× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, রবিবার
নারী নির্যাতন মামলা

দারুসসালাম থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি গ্রেপ্তার

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার
(১ মাস আগে) জানুয়ারি ২৬, ২০২১, মঙ্গলবার, ৮:০৪ অপরাহ্ন

রাজধানীর দারুসসালাম থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবিএম মাজহারুল আনামকে তার স্ত্রীর করা নারী নির্যাতন মামলায় গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার বিকেলে দারুসসালাম এলাকার মাজার রোড শেলটেক থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মঙ্গলবার এবিএম মাজহারুল আনামকে প্রধান আসামি করে সাতজনের বিরুদ্ধে রাজধানীর দারুসসালাম থানায় নারী নির্যাতন ও যৌতক আইনে মামলা দায়ের করেন তার স্ত্রী ফিরোজা পারভীন (৪০)।

মামলা ও মামলার বাদী সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘ ১২ বছরের সংসার করেন মাজহার ও মামলার বাদী ফিরোজা পারভীন। তাদের ১১ বছর বয়সী এক  প্রতিবন্ধী ছেলে সন্তান রয়েছে। সন্তান হওয়ার পর থেকে মাজহার বিভিন্ন সময় তার স্ত্রীকে যৌতুকের জন্য শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতেন। সন্তানের মুখের দিকে তাকিয়ে ফিরোজা পারভী তার স্বামীকে দফায় দফায় বিশ লাখ টাকাসহ দামি আসবাবপত্র প্রদান করেন।
ফিরোজা পারভীন জানান, তার স্বামী একজন লম্পট, দুঃচরিত্র ও লোভী প্রকৃতির লোক।  যৌতুকের টাকা পাওয়ার পর তিনি (মাজহার) নারীদের পেছনে আমোদ-ফুর্তিতে ব্যয় করেছেন। কয়েকজন নারীর সঙ্গে তার অন্তরঙ্গ ছবিও ফাঁস হয়েছে।
সব টাকা নারীদের পেছনেই ব্যয় করেন। গত বছরের ৪ঠা এপ্রিল বিকাল বেলায় তার স্বামী মাজহার মামলার অন্য আসামিদের প্ররোচনায় তার পরিবারের কাছে আরও ১০ লাখ টাকা যৌতুক চান। যৌতুক না দেওয়ায় আসামিরা তাকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করে। পরবর্তীতে আত্মীয়-স্বজনরা এসে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করান। কিছুটা সুস্থ হয়ে বাদী (ফিরোজা পারভীন) একমাত্র বুদ্ধি প্রতিবন্ধী সন্তানের কথা চিন্তা করে আপোস মীমাংসার উদ্দেশে সোমবার (২৫ জানুয়ারি) বাসায় ফিরলে দেখতে পান ঘরের আলমারির তালা ভাঙ্গা। বিয়ের সময় উপহার হিসেবে পাওয়া ১৫ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, গুরুত্বপূর্ণ দলিলপত্র সব গায়েব হয়ে গেছে। এমন সময় আসামি মাজহার যৌতুকের ১০ লাখ টাকা ছাড়া কেন তিনি (বাদী) বাসায় এসেছেন এই কথা বলে তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে শরীরের বিভিন্ন জাযগায় আঘাত করেন। ফিরোজা জানান, মামলার অপর আসামি মুন্নি (যার সঙ্গে পরকিয়ায় লিপ্ত) তাকে এলোপাতাড়ি কিলঘুষি ও তার প্রতিবন্ধী সন্তানকেও মারধর করেন। একপর্যায়ে তার স্বামী তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে বালিশ চাপা দেয়। তার ডাক চিৎকারে আশপাশের লোকজন ও আত্মীয়-স্বজনরা ছুটে এসে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে যায়।
দারুসসালাম থানার এসআই ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মোফাজ্জল হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, মঙ্গলবার বিকাল ৩টায় মামলার প্রধান আসামি মাজহারুল আনামকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Shahid
২৬ জানুয়ারি ২০২১, মঙ্গলবার, ৯:৩২

লম্পটরা উক্ত দলের নেতা হয় কীভাবে?

অন্যান্য খবর