× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, শনিবার

অনলাইন ভ্যাট রিটার্ন দাখিলে টানা পাঁচবার প্রথম কুমিল্লা কমিশনারেট

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, কুমিল্লা থেকে
২০ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার

অনলাইন ভ্যাট রিটার্ন দাখিলে টানা পাঁচবার প্রথম হয়েছে কুমিল্লা কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট। ডিসেম্বর মাসে অনলাইনে রিটার্ন জমা হয়েছে ৯৪ দশমিক ৪১ শতাংশ। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের আওতাধীন ১২টি ভ্যাট কমিশনারেট দপ্তরের মধ্যে কুমিল্লা গত আগস্ট থেকেই টানা ‘প্রথম’ হয়ে আসছে। গত বছরের ১৫ই জুলাই কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট দপ্তর কুমিল্লায় কমিশনার পদে যোগদান করেন কমিশনার মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন চৌধুরী। তার যোগদানের পর কুমিল্লা কমিশনারেট দপ্তর মাঠ পর্যায়ের কর্মীদের সক্রিয় করে এই সাফল্য অর্জন ও অক্ষুণ্ন রেখেছে। কুমিল্লা সদরের রাজস্ব কর্মকর্তা আহম্মদ ছালাউদ্দিন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়।  রাজস্ব কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গত বছরের আগস্ট মাসে রাজস্ব পর্যালোচনা সভায় এনবিআরের চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুর মুনিম মুজিববর্ষে রাজস্ব আদায়ে সকল সূচকে সর্বোচ্চ কৃতিত্ব অর্জনের জন্য সকল কমিশনারেটকে নির্দেশ দেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে সরকারের ডিজিটাল অঙ্গীকার বাস্তবায়নে বিশেষ এজেন্ডা নিয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কাজ করছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের অধীন অনলাইনে ভ্যাট নিবন্ধন ও রিটার্ন দাখিল অন্যতম ডিজিটাল কর্মকাণ্ড।  ডিসেম্বরে রিটার্ন জমা দেয়া প্রতিষ্ঠান ৯৬১২টি।
ম্যানুয়াল ৩৫টি। অনলাইনে ৯০৭৫, মোট রিটার্ন দাখিল ৯১১০, নিবন্ধনের তুলনায় দাখিলপত্র দাখিলের শতকরা হার ৯৪ দশমিক ৭৮ শতাংশ, মোট দাখিল পত্র তুলনায় অনলাইনে দাখিলের শতকরা হার ৯৯ দশমিক ৬২ শতাংশ।
বর্তমান কমিশনার মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন চৌধুরী গত ১৫ই জুলাই যোগদানের এক মাসের মাথায় কুমিল্লা কমিশনারেট অনলাইন রিটার্ন জমায় পঞ্চম স্থান থেকে প্রথম স্থানে উঠে আসে। পরবর্তীকালে এ কমিশনারেটের অনলাইন রিটার্ন দাখিলের চিত্র পাল্টে যায়। গত জুলাইয়ে রিটার্ন দাখিলের হার ছিল ৫১ শতাংশ। বর্তমান কমিশনার গত ১৫ই জুলাই কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রথম জুম সভা করে রিটার্ন জমাকে অগ্রাধিকার ঘোষণা দেন। সভার পরপরই কমিশনার তদারকি শুরু করলেন। এ কমিশনারেটের ছয়টি জেলায় করদাতাদের ফোন, প্রতিষ্ঠানের তদারকি বাড়ানো হয়। ‘রিটার্ন ওয়ানস্টপ কাউন্টার’ গঠন করা হয়। কুমিল্লা ভ্যাট টিম নিরন্তর ও ক্লান্তিহীন কাজ শুরু করে।
এ প্রসঙ্গে কমিশনার মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন চৌধুরী বলেন, সাফল্য অর্জনের চেয়ে ধরে রাখা কঠিন। ‘কুমিল্লার কর্মপ্রবণ এনবিআরের সম্মানও উচ্চকিত করেছে। করোনাকালে কুমিল্লা টিমের জন্য বিষয়টি খুবই চ্যালেঞ্জের ছিল। দলবদ্ধ প্রচেষ্টা, প্রতিযোগিতা এ অভূতপূর্ব সাফল্যের মূল নিয়ামক এবং দেশ প্রেমে উদ্বুদ্ধ কর্মকর্তাদের পরিশ্রম ও সাফল্যের পিপাসা কুমিল্লা কমিশনারেটকে রাজস্ব প্রবৃদ্ধি ও রিটার্ন দাখিলে উপর্যুপরি সাফল্য এনে দিয়েছে। কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট, কুমিল্লা এনবিআরের প্রত্যক্ষ নির্দেশনায় কাজ করে যাচ্ছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর