) আইন অনুযায়ী। এক্ষেত্রে বিয়ে রেজিস্ট্রেশন না করা অপরাধ হলেও মুসলিম আইন অনুযায়ী বিয়ে  বৈধ থাকবে।
বাংলাদেশে প্রচলিত ১৯৭৩ সালের মুসলিম আইনের ধারা ২ অনুযায়ী বিবাহ, তালাক, ভরণপোষণ, মোহরানা প্রভৃতি ক্ষেত্রে পক্ষগণ যদি মুসলিম হয় সেক্ষেত্রে উক্ত বিষয়গুলোতে মুসলিম আইন (শরীয়ত) প্রযোজ্য হবে। সুতরাং মুসলিম নারী ও পুরুষ উপরোক্ত আনুষ্ঠানিকতা পূরণ করলেই তারা স্বামী-স্ত্রী হিসেবে গণ্য হবে। আর মুসলিম ম্যারেজ অ্যান্ড ডিভোর্স (রেজিস্ট্রেশন অ্যাক্ট ১৯৭৪)’ এর ধারা ৩ অনুযায়ী, মুসলিম নারী-পুরুষের মধ্যে বিবাহ মুসলিম আইন অনুযায়ী হবে। উক্ত আইনের ধারা ৫ অনুযায়ী বিবাহ সম্পাদনের সর্বোচ্চ ৩০ দিনের মধ্যে তা রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। তবে যদি নিকাহ রেজিস্ট্রার (কাজী) যদি বিয়েতে উপস্থিত থাকেন তবে তিনি বিবাহের অনুষ্ঠানের সময়ই বিয়ের রেজিস্ট্রেশন করবেন। এ ছাড়া কেউ যদি বিয়ের রেজিস্ট্রেশন না করে তবে তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Apu ‍
১ নভেম্বর ২০২০, রবিবার, ১০:৫৪

নাটক, সিনেমায়তো মৌখিকভাবে তালাকের দৃশ্যও থাকে। সেক্ষেত্রে নিজের ভূল বুঝতে পেরে আবার স্ত্রীকে ফিরিয়ে আরনার দৃশ্যও চলমান থাকে। েএই আইন কার্যকর হলে তবে কি অন্যের সাথে হিল্লা বিবাহও করাতে হবে? এ ক্ষেত্রে কার সাথে হিল্লা বিবাহ হবে? কে দায়িত্ব নিয়ে চরিত্রে অভিনয়কারীদের এসব ভূমিকা পালন করবে?

Tushar
৩১ অক্টোবর ২০২০, শনিবার, ১১:২১

জনাব এন ইসলাম! ইসলামের হিতাকাঙ্ক্ষীরা ইসলাম নিয়ে ছেলেখেলা অবশ্যই পছন্দ করবেন না। উনার কথা পারলে যুক্তি দিয়ে ঠেকান দেখি!

এন ইসলাম
৩০ অক্টোবর ২০২০, শুক্রবার, ১১:১৫

উকিল সাহেবের ইসলামী ফতোয়া দেয়ার যোগ্যতা কতটুকু আছে, সেটা আগে দেখা দরকার । যোগ্যতা না থাকলে তিনি নিজেই ইসলামকে অবমাননা করলেন । ইসলামের হিতাকাঙ্খীরা কথায় কথায় ইসলামকে নিয়ে টানাটানি করেননা ।

Amir
৩০ অক্টোবর ২০২০, শুক্রবার, ১০:১৬

নাই কাজ, চিড়া ভাজ !এমনই আর কি।

প্রিন্স
৩০ অক্টোবর ২০২০, শুক্রবার, ৯:৩৮

ওখানে বিয়ের শর্ত পুরণ হয় না । তাই বিয়ে হয়ে যায়না

Munir Hossain
২৯ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১১:৫৭

দেরীতে হলেও উদ্যোগ টা খুবই ভাল

Adv.N.I.Bhuiyan
২৯ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১১:৫৪

ফালতু ও লোক হাসানি বলেই মনে হচ্ছে তাহলে সিনেমায় আদালতে জেল ফাসী দেয়াহলে তার কি বাস্তবে জেলে যেতে হবে , যে অভিনেতাকে খুন করা হয় বা মারা যায় তার কি আর বাস্তব জিবন থাকবে না? বিজ্ঞ আইনজিবি কি সিনেমা সম্পৃক্ত আইনসমুহ পড়েচেন? তাছাড়া সিনেমা নাটক শুরুর পূর্বে ডিসক্লেইমার সংক্রান্ত একটি ঘোষনা প্রচার করা হয় সেটিও কি নজরে পড়েনি আরো জানুন দয়া করে

Shahid
২৯ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১০:১৯

চরিত্রে স্বামী-স্ত্রীর অভিনয় থাকে। তারা কী বাস্তবে স্বামী-স্ত্রী হয়ে যাবে? ছেলে-মেয়ে, চাচা-জেঠা সব?

Sayed Murrad
২৯ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৮:১২

ভাল চিন্তা

সুলতান
২৯ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৭:৫৯

মাশ আল্লাহ্, আল্লাহ্ হু আকবর। আল্লাহ্রর আইনকে বাস্তবায়িত করার জন্য। ঈমানদার আইনজীবীকে মহান আল্লাহ্ হেফাজত করুন, ও আল্লাহ্রর শান্তি বর্ষিত হউক এই ঈমানদার আইনজীবীর, আমিন আমিন আমিন। লা-ইলাহা ইল্লালা মোহাম্মদ রাসুল আল্লাহ্। আল্লাহ্ হু আকবর

Mnk
২৯ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৬:৩৮

Very good

অন্যান্য খবর