× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৫ মে ২০২১, শনিবার, ২ শওয়াল ১৪৪২ হিঃ
অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবি

র‌্যাব’র চার সদস্য গ্রেপ্তার

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার
১০ এপ্রিল ২০২১, শনিবার

অপহরণ করে ২ কোটি টাকা মুক্তিপণ দাবির অভিযোগে র‌্যাব’র চার সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে রাজধানীর হাতিরঝিল থানা পুলিশ। তামজিদ নামে এক যুবককে র‌্যাব সদস্যরা অপহরণ করে ২ কোটি টাকা মুক্তিপণ দাবি করে অপহৃতের বোনের কাছে।
এ ঘটনায় অপহৃত তামজিদের বোন বৃহস্পতিবার রাতে হাতিরঝিল থানায় অপহরণের অভিযোগে একটি মামলা করেন। গতকাল দুপুরে চারজনকে  গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পলাতক রয়েছেন আরো ২ জন সদস্য। জানা গেছে,  তামজিদের বাড়ি মগবাজারের ১/২, মীরবাগ এলাকায়।
এ বিষয়ে ঢাকা ঢাকা মহানগর পুলিশের কমিশনার মো. শফিকুল ইসলাম জানান, গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে থানায় নিয়মিত মামলা হলেও চারজনকে নিজ বাহিনীর হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। তাদের বিচার নিজ নিজ বাহিনীর আইন অনুযায়ী হবে। বাদীর অভিযোগের ভিত্তিতে তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।
বাদী মামলার এজাহারে উল্লেখ করেন, গত বৃহস্পতিবার একটি নম্বর থেকে র‌্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার পরিচয় দিয়ে বলা হয় যে, তার (বাদী) ভাই র‌্যাবের হেফাজতে রয়েছেন।
থানায় কিংবা ডিবি পুলিশকে জানানো যাবে না। শুধু তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে হবে। যদি থানা কিংবা ডিবি পুলিশকে জানান, তাহলে আপনার ভাইকে প্রাণে মেরে ফেলা হবে। এ কথা বলে র‌্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা পরিচয় দানকারী সেই ব্যক্তি ফোনের লাইন কেটে দেন।
এজাহার থেকে আরো জানা যায়, পরবর্তী সময়ে অনেকবার বাদী ফোনকারীদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তাদের তিনি আর ফোনে পাননি। ফোন দিলে তারা ফোন কেটে দেন। গত বৃহস্পতিবার দুপুর দেড়টার দিকে র‌্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা পরিচয় দানকারী সেই ব্যক্তি মোবাইল ফোনে আবার জানায় যে, তার ভাইকে র‌্যাব অফিসের সিনিয়র অফিসাররা জিজ্ঞাসাবাদ করছেন, তার নামে অস্ত্র ও মাদক মামলা হবে।
র‌্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা পরিচয়দানকারী সেই ব্যক্তি মোবাইল ফোনে আমার ভাইকে তাদের সহযোগীদের দিয়ে মারধরের শব্দ শোনায় এবং ভাইকে মোবাইল ফোন দিলে আমার ভাই কাঁদতে কাঁদতে জানায় যে, তাকে চোখ বেঁধে গাড়িতে তুলে বেদম মারধর করছে। পরবর্তী সময় ওই নম্বর থেকে আরো অজ্ঞাত দুই-তিনজন ফোন করে ১৫ লাখ টাকা দাবি করেন। র‌্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা পরিচয়দানকারী সেই ব্যক্তি নগদ ১৫ লাখ টাকা নিয়ে রাজধানীর যমুনা ফিউচার পার্কের দিকে আসতে বলেন। থানা কিংবা ডিবি পুলিশকে জানালে আবারো জানে মেরে ফেলার হুমকিও দেয়া হয়। গত বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ৩টার দিকে আমার ভাইয়ের ব্যবহৃত নম্বর থেকে ফোন করে আমার সঙ্গে ভাইয়ের কথা বলিয়ে দেয় তারা। তখন আমি তার অবস্থান জানতে চাইলে তিনি পুনরায় হাত পা চোখ বাঁধা থাকার কথা জানান।
এ ব্যাপারে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন সাংবাদিকদের জানান, ঢাকা মহানগর পুলিশের কমিশনার জানিয়েছেন যে, অপহরণের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ র‌্যাবের ৪ সদস্যকে আটক করেছে। বিকালে পুলিশ ওই ৪ সদস্যকে র‌্যাবের কাছে হস্তান্তর করেছে। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে যে। তদন্তে অপহরণের বিষয়টি প্রমাণিত হলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর