× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৮ জানুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার

মাছ চাষের অপেক্ষায় ১২ হাজার মৎস্যজীবী

বাংলারজমিন

চলনবিল (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি
২৯ নভেম্বর ২০২০, রবিবার

নিমগাছি মৎস্য চাষ প্রকল্পের অধীনে সিরাজগঞ্জ জেলার রায়গঞ্জ ও তাড়াশ, পাবনা জেলার চাটমোহর ও ভাঙ্গুড়া উপজেলার ১ হাজার ৬৬৭ একর আয়তনের ৭৮৩টি পুকুর ও দীঘি সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশনের একটি বেঞ্চ জি,টি রোলন ফিশারিজ লিমিটেড নামে প্রাইভেট কোম্পানিকে সরকারি জলমহাল ব্যবস্থাপনা নীতিমালা-২০০৯ মোতাবেক রায় প্রদান করেন। এদিকে ওই সব পুকুর ও দীঘিতে মাছ চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করার অপেক্ষায় রয়েছেন রায়গঞ্জ-তাড়াশ কেন্দ্রীয় মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেডের ১২ হাজার প্রান্তিক মৎস্য চাষি। সূত্র মোতাবেক জি,টি রোলন ফিশারিজ লিমিটেড নামে একটি প্রাইভেট কোম্পানি, কোম্পানি আইন ১৯৯৪ ধারা মোতাবেক বাংলাদেশ জয়েন্ট স্টক এবং ফার্মসের রেজিস্ট্রারে নিবন্ধিত হয়। যার নিবন্ধন নং ১৩২১২৭/২০১৬, তারিখ ৩১.০৭.২০১৬। ওই কোম্পানি সরকারি জলমহাল ব্যবস্থাপনা নীতি’ ২০০৯-এর ২৮ অনুচ্ছেদে অনুযায়ী পাবলিক প্রাইভেট পার্টনাশিপ (পিপিপি) মোতাবেক মৎস্যজীবীদের জীবনমান উন্নয়নের জন্য ৭৮৩টি পুকুর ও দীঘি ইজারা নেয়ার লক্ষ্যে সংবিধানের অনুচ্ছেদ ১০২নং আর্টিকেলের অধীনে গত ০৯.১০.২০১৭ তারিখে সুপ্রিম কোর্টের মহামান্য হাই কোর্ট বিভাগে একটি রিট পিটিশন দায়ের করেন। যাহার রিট পিটিশন নং ১৩৬১৮/২০১৭। ওই রিটের প্রেক্ষিতে উচ্চ আদালত ষাট দিনের মধ্যে ভূমি মন্ত্রণালয়ে নিমগাছী মৎস্য চাষ প্রকল্পটি হস্তান্তরের নির্দেশ ও রুল জারি করেন। কিন্তু ভূমি মন্ত্রণালয় প্রকল্পটি হস্তান্তরের ব্যাপারে তেমন কোনো উদ্যোগ নেয়নি।
ফলে জি,টি রোলন ফিশারিজ লিমিটেড প্রাইভেট কোম্পানির ব্যবস্থাপক মামলাটির রায় বাস্তবায়নের জন্য বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট হাইকোর্ট ডিভিশনে  রিট পিটিশন দায়ের করেন। ওই পিটিশনের ওপর দীর্ঘ সময় ধরে শুনানি হয়। গত ২৩.০৯.২০২০ তারিখে হাইকোর্ট বিভাগের বিজ্ঞ বিচারপতি নাইমা হায়দার ও রাজিক আল-জলিলের বেঞ্চে ১২ হাজার মৎস্যজীবীদের জীবনমান উন্নয়নের লক্ষে সরকারী জলমহাল ব্যবস্থাপনা নীতি’২০০৯এর ২৮ অনুচ্ছেদের আলোকে প্রকল্পটি হস্তান্তরের ব্যাপারে আইনের কোনো বাধা না থাকায় ইজারা প্রদান করা যেতে পারে মর্মে ভূমি মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ প্রদান করেন। জি,টি রোলন ফিশারিজ লিমিটেড প্রাইভেট কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. গোউস উদ্দীন জানিয়েছেন, তাদের রিট পিটিশনের প্রেক্ষিতে মহামান্য হাইকোর্ট ওই রায় প্রদান করেন। এ বিষয়ে সিরাজগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) চৌধুরী মোহাম্মদ গোলাম রাব্বী বলেন, আদালতের নির্দেশনা পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
M Milon Talukder
২৯ নভেম্বর ২০২০, রবিবার, ৯:১১

আমার মতামত বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা গরিবের বন্ধু তরুনদের মা যে নীতিমালা দিয়েছেন এবং মহামান্য হাইকোর্ট যে রায় দিয়েছেন এর বাস্তবায়ন হলে অবশ্যই মৎস্যজীবিদের জীবনমানের উন্নতি হবে এবং এ পর্যন্ত যতগুলো প্রতিষ্ঠান বিগতদিনে যা আয় করেছে তার চেয়ে তিন গুন আয় মৎস্যজীবিদের মাধ্যমে হবে, কারন এখানে কোন দূনীতির আখরা থাকবেনা । দেশকে দেশের মানুষকে উন্নয়নের শিখরে পৌছে দেওয়ার সিদ্ধান্ত সফল হোক গরিব দুখী মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন হোক এ কামনাই করি।

অন্যান্য খবর