× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৩ এপ্রিল ২০২১, মঙ্গলবার

ঢাকায় ক্যাম্পাস খুলতে চায় বৃটেনের ৯ বিশ্ববিদ্যালয়

শিক্ষাঙ্গন

কূটনৈতিক রিপোর্টার
(১ মাস আগে) ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২১, বুধবার, ৭:০৯ অপরাহ্ন

বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতে বৃটেন বিনিয়োগে আগ্রহী জানিয়ে ঢাকাস্থ বৃটিশ হাইকমিশনার রবার্ট চ্যাটার্টন ডিকসন বলেছেন, বিশ্বময় খ্যাতি রয়েছে এমন অন্তত ৯টি বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশে ক্যাম্পাস খুলতে চায়। অর্থনৈতিক সীমাবদ্ধতাসহ নানা কারণে বাংলাদেশের যেসব মেধাবী শিক্ষার্থীর বিদেশে পড়াশোনা কষ্টকর তাদের জন্য এখানে আন্তর্জাতিক মানের উচ্চতর শিক্ষার সূযোগ সৃষ্টিই এ উদ্যোগের লক্ষ্য। হাই কমিশনারের মতে, ব্যবসা-বাণিজ্যে অপার সম্ভাবনায় বাংলাদেশের আরো বড় বিনিয়োগে আগ্রহী তার দেশের বিজনেস কোম্পানীগুলো। অন্তত ১০-১৫টি কোম্পানী অর্থ-সংক্রান্ত, তথ্য-প্রযুক্তি এবং স্বাস্থ্যখাতে বিনিযোগ করতে চায় বলে জানান তিনি। বুধবার মধ্যাহ্নে নিজ বাসভবনে এক ব্রিফিংয়ে তিনি এসব তথ্য জানান। মঙ্গলবার ঢাকায় বাংলাদেশ ও বৃটেনের মধ্যে অনুষ্ঠিত প্রথম বাণিজ্য সংলাপের আউটকাম জানাতে ওই ব্রিফিংয়ের আয়োজনে করে হাই কমিশন। সেখানে বাংলাদেশের বেসরকারি শিক্ষা খাতে বৃটেনের বিনিয়োগকারীদের আগ্রহের বিষয়ে জানতে চাইলে রবার্ট ডিকসন বলেন, বাণিজ্য সংলাপে আন্তরাষ্ট্রীয় উচ্চশিক্ষার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। সেই আলোচনায় তারা বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের জন্য আন্তর্জাতিক মানের শিক্ষার সুযোগ নিশ্চিত করার কথা বলেছেন।
কারিগরি ও পেশাগত কাজের জন্য বিশেষায়িত বৃটেনের শীর্ষস্থানীয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বাংলাদেশে এসে শ্রীলঙ্কা ও মালয়েশিয়ার মতো সাফল্য নিশ্চিত করতে চায় বলেও জানান তিনি। শিক্ষা বা যে খাতেই নতুন বিনিয়োগ হোক না কেন তার পূর্বশর্ত হিসাবে ব্যবসার পরিবেশ উন্নয়নের ওপর জোর দেন হাই কমিশনার ডিকসন। মঙ্গলবারের ব্যাণিজ্য সংলাপে বিষয়গুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, বিনিয়োগ আকর্ষণে আমলাতান্ত্রিক জটিলতা, পদ্ধতিগত অনিশ্চয়তা, চুক্তি বাস্তবায়নের শর্তাবলি সহজীকরণ, দুর্নীতি রোধ এবং করের হার কমাতে হবে। এসব ক্ষেত্রে জরুরি হচ্ছে রাজনৈতিক অঙ্গীকার এর পূর্ণ বাস্তবায়ন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
tito
২৯ মার্চ ২০২১, সোমবার, ৩:৪৯

প্রাইমারি, হাইস্কুল খোলেন, ভালমানের শিক্ষক আনেন এবং এখানেও ভালোমানের শিক্ষক তৈরি করেন। অল্প কিছু ছাড়া এদেশের কেজি, প্রাইমারির শিক্ষক, শিক্ষা ব্যাবস্থা, পাঠ্যসূচি নিয়ে সাটিসফাইড নই।

PALASH
২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, মঙ্গলবার, ১০:৩৯

অবশ্যই তাদের দেশের যে সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয় ভাত পায় না অথবা সেরা 50 নামও নেই এই ধরণের বিশ্ববিদ্যালয়ই তো এখানে স্থাপন করার চেষ্টা করবে। সরকারের উচিৎ ভাল মানের একটি বিশ্ববিদ্যালয়কে অনুমতি দেওয়া যাতে শিক্ষার মান আন্তর্জাতিকভাবে বজায় থাকে। সর্বক্ষেত্রে সরকারের সফলতা এসেছে আশা করি শিক্ষাকে আন্তর্জাতিক মানের করার ব্যাপারেও শিক্ষামন্ত্রী ভূমিকা রাখবেন। এমন কারিগরি শিক্ষার ব্যবস্থা করুন যাতে আমরা বিদেশে গিয়ে ভাল চাকুরী করতে পারি। বাংলাদেশ সারাজীবন শুধু নির্মাণ তেল শ্রমিক এর কাজই করে যাবে। এখন সময় এসেছে উন্নত পদে চাকুরীর সেই ব্যবস্থা করুন। কোন ভাবেই ভুলে যাবেন না। রেমিটেন্স আয় বাংলাদেশের একটি সাহস বিপদের দিনে এমনকি করোনাকালীন সময়ে বৈদেশিক মুদ্রার যে রিজার্ভ আমরা দেখেছি, সেটা পুরো জাতির মধ্যে এক ধরণের সাহস সঞ্চার করেছে। বৈদেশিক মুদ্রার দিকে নজর দিন। বেশি বেশি মানুষকে বিদেশে কাজের সুযোগ করে দিন।

Amir
১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১০:৩৫

ঢাকায় ক্যাম্পাস খুলতে চায় বৃটেনের ৯ বিশ্ববিদ্যালয়---------১.অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ২.কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় ৩.লন্ডন ইম্পেরিয়াল কলেজে ইত্যাদি ঐ তালিকায় না থাকার সম্ভাবনাই বেশি, তাইতো?

Dr,Abdul Momin,Cox,s
১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বুধবার, ৯:৩২

অনুমতি দেয়া হোক,তবে মানসম্পন্নগুলোকে অবশ্যই।আমাদের শিক্ষাপ্রতিসঠানগুলোর মানের উন্নয়নের জন্য সুস্থ প্রতিযোগিতা অত্যাবশ্যক।

Kiron Choudhury
১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৭:১২

If those are A grade Universities only then Bangladesh Govt. should allow them otherwise not. What's are the names of universities?

অন্যান্য খবর