× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ১ মার্চ ২০২১, সোমবার

৪ শতাধিক হিন্দু রোহিঙ্গার প্রত্যাবাসন চায় মিয়ানমার

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ মাস আগে) জানুয়ারি ২২, ২০২১, শুক্রবার, ৫:১৪ অপরাহ্ন

২০১৭ সালে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মধ্যে চার শতাধিক হিন্দুকে ফিরিয়ে নিতে চায় মিয়ানয়ামার। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র রেডিও ফ্রি এশিয়াকে এ তথ্য জানিয়েছে। গত মঙ্গলবার মিয়ানমার, বাংলাদেশ ও চীনের মধ্যে একটি ভার্চুয়াল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেখানেই বাংলাদেশকে বিষয়টি জানায় মিয়ানমার। দেশটি জানিয়েছে, করোনাভাইরাস মহামারির প্রকোপ কমে এলে প্রত্যাবাসনের প্রথম ধাপে এই হিন্দুরাসহ যাচাইকৃত রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে চায় তারা।

২০১৭ সালে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে দেশটির সেনাবাহিনীর নৃশংস গণহত্যার মুখে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে প্রায় ৭ লাখ ৪০ হাজার রোহিঙ্গা। তারা বর্তমানে কক্সবাজারের ৩৪টি শিবিরে বাস করছে। ২০১৭ সালের শেষ দিকে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের কর্মকর্তারা রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে একমতে পৌঁছান।
সমঝোতা অনুযায়ী ২০১৮ সালেই প্রত্যাবাসন শুরু হওয়ার কথা ছিল। সেসময় মুসলিম রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফিরে যেতে অসম্মতি জানিয়েছিল। তবে মিয়ানমারে থাকা হিন্দু নেতারা দুই দেশকে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া শুরু করার আহবান জানিয়ে যান।

রেডিও ফ্রি এশিয়াকে মিয়ানমার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক অং কো জানিয়েছেন, আমরা যত দ্রুত সম্ভব হিন্দুদের ফিরিয়ে আনতে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছি। তবে শুধু তারাই নয়, যত যাচাইকৃত উদ্বাস্তু রয়েছে তাদের সবাইকেই ফিরিয়ে আনতে অনুরোধ জানানো হয়েছে। ২০১৯ সালে মিয়ানমার জানিয়েছিল, উদ্বাস্তুদের সঙ্গে কক্সবাজারের শিবিরে ৪৪৪ হিন্দু আশ্রয় নিয়েছে। এখন তারা দেশে ফিরতে চায় বলে জানিয়েছেন রাখাইনের হিন্দু নেতারা। তারা তাদের ইচ্ছার কথা বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষকেও জানিয়েছে।

এদিকে ইয়াংগুনভিত্তিক রাখাইন হিন্দু হিউম্যানিটেরিয়ান গ্রুপ রেডিও ফ্রি এশিয়াকে জানিয়েছে, এই প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া হবে সম্মতির ভিত্তিতে। যারা ফিরতে চায় তারা ফিরবে এবং যারা ফিরতে চান না তাদের না ফেরার অধিকার রয়েছে। আমরা শুধু বলতে চাই, তাদের মিয়ানমারে ফেরার সুযোগ উন্মুক্ত করে দেয়া হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Rana
২৯ জানুয়ারি ২০২১, শুক্রবার, ২:৫৪

Bangladesh should make them (Rohingyas) determined to Return their own country in force....

Amir
২৪ জানুয়ারি ২০২১, রবিবার, ১০:৪৮

এই প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া হবে সম্মতির ভিত্তিতে।---জীবন-মরণ সমস্যার সম্মুখীন হয়ে কেউ আশ্রয় প্রার্থনা করলে সুযোগ থাকলে তাকে আশ্রয় দিতে হয়; আমাদের অপারগতা সত্বেও আমরা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছি, এখন মিয়ানমারে তাদের সেই জীবন-মরণ সমস্যা নেই ,তাই তারা ঘরে ফিরে যাবে এটাই স্বাভািক । সম্মতি অসম্মতির ধুয়া তুলে ঠাট্টা তামাশার মাধ্যমে এখানে প্রত্যাবাসনে বিলম্ব করার কোন অবকাশ নেই!

আসাদ
২২ জানুয়ারি ২০২১, শুক্রবার, ২:১২

"সেসময় (২০১৮ সালে) মুসলিম রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফিরে যেতে অসম্মতি জানিয়েছিল।" এ খবরটা মানবজমিন সঠিকভাবে উপস্থাপন করেনি বলে মনে হয়, কারণ রোহিঙ্গারা বলেছিল তাদের নিরাপত্তা, নাগরিকত্ব, এবং মানবিক অধিকার নিশ্চিত না করলে তারা সেখানে ফিরে যাবেনা। আশা করি খবরটা ঠিক ভাবে উপস্থাপন করবেন।

Tuheen
২২ জানুয়ারি ২০২১, শুক্রবার, ১১:২৭

We know there is a conspiracy by India if not why hindu only

Jamshed Patwari
২২ জানুয়ারি ২০২১, শুক্রবার, ১০:০০

ভারত যেহেতু নিরলসভাবে বার্মাকে সমর্থন করে যাচ্ছে তাই বার্মা ভারতের প্রতি কৃতজ্ঞতা স্বরুপ হিন্দুদের ফিরিয়ে নিতে চায়।

sdd
২২ জানুয়ারি ২০২১, শুক্রবার, ৯:৫১

Shahid-কে বলছি, তোমাদের মতো লোকের উস্কানিতে বিপথগামী হয়েই রোহিঙ্গারা দেশ-ছাড়া হয়েছে। তোমার যদি শহীদ হতে ইচ্ছে হয়, মায়ানমার আর্মির সাথে লড়াই করতে পারো, কারো আপত্তি নেই, কিন্তু যেসব রোহিঙ্গা নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে আরাকানে ফিরতে চাইছে, তোমাদের কারণেই তারা সেটি পারছে না। বাংলাদেশ সরকারের উচিত Shahid-জাতীয় লোকদের চিহ্নিত করে রোহিঙ্গাদের সংস্পর্শ থেকে দূরে রাখা।

Shahid
২২ জানুয়ারি ২০২১, শুক্রবার, ৫:৩৯

মুসলিম, ইসলাম এসব সাম্প্রদায়িক! আর অন্যরা অসাম্প্রদায়িক? বার্মার সাথে এত নতজানু কেন? বাংলাদেশে কোটি কোটি মুজাহিদ আছে আরাকান স্বাধীন করার। ডাক দেয়া হোক আরাকান থেকে মিয়ানমারকে বিতাড়নের।

অন্যান্য খবর