× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ২২ এপ্রিল ২০২১, বৃহস্পতিবার

মানবসেবা করে বিইএম সম্মাননা পেলেন বৃটিশ বাংলাদেশি সাঈদ

শেষের পাতা

মানবজমিন ডেস্ক
৪ মার্চ ২০২১, বৃহস্পতিবার

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্যবসায়ী সৈয়দুর রহমান সাঈদ বৃটেনের একজন খ্যাতনামা ব্যবসায়ী এবং লেস্টারের কমিউনিটি লিডার। যুক্তরাজ্যের সেবা খাতে তিনি ২৫ বছর ধরে কাজ করছেন। দুটি রেস্টুরেন্ট পরিচালনার পাশাপাশি সাঈদ দাতব্য কর্মকাণ্ডের জন্য তহবিল সংগ্রহ করতে শুরু করেন। ১৬ বছরে তিনি ৬ লাখ ৯৩ হাজার পাউন্ডেরও বেশি অর্থ নানা দাতব্য সংস্থা, স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ের হাসপাতাল এবং ঢাকার ভ্যালরি টেইলর ট্রাস্টে প্রদান করেন। জনহিতকর কাজের জন্য তিনি বৃটিশ এমপিদের থেকে নানা সময় প্রশংসা পেয়েছেন। জাতীয় টেলিভিশনেও তার জনসেবা নিয়ে প্রতিবেদন প্রচার হয়েছে। সমপ্রতি বৃটিশ সরকার তার এই অবদানকে স্বীকৃতি দিতে তাকে সম্মানসূচক বৃটিশ অ্যাম্পায়ার মেডেল বা বিইএম প্রদান করেছে। সকল মানুষের ভালোর জন্য এক হয়ে কাজ করাই সাঈদের নীতি।
তিনি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করেন, যদি প্রত্যেকে সমপ্রদায়গতভাবে একে অপরকে সাহায্য করি তাহলে আমরা একইসঙ্গে উন্নতির পথে এগিয়ে যাওয়া যাবে। এ জন্য তিনি যতটা সম্ভব মানুষকে সাহায্য করে চলেছেন। তিনি বলেন, সমাজে আমার অবদান ইতিবাচক প্রভাব ফেলছে, আমার জীবনে এর থেকে অধিক তৃপ্তির আর কিছুই নেই। বিইএম যুক্তরাজ্যের সব থেকে সম্মানজনক পদবিগুলোর একটি। সাধারণত বাকিংহাম প্রাসাদে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের উপস্থিতিতে এই সম্মাননা প্রদান করা হয়। তবে এবার কোভিড-১৯ পরিস্থিতির কারণে রানীর প্রতিনিধিরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার উমরপুর গ্রামে সৈয়দুর রহমান সাঈদের গ্রামের বাড়ি। ভবিষ্যতে বাংলাদেশে আরো বেশি দাতব্য সহযোগিতা অব্যাহত রাখার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন তিনি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর