× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৭ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার

অপচিকিৎসায় বন্দরে মা ও নবজাতকের মৃত্যু

বাংলারজমিন

বন্দর (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি
২৫ নভেম্বর ২০২০, বুধবার

বন্দরে এক হাতুড়ে ডাক্তারের  অপচিকিৎসায় এক মা ও নবজাতক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। গত সোমবার  পূর্ব কেওঢালা গ্রামের আব্দুল খালেক মিয়ার ভাড়াটিয়া বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। নিহত নারীর নাম শিখা আক্তার (২৭)। স্থানীয় ফার্মেসিতে ওষুধ বিক্রেতা আব্দুর রহমান প্রসব ব্যথার  ইনজেকশন পুশ করার কিছুক্ষণের মধ্যে শিখা আক্তারের সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর মা ও নবজাতক শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে গ্রামবাসীর অভিযোগ।  
গ্রামবাসী জানান, জামালপুর জেলা সদরের  মো. শুক্কুর আলীর মেয়ে শিখা আক্তার উপজেলা মদনপুর ইউপির পূর্ব কেওঢালা আব্দুল খালেক মিয়ার বাড়িতে থেকে পার্শ্ববর্তী জাঙ্গাল গ্রামে অবস্থিত এসকিউ ক্যাবলস ফ্যাক্টরির শ্রমিক। সোমবার সকাল ১০টার দিকে শিখা আক্তারের প্রসব ব্যথা শুরু হয়। এ সময় শিখার পরিবার বাড়ির পার্শ্বে আব্দুর রহমান ফার্মেসিতে গিয়ে নিয়ে যায়। হাতুড়ি ডাক্তার আব্দুর রহমান প্রসূতি শিখা বেগমকে বাড়িতে গিয়ে একটি  ইনজেকশন পুশ করে।
ইনজেকশন পুশ করার কিছুক্ষণের মধ্যে শিখা আক্তারের সন্তান প্রসব করলেও মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে মা শিখা আক্তার ও ভূমিষ্ঠ নবজাতক শিশু। এ ঘটনার পর নিহতের পরিবারকে থানায় অভিযোগ করতে বাধা দিয়ে  জোরপূর্বক মীমাংসার জন্য চাপ সৃষ্টি করে আসছে স্থানীয় মাতবর আবুল হোসেন, কবির  হোসেন ও কথিত এক সাংবাদিক। তাদের হুমকিতে ভয়ে থানায় মামলা করতে পারছেনা  নিহত শিখা আক্তারের পরিবার। বন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শুক্লা সরকার বলেন, আমি এ বিষয়ে আগে কোনো অভিযোগ পাইনি। এখন আপনাদের মাধ্যমে জানতে পারলাম আমি ব্যবস্থা নেবো। বন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মো. ফখরুদ্দীন ভূঁইয়া জানান, ভুল চিকিৎসায় মা ও নবজাতক শিশু নিহতের ঘটনায় এখনো কেউ অভিযোগ দায়ের করেনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর