× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ২৩ এপ্রিল ২০২১, শুক্রবার, ১০ রমজান ১৪৪২ হিঃ

অনিয়ম হচ্ছে ৩৭ ভাগ ‘হাওর রক্ষা’ বাঁধে

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট থেকে
৮ মার্চ ২০২১, সোমবার

 কাবিটা নীতিমালা অনুযায়ী ২৮শে ফেব্রুয়ারির মধ্যে হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধের কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও এ বছর ৫ই মার্চ পর্যন্ত মাত্র ৬১ শতাংশ বাঁধে মাটি ফেলার কাজ শেষ হয়েছে। বাকি ৩৯ শতাংশ বাঁধে মাটি ফেলার কাজ চলছে। এরপর মাটি দুরমুজ করা, ঢাল বজায় রাখা, মাটি ফিনিশিং করা ও ঘাস লাগানোর কাজ বাকি থাকে। নীতিমালা অনুযায়ী বাঁধের ৫০ মিটার দূর থেকে মাটি আনার কথা থাকলেও ২২ ভাগ বাঁধের কাছ থেকে মাটি আনা হয়েছে। এসব তথ্য উঠে এসেছে পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থা পরিচালিত এক গবেষণা থেকে। পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি কাসমির রেজা এবং সংস্থার সহ-সভাপতি শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বন ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান এ গবেষণা করেন। এতে তারা সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবী এবং তাহিরপুর এসোসিয়েশন শাবিপ্রবি’র সদস্যদের সহযোগিতায় সুনামগঞ্জের মোট ৮১০টি বাঁধের মধ্যে ১০২টি বাঁধ পরিদর্শন করে প্রশ্নপত্রের মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহ করেন। রোববার দুপুরে ‘হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধের সর্বশেষ তথ্য বিষয়ক ভার্চ্যুয়াল আলোচনা ও গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠান’-এ তারা এ গবেষণা প্রতিবেদন তুলে ধরেন।
গবেষণা প্রতিবেদনে তারা আরো উল্লেখ করেন ৫ই মার্চের মধ্যে ৫৮ শতাংশ বাঁধে মাটি ভালোভাবে দুরমুজ (কম্পেকশন) করা হয়নি, মাত্র ৭ ভাগ বাঁধে ঘাস লাগানো হয়েছে। তারা আরো উল্লেখ করেন ৩৭ ভাগ বাঁধ নিয়ে এলাকাবাসী দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ তুলেছেন। দেরিতে বাঁধ নির্মাণের কারণ হিসেবে তারা প্রকল্প প্রাক্কলন ও কমিটি গঠনে বিলম্ব, অর্থ ছাড়ে বিলম্ব, হাওর থেকে দেরিতে পানি নামা ও ড্রেজার মেশিনের স্বল্পতার কথা উল্লেখ করেন। এ ছাড়াও তারা বাঁধের মাটির দুষ্প্রাপ্যতা, অপ্রয়োজনীয় প্রকল্প, অতিরিক্ত অর্থ বরাদ্দ, প্রকল্প কমিটি গঠনে অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতিকে সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করেন। তারা প্রকল্প প্রাক্কলনে বিলম্ব না করা, আগে ভাগে প্রকল্প কমিটি গঠন, সময়মতো অর্থ ছাড়, নীতিমালা মেনে প্রকল্প কমিটি গঠন করা, প্রকল্প প্রণয়নে স্থানীয় কৃষকদের মতামতকে গুরুত্ব দেয়া, বাঁধের বিকল্প ভাবা ও নদী এবং বিল খননের কথা সুপারিশ হিসেবে উল্লেখ করেন। তারা জানান, নভেম্বর মাসের মধ্যে প্রকল্পের স্কিম প্রণয়নের কথা থাকলেও জানুয়ারি মাসে স্কিম প্রণয়ন করা হয়। ১৫ই ডিসেম্বরের মধ্যে পিআইসি গঠন করার কথা থাকলেও ৯০ ভাগ পিআইসি গঠিত হয় জানুয়ারি মাসের শেষ ও ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে। অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বলেন, ‘আমাদের এই তথ্যগুলো যদি যথাযথ কর্তৃপক্ষের নজরে আসে এবং তারা সে অনুযায়ী পদক্ষেপ গ্রহণ করেন তবেই আমাদের প্রচেষ্টা সার্থক হবে।’ শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ড. আলী ওয়াক্কাস সুহেল বলেন, ‘আমাদের বাঁধের বিকল্প ভাবতে হবে। বাঁধের কারণে হাওরের প্রতিবেশে বিরূপ প্রভাব পড়ছে। জীববৈচিত্র্য বিনষ্ট হচ্ছে। তা নিয়ে আমাদের ভাবতে হবে। এজন্য নদী খননের পাশাপাশি হাওরের বিলও খনন করতে হবে। একই সঙ্গে হাওরের সমস্যা সমাধানে হাওরের স্থানীয় জনগোষ্ঠীর মতামতকে গুরুত্ব দেয়ার জন্য তিনি মতামত দেন।’ দুর্যোগ বিশেষজ্ঞ গওহর নঈম ওয়ারা বলেন, ‘এ বছর হাওর রক্ষা বাঁধের কাজ দেরিতে হওয়ার একটা বড় কারণ হলো হাওর থেকে দেরিতে পানি নামা। হাওরে জলাবদ্ধতা বাড়ছে। হাওর এলাকায় অবকাঠামো নির্মাণে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। যত্রতত্র ব্রিজ, কালভার্ট ও সড়ক নির্মাণ করা যাবে না। হাওরকে সামগ্রিকভাবে ভাবতে হবে। খণ্ডিতভাবে ভাবলে হবে না।’

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর