× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ৮ আগস্ট ২০২২, সোমবার , ২৪ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১০ মহরম ১৪৪৪ হিঃ

‘‌ছুটি না পেলে স্ত্রী অশান্তি করবে,’‌ আজব আবেদন পুলিশ আধিকারিকের, পেলেন শাস্তিও

রকমারি


১১ ডিসেম্বর ২০২০, শুক্রবার

কাজের জায়গা থেকে ছুটি পেতে অনেকেই নানান বাহানা তৈরি করেন। কেউ বাড়ির লোকের শরীর খারাপ, তো কেউ আবার নিজেরই শারীরিক অসুস্থতার কারণ দেখান। কিন্তু মধ্যপ্রদেশের  এক ট্রাফিক পুলিশ  নিজের শ্যালকের বিয়েতে যাওয়ার জন্য ছুটি চাইতে গিয়ে দেখালেন অদ্ভুত কারণ!‌ যা দেখে ক্ষুব্ধ শীর্ষ আধিকারিকরা উলটে তাঁকেই শাস্তি দিলেন। শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি।
জানা গিয়েছে, গত ৭ ডিসেম্বর নিজের উচ্চপদস্থ আধিকারিকদের কাছে ছুটির দরখাস্ত করেন দিলীপ কুমার আহিরওয়ার নামে ওই ট্রাফিক পুলিশ। জানান, শ্যালকের বিয়েতে যোগ দিতে ১১ ডিসেম্বর থেকে পাঁচদিনের ছুটির প্রয়োজন। আর দরখাস্তের শেষে লেখেন, এই ছুটি না পেলে স্ত্রী ঝামেলা করবে। সংসারে অশান্তি হবে। তাঁর কথায়, ‘‌‘আমার স্ত্রী আমাকে বলে দিয়েছে, তাঁর ভাইয়ের বিয়েতে আমি না গেলে তার পরিণতি খুব খারাপ হবে।‌’‌’‌ আর এই কারণ দেখানোর জন্যই শীর্ষ আধিকারিকরা ওই ট্রাফিক পুলিশের উপর বেজায় ক্ষিপ্ত হন।
এভাবে ছুটির আবেদনের জন্য এরপরই শাস্তি হিসেবে তাঁকে পুলিশ লাইনে বদলি করা হয়।
অপর এক আধিকারিক জানান, আসলে ওই চিঠির কারণে নয়, দিলীপ কুমার নামে ওই ট্রাফিক পুলিশ একদমই কর্তব্যে পরায়ণ নন। সম্প্রতিই তিনি ৫৫ দিনের ছুটি নিয়েছিলেন। সেই ছুটি কাটিয়ে গত ২৮ নভেম্বরই কাজে যোগ দিয়েছিলেন। এছাড়া এর আগে তিনি আরও সাতদিনের ছুটি নিয়েছিলেন। এরপর ফের নতুন করে এই ছুটির আবেদন। এভাবে বারবার ছুটি নেওয়া শৃঙ্খলাভঙ্গের সমান। সেকারণেই তাঁকে ওই শাস্তি দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে দিলীপ কুমারের ওই আবেদনের ছবি সোশ্যাল মিডিয়াতেও ভাইরাল হয়েছে। অনেকে এই নিয়ে মজাও করেছেন।

সূত্র- সংবাদ প্রতিদিন 
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর