× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৭ নভেম্বর ২০২০, শুক্রবার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নেতা তৈরীর কারিগর আমানুল হক সেন্টু আর নেই

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে | ৩০ অক্টোবর ২০২০, শুক্রবার, ৭:৩৫

ব্রাহ্মণবাড়িয়া আওয়ামী লীগের আলোচিত নেতা আমানুল হক সেন্টু আর নেই। শুক্রবার ভোররাতে শহরের ফুলবাড়িয়ায় নিজ বাসভবনে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। তার ডায়াবেটিস নিল (হাইপু) হয়ে গিয়েছিলো। এছাড়াও নানা রোগে আক্রান্ত ছিলেন তিনি। আওয়ামী লীগের দু:সময়ের দাপুটে নেতা, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক আমানুল হক সেন্টুর মৃত্যুর খবরে সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। শত শত শোকার্ত মানুষ তার বাসায় ভিড় জমান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৬৮ বছর। শহরের টেংকেরপাড় মসজিদে জুমার নামাজের পর তার প্রথম নামাজে অনুষ্ঠিত হয়।
এখানে তাকে রাষ্ট্রীয় সম্মান জানানো হয়। জানাযার পূর্বে বক্তৃতা করেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শফিকুল আলম এমএসসি, সাবেক সচিব মিজানুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার, সাবেক পৌর মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো: হেলাল উদ্দিন,সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফিরোজুর রহমান ওলিও,জেলা বিএনপি’র সভাপতি হাফিজুর রহমান মোল্লা কচি, সাধারণ সম্পাদক জহিরুল হক খোকন, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল বারী চেীধুরী ও মাঈন উদ্দিন মঈন, সাবেক ছাত্রনেতা কামরুজ্জামান আনসারী প্রমুখ। আমানুল হক সেন্টু ১৯৬৮ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া মহকুমা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক ছিলেন। এরপর ১৯৭৮ সালে মহকুমা আওয়ামী লীগের সমাজ কল্যাণ সম্পাদক হন। পরবর্তীতে জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ  সম্পাদক,সহ-সভাপতি এবং সর্বশেষ জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। দলের নেকাকর্মীরা জানান, সেন্টু ছিলেন দলের দু:সময়ের কান্ডারি। আজকে যারা দলের বিভিন্ন পর্যায়ে নেতৃত্ব দিচ্ছেন তারা অনেকেই তার সৃষ্টি। নেতা তৈরীর কারিগর ছিলেন তিনি। তবে গত ১০ বছর ধরে কোনঠাসা ছিলেন সেন্টু। বাদ আছর তার দ্বিতীয় দফা নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয় শহরতলীর বিজেশ্বর গ্রামে। সেখানে মায়ের কবরের পাশে তাকে দাফন করা হয়। মৃত্যৃকালে তিনি স্ত্রী,২মেয়ে ও ৩ ছেলে রেখে গেছেন। আমানুল হক সেন্টুর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ও সদর সংসদ সদস্য র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী, সাবেক মুক্তিযোদ্ধ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী, জেলার বাঞ্ছারামপুর থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য ক্যাপ্টেন অব.এবিএম তাজুল ইসলাম, নবীনগর থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য এবাদুল করিম বুলবুল, নাসিরনগর থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য বিএম ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
লিউ।
৩১ অক্টোবর ২০২০, শনিবার, ৬:২৯

খুব স্নেহ করতেন আমাকে। মহান আল্লাহ পাক উনাকে জান্নাতুন ফেরদৌস দান করেন এ-ই দোয়া ই কামনা করছি। আমিন।

অন্যান্য খবর