× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৪ জানুয়ারি ২০২১, রবিবার

উন্নয়ন দেখে একটি মহল ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার
৫ ডিসেম্বর ২০২০, শনিবার

বর্তমান সরকারের ঈর্ষণীয় উন্নয়ন দেখে একটি মহল দেশবিরোধী বিভিন্নমুখী ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, সারা দেশে আজ যে ঈর্ষণীয় উন্নয়ন হয়েছে তাতে প্রতিপক্ষ কোনো ধরনের ধন্যবাদ জানায়নি, উল্টো তারা সমালোচনা করে যাচ্ছে। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগ উন্নয়ন এবং সততা দিয়েই দেশের জনগণের মন জয় করে নিয়েছে। আর এতেই বিএনপি’র সহ্য হয় না। তাই তারা দেশবিরোধী বিভিন্নমুখী ষড়যন্ত্র চলাচ্ছে। গতকাল ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপ-কমিটি আয়োজিত সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের মাঝে মাস্ক বিতরণ অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন। সংসদ ভবন এলাকায় সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে সংযুক্ত হন তিনি। ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ কখনো গায়ে পড়ে ঝগড়া করে না, তবে কেউ আক্রমণ করলে পাল্টা জবাব দিতে প্রস্তুত রয়েছে।
রোহিঙ্গা ইস্যুতে তিনি বলেন, মানবিক কারণে প্রায় ১১ লাখের অধিক রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দেয়া হয়েছে, যেখানে প্রায় ৫ লাখ দেশের নাগরিকের বসবাস। রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তরের বিষয়ে আন্তর্জাতিক সমপ্রদায়ের কেউ কেউ সমালোচনা করে যাচ্ছেন জানিয়ে তিনি বলেন, এসব রোহিঙ্গার জন্য দেশের অর্থনৈতিক, সামাজিক, পর্যটন ও পরিবেশের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে, তাই সরকার তাদেরকে ভাসানচরে স্থানান্তর করার প্রক্রিয়া শুরু করছে। ওবায়দুল কাদের প্রশ্ন রেখে বলেন, আন্তর্জাতিক সমপ্রদায়ের পক্ষ থেকে প্রশংসা ও লিপ সার্ভিস ছাড়া কোনো ধরনের সহযোগিতা কি পেয়েছি? সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী আশা প্রকাশ করে বলেন, ২০২১ সালের প্রথম মাসেই করোনার ভ্যাকসিন পাওয়ার সম্ভাবনা খুব বেশি। তবে এ নিয়ে আত্মতুষ্টির কোনো সুযোগ নেই, ভ্যাকসিন আসার আগ পর্যন্ত সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে এবং বাধ্যতামূলক মাস্ক পরিধান করতে হবে। বিগত সময়ে স্থানীয় নির্বাচনে নৌকার বিপক্ষে বিদ্রোহীদের আর মনোয়ন দেয়া হবে না জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, শুধু বিদ্রোহীরা নয়, বিদ্রোহীদের পেছনে যারা মদতদাতা, তিনি মন্ত্রী হোন, এমপি হোন, অথবা দলের কোনো বড় নেতা হোন, কারও ব্যাপারে কোনো ছাড় নেই। তাদেরকে শাস্তির আওতায় আসতে হবে। কাজেই বিদ্রোহ করে পার পাওয়ার কোনো উপায় নেই। লুকিয়ে-চাপিয়ে কেউ বিদ্রোহী হয়েও যদি নমিনেশন চান, সেটি কিন্তু আমরা অনুসন্ধান করি এবং এটি আমরা নজরদারিতে রেখেছি। কারা কারা বিদ্রোহ করেও প্রার্থিতার জন্য আবারও ফরম দিয়েছে বা ফরম জমা করছে, যারা বিদ্রোহ করেছেন অতীতে, পরাজিত অথবা বিজয়ী তাদের ফরম সংগ্রহের কোনো প্রয়োজন নেই। তিনি আরও বলেন, আমরা আগে ভাগেই বলে দিয়েছি, আমাদের সিদ্ধান্ত এ ধরনের কাউকে মনোনয়ন দেয়া হবে না। এ সময় ধানমন্ডিতে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা এবং উপদপ্তর সম্পাদক সায়েম খানসহ আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Aktarujjaman
৪ ডিসেম্বর ২০২০, শুক্রবার, ১০:৫০

উন্নয়ন এর নামে যে,মহা ডাকাতি আর দূর্নীতি হচ্ছে জনগণ ভাল করেই যানে।এই সব মহা দূর্নীতির খবর টিভি তে দেখতে হয়না।জনগণ মোবাইল দিয়ে সব পএিকার খবর দেখতে পারে?

অন্যান্য খবর