× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২ মার্চ ২০২১, মঙ্গলবার

ব্রেক্সিট: ইইউ’র সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে নতুন বছরে নতুন পথচলা বৃটেনের

দেশ বিদেশ

মানবজমিন ডেস্ক
২ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার

ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে বছরের প্রথমদিনে নতুন যুগে পথচলা শুরু করলো বৃটেন। বৃহস্পতিবার দেশটির স্থানীয় সময় রাত ১১ টা থেকে বৃটেন ইইউ’র নিয়ম অনুসরণ বন্ধ করে  দেয়। সেখানে আজ থেকে কার্যকর হবে নতুন চুক্তি। তবে নতুন চুক্তি অনুযায়ী ইইউ’র সঙ্গে ?বৃটেনের ভ্রমণ, বাণিজ্য, অভিবাসন এবং নিরাপত্তা সহযোগিতাসহ অন্যান্য কার্যক্রম চলবে। এ বিষয়ে বৃটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেন, এখন স্বাধীনতা আমাদের হাতে। দীর্ঘ ব্রেক্সিট প্রক্রিয়া  শেষ হলো। এখন থেকে আমরা আমাদের কাজ ভিন্নভাবে এবং আরো ভালোভাবে করতে পারবো বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন তিনি। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি।
২০১৬ সালে ঐতিহাসিক গণভোটে  ব্রেক্সিটের পক্ষে রায় আসার প্রায় সাড়ে তিন বছর পর ২০২০ সালের ৩১শে জানুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে ইইউ থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
তবে উভয়পক্ষ একটি বাণিজ্য চুক্তিতে উপনীত হতে না পারায় গত ১১ মাস ধরে সম্পূর্ণ বিচ্ছেদ আটকে ছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তারা ভবিষ্যৎ অর্থনৈতিক অংশীদারিত্ব এবং বাণিজ্য নিয়ে একটি চুক্তিতে উপনীত হতে সক্ষম হয়। এরপর ২৪শে ডিসেম্বর ইইউ’র ২৭টি সদস্য দেশের রাষ্ট্রপ্রধানরা ইইউ-যুক্তরাজ্য বাণিজ্য চুক্তি সর্বসম্মতিক্রমে অনুমোদন করেন। পরে ইইউ’র শীর্ষ কর্মকর্তারা চুক্তিটি আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাক্ষর করেন। এই নতুন চুক্তি অনুযায়ী বৃটেনে উৎপাদিত পণ্য ইইউ’র আওতাধীন বিভিন্ন দেশের বাজারে শুল্ক-মুক্তভাবে প্রবেশ করার সুযোগ পাবে। অর্থাৎ যুক্তরাজ্য এবং ইইউ’র মধ্যে পণ্য আমদানিতে কোনো কর দিতে হবে না। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, আগের মতো ব্যবসার প্রয়োজনে বা ইইউ’র দেশগুলো ভ্রমণে বৃটেনের নাগরিকদের কাগজপত্র লাগবে না। বরং এখন থেকে তাদের আরো  বেশকিছু কাগজপত্রের প্রয়োজন পড়বে। দেশটিতে ব্যাংকিং এবং অন্যান্য  সেবাখাত কোন নিয়ম অনুসরণ করে চলবে- তা নিয়ে এখনো অনিশ্চিয়তা কাটেনি। উল্লেখ্য, বৃটেনের অর্থনীতিতে এই দু’টি খাতই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এছাড়া বৃটেন এবং স্পেনও একটি চুক্তিতে পৌঁছেছে যেখানে জিব্রাল্টার এবং স্পেনের সীমানা খোলা রাখা হবে।
 জিব্রাল্টারের মুখ্যমন্ত্রী ফ্যাবিয়ান পিকার্ডো বলেছেন, যুক্তরাজ্য এবং ইইউ’র মধ্যে এই চুক্তিটি এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে হওয়া দরকার।
বৃটেন এবং ইইউ’র বিচ্ছিন্ন বিষয়ে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোন বলেন, ফ্রান্স এবং যুক্তরাজ্য এখনো বন্ধু দেশ এবং ভবিষ্যতে বন্ধু হয়েই থাকবে।
ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে প্রায় পাঁচ দশকের সম্পর্ক বৃটেনের। এতদিন ৫০ কোটির বেশি মানুষ বৃটেন ও ইইউয়ের মধ্যে অবাধে চলাচলের সুবিধা ভোগ করতো। কিন্তু গতকাল মধ্যরাতের পর থেকেই তা বন্ধ হয়ে যায়। যুক্তরাজ্যের সঙ্গে ইইউভুক্ত  দেশগুলোর সীমান্তে বসে যায় নতুন তল্লাশি চৌকি, চালু হয়ে যায় নতুন শুল্ক ব্যবস্থা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর