× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৫ জানুয়ারি ২০২১, সোমবার
চলন্ত অটোরিকশায়

গৃহবধূকে ধর্ষণচেষ্টা

বাংলারজমিন

ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি
২৫ নভেম্বর ২০২০, বুধবার

নীলফামারীর ডোমারে চলন্ত অটোরিকশায় গৃহবধূকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে চালকসহ দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার রাত সাড়ে ১১টায় ডোমার-আমবাড়ী সড়কের ভেলেঙ্গার ডারা এলাকা  থেকে তাদেরকে আটক করা হয়। রাতেই ওই গৃহবধূ বাদী হয়ে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ এনে একটি মামলা দায়ের করেন। মঙ্গলবার দুপুরে তাদের আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- জোড়াবাড়ী ইউনিয়নের মফিজপাড়া এলাকার অটোরিকশা চালক কামাল ইসলাম (২০) ও একই এলাকার তার সহযোগী ইউনুস আলী (৪৮)।
মামলা সূত্রে জানা গেছে, সোমবার বিকাল চারটায় ওই গৃহবধূ চিলাহাটি মুন্সিপাড়া এলাকার শ্বশুরবাড়ি থেকে বাবার বাড়ি নওগাঁ যাওয়ার উদ্দেশ্যে অটোরিকশায় ডোমার রেলস্টেশনে আসে। শান্তাহার যাওয়ার ট্রেনের খোঁজ নেয়ার জন্য গৃহবধূ অটোচালক কালামকে স্টেশনে খোঁজ নিতে বলে। অটোচালক রাত সাড়ে আটটায় শান্তাহারের ট্রেন আছে বলে তাকে জানায়। সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় ওই গৃহবধূ টিকিট কাউন্টারে শান্তাহারের একটি টিকিট চাইলে, শান্তাহারের কোনো ট্রেন নাই বলে টিকিট কাউন্টার থেকে জানানো হয়।
গৃহবধূ সরল মনে ওই অটোরিকশায় শ্বশুরবাড়ি ফিরছিল। অটোচালক ইতিমধ্যে তার সহযোগী ইউনুসকে নিয়ে ডোমার-আমাবাড়ীর অন্ধকার নির্জন রাস্তা দিয়ে চিলাহাটি রওনা হয়। কিছুদূর যাওয়ার পর অন্ধকার একটি স্থানে অটো থেকে টেনে নামিয়ে একটি ক্ষেতে গৃহবধূকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। গৃহবধূ তাদের অনৈতিক প্রস্তাবে রাজি হয়ে কৌশলে তাদেরকে আবার অটোতে নিয়ে আসে। কিছুদূর যাওয়ার পর ভেলেঙ্গার ডারা এলাকার রাস্তার পাশে একটি দোকানে কিছু মানুষ দেখতে পেয়ে গৃহবধূ অটো থেকে লাফ দিয়ে চিৎকার করে। এ সময় এলাকাবাসী অটোসহ তাদের আটক করে পুলিশে খবর দেয়।
পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদেরকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসে। রাতেই গৃহবধূ বাদী হয়ে ডোমার থানায় একটি মামলা করেন।
 ডোমার থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজার রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে আসামিদের ধরে নিয়ে আসি। মঙ্গলবার দুপুরে তাদের আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলেও তিনি জানিয়েছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর