× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৫ মার্চ ২০২১, শুক্রবার
চসিক নির্বাচন

চট্টগ্রামে ভোটে সহিংসতা, নিহত ২

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে
(১ মাস আগে) জানুয়ারি ২৭, ২০২১, বুধবার, ১১:৪৬ পূর্বাহ্ন

বেলা যতই বাড়ছে চট্টগ্রামে ততই ছড়িয়ে পড়ছে নির্বাচনী সহিংসতা। আওয়ামী লীগ সমর্থিত ও বিদ্রোহী ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থীর মধ্যেই মূলত এই সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ছে। সহিংসতায় এ পর্যন্ত নগরীর পাহাড়তলী ও সরাইপাড়া ওয়ার্ডে দুজন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে অর্ধশতাধিক। এছাড়া লালখান বাজার ওয়ার্ডেও ত্রিমুখী সংঘর্ষে একজন নিহতের খবর পাওয়া গেলেও তার সত্যতা নিশ্চিত করা যায়নি। কেন্দ্র দখলের ঘটনাকে কেন্দ্র করেই এই সংঘর্ষ ও সহিংসতা হচ্ছে বলে জানান স্থানীয় ভোটাররা। এরমধ্যে সকাল ৯টার দিকে নগরীর পাহাড়তলী ওয়ার্ডে ইউসেফ আমবাগান কারিগরি স্কুল ভোট কেন্দ্র দখলের ঘটনায় আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর প্রার্থী ও বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়। এতে আলাউদ্দিন নামে এক তরুণ নিহত হয়েছেন।
অভিযোগ উঠেছে, আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী ওয়াসিম উদ্দিন চৌধুরীর অনুসারীরা প্রথমে হামলা চালায়। এতে দলটির বিদ্রোহী প্রার্থী মাহামুদুর রহমানের অনুসারীরা আহত হয়। খবর পেয়ে পুলিশ, বিজিবি ও র‌্যাব ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়। এ ঘটনায় আহত ৫ জনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে সেখান থেকে আলাউদ্দিন নামে এক তরুণকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। নিহত আলাউদ্দিন বিদ্রোহী কাউন্সিলর প্রার্থী মাহামুদুর রহমানের অনুসারী। এ ঘটনার জন্য ওয়াসিমের অনুসারীদের দায়ী করেছেন মাহমুদুর রহমান। এদিকে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেওয়র জন্য নগরীর সরাইপাড়া ওয়ার্ডে ছুরিকাঘাতে একভাইকে খুন করেছে আরেক ভাই। নিহত ভাইয়ের নাম মো. নিজামউদ্দিন। আর ঘাতক ভাইয়ের নাম মো. সালাউদ্দিন কামরুল। বুধবার সকাল ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে বলে জানান পাহাড়তলী থানার ওসি (তদন্ত) রাশেদুল হক। তিনি জানান, ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে খুন হওয়া নিজামউদ্দিন নগরীর ১২ নম্বর সরাইপাড়া ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী কাউন্সিলর প্রার্থী সাবের আহম্মদের কর্মী। ঘাতক সালাউদ্দিন কামরুল একই ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী নুরুল আমিনের কর্মী। রাশেদুুল হক বলেন, বুধবার সকালে ভোট দিতে যাওয়ার সময় ঘাতক সালাউদ্দিন কামরুল ভাই নিজামউদ্দিনকে নুরুল আমিনের প্রতিকে ভোট দেওয়ার চাপ সৃষ্টি করেন। কিন্তু নিজামউদ্দিন তাতে রাজি না হলে দু‘জনের মধ্যে ঝগড়া বাঁধে। একপর্যায়ে সালাউদ্দিন কামরুল নিজামউদ্দিনকে ছুরিকাঘাত করে। এতে প্রচুর রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু ঘটে। এছাড়া কেন্দ্র দখলের ঘটনায় নগরীর লালখান বাজার ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ সমর্থিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী আবুল হাসনাত মো. বেলালের সমর্থকদের সঙ্গে সংঘর্ষ বাঁধে প্রতিপক্ষ দিদারুল আলম মাসুদের অনুসারীদের। এ ঘটনায় একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া যাচ্ছে। এতে আহত হয়েছেন অন্তত ২০ জনেরও বেশি। তাদেও চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয়েছে।  কেন্দ্র দখলের ঘটনা ঘটেছে নগরীর বাকলিয়া, চান্দগাঁও, উল্টর পাহাড়তলী, পশ্চিম ষোলশহর, চকবাজার, রামপুর, উত্তর পতেঙ্গা, ফিরিঙ্গিবাজার ওয়ার্ডেও। কেন্দ্র দখলের ঘটনায় এসব এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোন সময় বিবদমান গ্রুপের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষেও ঘটনা ঘটতে পারে। এসব ঘটনায় ওয়ার্ডের ভোটকেন্দ্রগুলোতে ভোটার উপস্থিতি নেই বলে জানান স্থানীয়রা। তবে সিএমপির উপ কমিশনার মো. আবদুল ওয়ারিশ বলেন, সহিংসতার খবর পাচ্ছি। তবে ভোটকেন্দ্রগুলোতে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি রয়েছে। সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন স¤পন্ন করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
আবুল কাসেম
২৭ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার, ৩:৩১

আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম বলেছেন, সাংগঠনিক দুর্বলতার জন্য বিএনপি ঠিকমতো এজেন্ট দিতে পারেনি। জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে নৌকায় ভোট দিচ্ছে। তাই তিনি বিপুল ভোটে জয়লাভ করবেন। কিন্তু, সকালে ভোট শুরু হওয়ার পর বিভিন্ন কেন্দ্রে ককটেল বিস্ফোরণের খবর গণমাধ্যম প্রকাশ করে বলেছে ভোটাররা ভয়ে কেন্দ্রে যেতে অনিহা বোধ করছে। আবার ভোটের গোপন কক্ষে অবস্থান করেও ভোট প্রভাবিত করার খবর প্রকাশিত হয়েছে। খবরে এও প্রকাশ হয়েছে, জনৈকা মনোয়ারা নিজের ভোট দিতে পারননি। বুঝতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয়, নির্বাচনে ব্যপক অনিয়ম হয়েছে। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও কাউন্সিলর প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। দুই জন নিহত হওয়ার খবর জানা গেছে। নিজেদের মধ্যে যাদের এতো কোন্দল, সংঘাত, সংঘর্ষ তারা প্রতিপক্ষের প্রতি কেমন আচরণ করতে পারে তা আর বলার অপেক্ষা রাখেনা। এতো সংঘাত-সংঘর্ষের পরেও চিরাচরিত নিয়মানুযায়ী নির্বাচন কমিশন থেকে দিনশেষে হয়তো বলা হবে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হয়েছে এবং এমন নির্বাচন থেকে আমেরিকার শেখার অনেক কিছু আছে। আমেরিকার নির্বাচন কমিশন মেরুদণ্ড হীন এবং কারো আজ্ঞাবহ কিনা সুষ্ঠু নির্বাচন করতে দারুণ ব্যস্ততার কারণে হয়তো সে খবর রাখার ফুরসত হয়নি হুদা কমিশনের। তবে হুদা কমিশনের মেরুদণ্ড এতোটাই নুয়ে পড়েছে, যেনো কালবৈশাখী ঝড়ে আগা মাটিতে স্পর্শ করা সুপারি গাছ। এ সম্পর্কে বিজ্ঞা ও বিশিষ্টজনেরা বিস্তর লেখালেখি করেছেন। সেই সুবাদে আমাদের খানিকটা জানা হয়েছে আরকি। সে যাই হোক, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনে ব্যপক সহিংসতা ঘটেছে। ইতোমধ্যে সেসবের খবর গণমাধ্যম প্রকাশ করেছে। দুই সহোদর ভাই, এক ভাই আওয়ামী লীগের একজন কাউন্সিলর প্রার্থীর কর্মী আর আরেক ভাই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর কর্মী। এক ভাই অন্য ভাইকে নিজের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে চাপ প্রয়োগ করে। তার কথায় রাজি হয়নি আরেক ভাই। তাই ক্ষিপ্ত হয়ে সে তার আপন ভাইকে ছুরিকাঘাতে খুন করে। এটাই হচ্ছে শান্তি পূর্ণ ভোটের চিত্র! এমন নির্বাচন থেকেই কি আমেরিকার শেখার মতো অনেক উপাদান রয়েছে! ট্রাম্পের 'নির্বাচন মানি, তবে ক্ষমতা আমার' এমন একদেশদর্শী ও চরম একগুঁয়েমী যুক্তরাষ্ট্র সহ বিশ্ব ব্যাপী নিন্দিত হয়েছে। তবে আমেরিকার রিপাবলিকান ও ডেমোক্রেটিক দলের মধ্যে এমন কোনো সহোদর ভাইয়ের সন্ধান পাওয়া যায়নি যে, এক ভাইয়ের মতের বিরুদ্ধে ভোট দেয়ার কারণে আরেক ভাই তাকে খুন করেছে। এমন দুই ভাইয়ের সন্ধানও পাওয়া যায়নি যে, নিজের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে এক ভাই আরেক ভাইকে চাপাচাপি করেছে। বরং ট্রাম্পের অনেক ঘনিষ্ঠ লোক তার বিপক্ষে চলে গেছে। এটাই হচ্ছে আমেরিকার নির্বাচনে উদারতা, পরমতসহিষ্ণুতা ও গণতন্ত্রের উদাহরণ। আর ছেলের মৃত্যুর খবর শুনে মায়ের হার্ট অ্যাটাক হয় আমাদের দেশের নির্বাচনে। যেই প্রার্থীর কর্মী এই ঘাতক ভাই সেই প্রার্থী এর দায় এড়াতে পারেননা। তাঁর জয় লাভের উন্মাদনায় তাঁর কর্মী প্রভাবিত হয়েছে। যে কোনো পন্থা অবলম্বন করে জয়ের নেশা থেকেই সংহিতা সৃষ্টি হয়। যে কোনো মূল্যে এবং যে কোনো ভাবেই হোক জয় নিশ্চিত করতে হবে এমন ইচ্ছে ও চরম একটা বাসনা থেকেই আজ এক ভাইয়ের হাতে আরেক ভাইয়ের প্রাণহানি হয়েছে। এর নিন্দা জানানোর ভাষা নেই। ঘাতক ভাই হয়তো গ্রেফতার হবে এবং আইন অনুযায়ী বিচার হবে। কিন্তু তার নিহত ভাই আর মায়ের জীবন কে ফিরিয়ে দেবে? সুতরাং নির্বাচনে প্রার্থীদের জয়ের নেশা, উন্মাদনা ও মরিয়া হয়ে পড়া থেকে বিরত থাকতে হবে। মানুষের জীবন নিয়ে খেলা বন্ধ করতে হবে। একজন বিশিষ্ট ব্যক্তি কিছুদিন আগে বলেছিলেন এখন নির্বাচন খেলা হয়। তাঁর কথার মর্ম এখন উদ্ঘাটন হয়েছে। নির্বাচন নিয়ে খেলা মানুষের জীবন নিয়ে খেলারই নামান্তর।

AKM Mahfuzunnabi
২৭ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার, ৩:০৩

Hate election Commission.

karim
২৭ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার, ৩:৫৫

Digital Nirbachon with Nibachon comissioner

nasir uddin
২৭ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার, ২:১০

why are these farce? why give election? Ask HUDA to declare results only. HUDA must add election held was FREE and FAIR.

Fazlu
২৭ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার, ২:০৭

মাশা আল্লাহ্‌। নির্বাচন জমে উঠেছে।

দয়াল মাসুদ
২৭ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার, ১২:০১

ছি ছি নিজেদের মধ‍্যেই কামড়াকামড়ি!

Mizanur Rahman
২৬ জানুয়ারি ২০২১, মঙ্গলবার, ১১:৫৬

Huda-Muda-Gada is getting ready to say it's a free, fair and excellent election.

Jamshed Patwari
২৭ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার, ১২:৫২

যারা এই সন্ত্রাস করাচ্ছে তারা ভাল করেই জানে সুষ্ঠু ভোট হলে তারা গো হারা হারবে। এসব করে সাধারণ ভোটারদের মাঝে ভীতি সৃষ্টি করে কেন্দ্র দখলে নেয়, তারপর কয়েকজন মিলে সীল মারে।

mamun
২৭ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার, ১২:১৪

stupid election in bangladesh

অন্যান্য খবর