× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৮ এপ্রিল ২০২১, রবিবার

পরকীয়ায় ঘর ভাঙলো প্রবাসীর হারালেন সর্বস্ব

বাংলারজমিন

ভাঙ্গা (ফরিদপুর) প্রতিনিধি
৯ মার্চ ২০২১, মঙ্গলবার
অভিযুক্ত আনোয়ার

ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার কাউলীবেড়া ইউনিয়নের পল্লীবেড়া গ্রামে এক সরকারি কর্মচারীর বিরুদ্ধে পরকীয়ার অভিযোগ উঠেছে। তিনি জাকির হোসেন নামে এক সৌদি প্রবাসীর স্ত্রীকে ভাগিয়ে নিয়ে গেছেন। শুধু তাই নয়, জাকির হোসেনের প্রবাস জীবনের অর্জিত টাকা-পয়সা এবং তিল তিল করে গড়ে তোলা ভিটেমাটিসহ জমির ওপর তৈরি বিল্ডিংও বাগিয়ে নিয়েছেন। সরকারি ওই কর্মচারীর নাম আনোয়ার হোসেন। তিনি জেলার সদরপুর উপজেলা ভূমি অফিসের কর্মচারী। বিবাহিত জীবনে ৩ সন্তানের জনক। প্রবাসীর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ১৫ বছর পূর্বে জাকির হোসেন ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন মিনারা বেগমকে। বিয়ের পর ভালোই কাটছিল তাদের সংসার।
একপর্যায়ে সংসারের সচ্ছলতা বাড়াতে জাকির পাড়ি জমান সৌদি আরব। প্রবাস থেকে সমস্ত টাকা-পয়সা তিনি স্ত্রী মিনারা বেগমের কাছে পাঠান। কিন্তু ৩ সন্তানের জননী মিনারা বেগম স্বামী প্রবাসে থাকার সুবাদে আনোয়ার হোসেনের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন। ওই কর্মচারীর প্রলোভনে পড়ে প্রবাসী জাকির হোসেনের সংসার ভেঙে মিনারা বেগমের ঠাঁই হয় কর্মচারী আনোয়ার হোসেনের ঘরে। প্রবাসী জাকির হোসেন কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, প্রায় ৪০ লক্ষাধিক টাকা পাঠিয়েছি মিনারা বেগমের নামে। সে আমাকে ভুল বুঝিয়ে আমার নিজ বাড়ি থেকে ২০ কি.মি. দূরে নাসিরাবাদ ইউনিয়নের ভদ্রকান্দা গ্রামে নির্জনস্থানে জমি ক্রয় করে বিল্ডিং তৈরি করে। জাকির জানান, জমি তার নামেই ক্রয় করা হয়েছে। কিন্ত সরল জাকির হোসেন মিনারা বেগম ও ধূর্ত আনোয়ারের যৌথ ষড়যন্ত্রে পড়ে প্রবাস জীবনে অর্জিত সহায় সম্বল হারায়। এমনকি জমির দলিলও আনোয়ারের নামে করে। প্রবাস থেকে তিনি বাড়ি এসে স্ত্রী মিনারা বেগমের সঙ্গে যোগাযোগ করলে জানায়, সে এখন আনোয়ারের স্ত্রী। জাকিরের ৩ সন্তানসহ নতুন ঘরে বাস করছেন আনোয়ার ও মিনারা বেগম। এ বিষয়ে ভদ্রকান্দা গ্রামের আনোয়ারের কয়েকজন প্রতিবেশী আ. করিম, রেজাউল শেখসহ বেশ কয়েকজন জানান, জাকিরের অনুপস্থিতিতে আনোয়ার প্রায়ই ওই বাড়িতে আসতো। নির্জন দেয়ালঘেরা বাড়ি হওয়ায় কেউ প্রবেশ করতো না সেখানে। একপর্যায়ে সালিশ বৈঠকে এলাকাবাসী বাধা দিলে কিছুদিন এলাকায় না এসে অন্যত্র মিলিত হতো মিনারার সঙ্গে। কিন্ত সম্প্রতি জাকির হোসেন পুনরায় প্রবাসে চলে যাওয়ার পরই মিনারা বেগমের সঙ্গে তার বিয়ে হয়েছে বলে জানায়। এ ব্যাপারে প্রবাসী আমির হোসেন জানান, জাকির সহজ-সরল প্রকৃতির। সরল বিশ্বাসে স্ত্রীকে টাকা-পয়সা পাঠিয়েছে। জাকির হোসেনের ভাই মনির হোসেন জানান, তার ভাই স্ত্রীর ষড়যন্ত্রে সর্বস্ব খুঁইয়েছে। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আনোয়ার হোসেন বলেন, ওই পরিবারের সঙ্গে আমার দীর্ঘদিনের সম্পর্ক। জাকিরের সঙ্গে দাম্পত্য সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ায় আমি মিনারাকে বিয়ে করেছি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর