× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১১ এপ্রিল ২০২১, রবিবার
সিংগাইর পৌর নির্বাচন

বিএনপি চায় হ্যাটট্রিক, আওয়ামী লীগের প্রেস্টিজ লড়াই

বাংলারজমিন

রিপন আনসারী/আতাউর রহমান, মানিকগঞ্জ থেকে
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বুধবার

ঢাকার কাছের জেলা মানিকগঞ্জের সিংগাইর পৌরসভা নির্বাচন ২৮শে ফেব্রুয়ারি। নির্বাচনকে ঘিরে ভোটের মাঠে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী আবু নাঈম মো. বাসারের একক আধিপত্য দেখা গেলেও বিএনপি প্রার্থী বর্তমান মেয়র এডভোকেট খোরশেদ আলম জয়ের প্রচারণা চলছে নীরবে। জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী ও এমপি মমতাজ বেগমের নির্বাচনী আসনে টানা দুইবার মেয়র নির্বাচিত হন বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী এডভোকেট খোরশেদ আলম ভূঁইয়া জয়। যার কারণে ২৮ তারিখের নির্বাচন আওয়ামী লীগের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ও প্রেস্টিজের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী যদি পরাজিত হন সেক্ষেত্রে বিএনপি’র প্রার্থী খোরশেদ আলম ভূঁইয়া জয় হ্যাটট্রিক বিজয় অর্জন করবেন। তবে এবার আওয়ামী লীগ প্রার্থীও জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী।
সরজমিন সিংগাইর পৌর এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, ব্যানার, পোস্টার, নেতাকর্মী, সমর্থক সবই ক্ষমতাসীন দল নৌকার প্রার্থী আবু নাঈম মো. বাসারের নিয়ন্ত্রণে। সকাল থেকে গভীর রাত অবধি তার প্রচার-প্রচারণা চোখে পড়ার মতো।
জেলা ও উপজেলা থেকে প্রতিদিন আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা তার পক্ষে প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। এই নির্বাচন নৌকার প্রার্থীর জন্য গুরুত্বপূর্ণ ও প্রেস্টিজ রক্ষার নির্বাচন বলে মনে করছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ। কারণ, এর আগে তিনি একাধিকবার মেয়র নির্বাচন করেও জয়ী হতে পারেননি। আর বিএনপি প্রার্থী বর্তমান মেয়র খোরশেদ আলম ভূঁইয়া জয়ের প্রচার-প্রচারণা চলছে নীরবে। কোথাও কোথাও পোস্টারের দেখা মিললেও বেশির ভাগ এলাকাতেই নেই। কর্মী-সমর্থকদের মুখেও ভোটের আওয়াজ তেমন নেই, মুখ খুলছেন না। তবে নীরবে প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন বিএনপি নেতাকর্মীরা। জয় বলেন, আমি টানা দুইবার সিংগাইর পৌরসভা নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছি। যার কারণে আমাকে এলাকার প্রতিটি মানুষ চেনেন। তাই ভোটাররা এবারও ভুল করবেন না। তিনি আরো বলেন, নির্বাচনে প্রচারণা চালাতে পারছি না। আওয়ামী লীগ প্রার্থীর লোকজন ব্যাপক বাধা সৃষ্টি করছে। একদিকে পোস্টার লাগাচ্ছি আবার সেগুলো তারা ছিঁড়ে ফেলে দিচ্ছে। কর্মীরা মাঠে নামলেই হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। মাইকিং করতে বাধা প্রয়োগসহ প্রতিদিন অসংখ্য মোটরসাইকেলের বহর নিয়ে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করছে। তবে হুমকি-ধমকি দিয়ে আমাকে থামিয়ে রাখা যাবে না। ভোটাররা যদি ভোটকেন্দ্রে যেতে পারেন তাহলে আমার বিজয় ঠেকানোর ক্ষমতা কারো নেই। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আবু নাঈম মো. বাসার বলেন, বিএনপি যেসব অভিযোগ করছে এটা তাদের স্বভাব। কোনো ধরনের বাধা তাদের দেয়া হচ্ছে না। আসলে বিএনপি প্রার্থী দুইবার মেয়র হলেও কোনো কাজ করেননি। ভোটাররা এবার তার দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন।
পরাজয় সুনিশ্চিত ভেবেই আবোল-তাবোল কথা বলে বেড়াচ্ছেন। বিগত দুই নির্বাচনে এলাকার জনগণ ভুল করলেও এবার সেই ভুল তারা করবেন না। জয়ের ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদী।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Afzal Ahmed
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বুধবার, ১০:০৫

মমতাজ এর সৎ পুত্র বলে কথা,তার আবার ভোট লাগব নাকি?জোর যার মুল্লুক তার। মমতাজ এর আধিপত্য এখানে থাকবেই।

অন্যান্য খবর