× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ২১ এপ্রিল ২০২১, বুধবার

নিখোঁজের পর লাশ মিললো মহাসড়কের পাশে

বাংলারজমিন

ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি
২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার

ঢাকার ধামরাইয়ে ব্যবসায়ী আজাদ পাওনা টাকা আনতে গিয়ে নিখোঁজ হন। রাতভর তার কোনো খোঁজ না পেলেও গতকাল সকালে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের ধামরাইয়ের বাথুলি বাসস্ট্যান্ডের পূর্ব পাশে থেকে তার ক্ষতবিক্ষত লাশ দেখতে পান এলাকাবাসী। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। পরিবারের দাবি, তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। তবে পুলিশ বলছে, তাকে হত্যা করা হয়েছে নাকি সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছে তা ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পরই জানা যাবে। আজাদ মাস তিনেক আগে চাকরি ছেড়ে ধামরাইয়ের কেবিসি ও গাজীপুরের বিভিন্ন কারখানায় ধানের কুঁড়া সরবরাহ করতেন। আর এ ব্যবসা করার জন্য কয়েকটি এনজিও থেকে ঋণ তুলে প্রায় সাড়ে চার লাখ টাকা দিয়েছিলেন আজাদকে দিয়েছিলেন পিতা বাবুল বিশ্বাস। গত সোমবার বিকালে আজাদ পাওনা টাকা আনতে সাভারের নয়ারহাট যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হন।
তারপর থেকে আর ফেরেননি। টাকা আনতে কার কাছে যাচ্ছেন তাও পরিবারের লোকজনকে জানাননি তিনি। নিহতের বাবা বাবুল বিশ্বাস বলেন, সন্ধ্যার পর ছেলের সঙ্গে মোবাইলে কয়েক দফায় কথা হয়েছে। সব শেষে রাত পৌনে ৯টায় আজাদ আমাকে বলেছে, টাকা দেই দিচ্ছি করে আমাকে ঘুরাচ্ছে। আমি বেশি কথা বলতে পারছি না, বিপদে আছি, আমাকে নয়ারহাট থেকে ধামরাই নিয়ে যাচ্ছে। এ কথা বলার পর আর মোবাইল ফোন রিসিভ করেনি আজাদ। ধামরাই থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) আতিকুর রহমান বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে অজ্ঞাত কোনো গাড়িরচাপায় মারা গেছেন আজাদ বিশ্বাস। তবে কেউ যদি তাকে হত্যা করে থাকে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পরই তা জানা যাবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর