× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১২ এপ্রিল ২০২১, সোমবার

‘সরকারের সমালোচকদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ব্যবহৃত হচ্ছে’

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ মাস আগে) মার্চ ৫, ২০২১, শুক্রবার, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ভীষণ অস্পষ্ট এবং সরকারের সমালোচনা ঠেকাতেই এই আইন ব্যবহার করা হচ্ছে। এমনটাই দাবি করেছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থার এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের প্রধান ররি মুঙ্গোভেন। ডয়েচে ভেলেকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব দাবি করেছেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহারের সুযোগ রয়েছে এবং সেটি সরকারের সমালোচনাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হয়েছে৷ সাক্ষাৎকারে তিনি কয়েকটি ধারা সংশোধনের পক্ষে মত দিয়েছেন।

মুঙ্গোভেন বলেন, এই আইনের অনেক ধারাই সিভিল সোসাইটির কণ্ঠরোধ, সাংবাদিক ও সরকারের সমালোচদের জন্য ব্যবহার করা যায়। তিনি যুক্ত করেন, আমরা করোনা মহামারির সময় দেখেছি এই আইনের ব্যপক ব্যবহার হয়েছে। গত বছর প্রায় ১৪০টিরও বেশি মামলা করা হয়েছে। যাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে তারা সরকারের নীতির সমালোচনা করেছেন, সমালোচনা করেছেন মহামারি মোকাবেলা সংক্রান্ত দুর্নীতির। অথচ এই আইনের আসল উদ্দেশ্য এটি ছিলো না।

তার মতে, এই আইনে এমন সব সাজা রাখা হয়েছে যা অস্বাভাবিক।
কয়েকটি ধারা একেবারেই অজামিনযোগ্য। এই আইন নিয়ে এ কারণে সাধারণ মানুষের দুশ্চিন্তা রয়েছে। গত সপ্তাহেই আমরা দেখেছি লেখক মুশতাক আহমেদ পুলিশ হেফাজতে মারা গেছেন। ১০ মাস তিনি আটক ছিলেন তিনি, জামিন চেয়েও পাননি। মুঙ্গোভেন বলেন, এখন কথা বলার জন্য শাস্তি পেতে হতে হচ্ছে। এগুলো বাকস্বাধীনতার উপর আঘাত। আন্তর্জাতিক আইন বা বাংলাদেশের সংবিধানও এটিকে সমর্থন করে না।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর