× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৪ জানুয়ারি ২০২১, রবিবার

চট্টগ্রামে ব্যাংক এশিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীর মামলা

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে
২৮ নভেম্বর ২০২০, শনিবার

প্রায় ৩০০ কোটি টাকা পাওনা দাবি করে ব্যাংক এশিয়ার বিরুদ্ধে মামলা করেছেন চট্টগ্রামের গার্মেন্টস ব্যবসায়ী মোহাম্মদ ইলিয়াছ। চট্টগ্রামের যুগ্ম জেলা জজ আদালতে দায়ের করা এ মামলায় অডিটর নিয়োগের মাধ্যমে তার পাওনা নিষ্পত্তির আবেদন জানানো হয়েছে। আদালত হিসাব নিষ্পত্তিতে কেন অডিটর নিয়োগ করা হবে না- সে মর্মে উপযুক্ত প্রতিনিধির মাধ্যমে প্রতিবেদন দাখিল বা সাক্ষী হাজিরের জন্য বলা হয়েছে। গতকাল এ তথ্য জানান মোহাম্মদ ইলিয়াছ। মামলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ব্যাংকে লোকাল এলসি খোলার মাধ্যমে বিভিন্ন ক্রেতা এক্সেসরিজ কিনেন। এলসি ওপেনিং ব্যাংকগুলোকে নির্ধারিত সময়ে পেমেন্ট দেননি সংশ্লিষ্ট ব্যাংক বা ক্রেতা। অথচ সেই টাকার সুদ ও জরিমানা আমার হিসাব থেকে কেটে নেয়া হয়েছে। একজনের কাছে পাওনা টাকা আরেকজনের কাছ থেকে কেটে নিয়ে বা অ্যাডজাস্ট করে উল্টো অনেক ব্যাংক আমাকেই খেলাপি বানিয়ে বিভিন্ন সময়ে মামলা-মোকদ্দমা করে।
একজনের কাছ থেকে পাওনা টাকা আরেকজনের কাছ থেকে কেটে নেয়া, লোকাল এলসি’র বিপরীতে ডলারে যেসব পেমেন্ট হয় সেই পেমেন্টের ক্ষেত্রে ডলার বেচাকেনার ব্যবসা করা, এক্সেস গেইনের নামে গলাকাটা টাকা আদায় করাসহ ব্যাংকের নানা জটিল সমীকরণে সর্বস্বান্ত হয়ে যাচ্ছেন অনেক ব্যবসায়ী।
এভাবে ২০ কোটি টাকার পুঁজির ব্যাংক ২০ বছরে ৪ হাজার কোটি টাকার মালিক হচ্ছে। অথচ সাধারণ ব্যবসায়ী যারা সরকারকে ট্যাক্স, ভ্যাট ও আয়কর দিয়ে ব্যবসা করছে, দেশে মিল-কারখানা ইন্ডাস্ট্রি গড়ে তুলছে, কর্মসংস্থান সৃষ্টি করছে তাদের অনেকেই হয়ে যাচ্ছেন পুঁজিশূন্য। ব্যাংকের কাছে জিম্মি হয়ে থাকতে হচ্ছে। ব্যবসা গুটিয়ে নিতে হচ্ছে।
ব্যাংক এশিয়ার একটি ঋণের উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, ৪৭ কোটি টাকার ঋণ তিন বছরে ১২০ কোটি টাকা হয়েছে। এজন্য ব্যাংক তার বিরুদ্ধে মামলা করেছে। অথচ যে ব্যবসায়ীর কাছ থেকে একটি ব্যাংক শত কোটি টাকার ব্যবসা করেছে সেই একই ব্যাংক মাত্র ২০ কোটি টাকার জন্য একই ব্যবসায়ীর বাড়িতে গিয়ে মাইকিং করার মতো ঘটনাও ঘটছে। এগুলোর অবসান হওয়া দরকার। সূত্র জানায়, অন্যায়ভাবে বিভিন্ন তফসিলি ব্যাংকের এলসি পেমেন্ট ডিলে বা ওভার ডিউজ হওয়ার বিপরীতে কোটি কোটি টাকা সুদ ও জরিমানা আদায়ের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে অভিযোগ করেন মোহাম্মদ ইলিয়াছ। কেটে নেয়া টাকা ফেরত চান। এতে কাজ না হওয়ায় তিনি উচ্চ আদালতে রিট করেন। রিটের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ ব্যাংক মোহাম্মদ ইলিয়াছকে কোন ব্যাংক কোন এলসি’র বিপরীতে কতো টাকা কেটে রেখেছে বা সুদ ও জরিমানা আদায় করেছে তার লিখিত বিবরণ দিতে চিঠি দেয়। কিন্তু ইলিয়াছের বক্তব্য হচ্ছে- যেসব ব্যাংকে তার প্রতিষ্ঠানের পণ্য পেতে এলসি খোলা হয়েছে এবং কোন এলসি’র পেমেন্ট কতোদিন দেরিতে দেয়া হয়েছে, কতো টাকা সুদ বা জরিমানা আদায় করা হয়েছে তা সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের সফটওয়্যারে বা মডিউলেই সংরক্ষিত আছে।
১০ বছরে যদি ৩০ হাজার এলসি হয় সমপরিমাণ এলসি’র বিপরীতে ৩০ হাজার চিঠি দেয়া কোনোভাবেই সম্ভব নয়। তাই তিনি অডিটর নিয়োগের মাধ্যমে পাওনা নিষ্পত্তির জন্য হাইকোর্টে যান। হাইকোর্ট তাকে নিম্ন আদালতে যাওয়ার আদেশ দেন। এর পরিপ্রেক্ষিতেই মূলত চট্টগ্রামের দ্বিতীয় যুগ্ম জেলা জজ আদালতে ২০১৯ সালে এসব মামলা- আদার ক্লাস স্যুট নম্বর: ৪০৬, ৪০৭ ও ৪০৮ দায়ের করেন তিনি ও তার প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা। এ মামলায় ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে শোকজ করেন আদালত।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর