× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৫ মে ২০২১, শনিবার, ২ শওয়াল ১৪৪২ হিঃ

ইসলামাবাদ বিমানবন্দরে বিশৃংখল অবস্থা (ভিডিও)

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ মাস আগে) এপ্রিল ১০, ২০২১, শনিবার, ১২:৫৪ অপরাহ্ন

শুক্রবার দিবাগত রাতে পাকিস্তানের ইসলামাবাদ বিমানবন্দরে এক বিশৃংখল অবস্থার সৃষ্টি হয়। ১০ই এপ্রিল বৃটেনের স্থানীয় সময় ভোর ৪টা থেকে ‘লাল তালিকা’য় থাকা দেশগুলোর জন্য বৃটেন সফরে নানা রকম বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। তা থেকে রেহাই পেতে এদিন রাতে ইসলামাবাদের বিমানবন্দরে ছুটে যান বৃটেনে বসবাসকারী পাকিস্তানি অথবা সেখানে বেড়াতে যাওয়া পাকিস্তানিরা। এর ফলে বিমানবন্দরে উপচে পড়ছিল মানুষে। তাদেরকে সামাল দিতে হিমশিম খায় কর্তৃপক্ষ। ওদিকে বাংলাদেশ ও পাকিস্তানে আটকে পড়া মানুষদের উদ্ধার করে বৃটেনে ফিরিয়ে নিতে বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের প্রতি জরুরি ভিত্তিতে বিমান ভাড়া করার আহ্বান জানিয়ে লেখা চিঠিতে স্বাক্ষর করেছেন প্রায় ৫০ বৃটিশ এমপি।  এ খবর দিয়েছে অনলাইন ডেইলি মেইল।

এতে আরো বলা হয়, যেসব মানুষ শনিবার বৃটিশ সময় ১০ই এপ্রিল ভোর ৪টার মধ্যে বৃটেনে পৌঁছাতে সক্ষম হবেন তাদেরকে শুধু নিজেদের বাসভবনে ১০ দিন পর্যন্ত কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। বৃটেন পৌঁছানোর দ্বিতীয় দিন এবং অষ্টম দিনে ২১০ পাউন্ডের বিনিময়ে করোনা পরীক্ষা করাতে হবে।
কিন্তু কেউ যদি ভোর ৪টার পরে বৃটেনে পৌঁছেন তাহলে তাকে ১১ রাত সরকার অনুমোদিত হোটেলে কোয়ারেন্টিনে কাটাতে হবে। তাতে খরচ পড়বে ১৭৫০ পাউন্ড। এই খরচ নিজেকেই বহন করতে হবে। এই ঝামেলা এড়াতে শুক্রবার দিবাগত রাতে ইসলামাবাদ বিমানবন্দর বৃটেনগামী মানুষে উপচে পড়ছিল। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে এয়ারলাইন স্টাফদের দাঁড়িয়ে চেক করতে হয়েছে ডেক্সে। তারা বার বার লাইনে দাঁড়িয়ে একজনের পরে অন্যজনকে সামনে এগিয়ে যেতে অনুরোধ করেন। তাদের একজন বলেন, এর মধ্য দিয়ে এযাবতকালের সবচেয়ে বাজে অভিজ্ঞতা হয়েছে। অন্যরা মনে করেন, আগতরা মনে করেছেন তাদেরকে রেখেই ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে। তাই কেউ ধৈর্য্য না ধরে যে যার আগে পারে, চেকিং ডেস্কে যাওয়ার চেষ্টা করেছেন।

তিন ঘন্টা আগে বিমানবন্দরে পৌঁছালেও একটি ফ্লাইটে সিট যোগার করতে সক্ষম হয়নি পাকিস্তানি একটি পরিবার। এই পরিবারটির বসবাস বাকিংহামশায়ারে। এই পরিবারের সদস্য ইমরান খান আইলেসবারিতে বসবাস করেন। তিনি তিনটি শিশু, একজন পঙ্গু নারীকে হুইলচেয়ারে এবং ৯টি শিশু সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে লাহোর বিমানবন্দরে গিয়েছিলেন বৃটিশ এয়ারওয়েজের ফ্লাইট ধরার জন্য। তারা বলেছেন, বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় রাত একটা ৪৫ মিনিটের ফ্লাইট ধরার জন্য রাত ১১টার সময় বিমানবন্দরে পৌঁছেছেন। বৃটেনে ফিরে যাওয়ার জন্য তিনি এরই মধ্যে খরচ করেছেন ১৫ হাজার পাউন্ড। ২৪ ঘন্টায় ইসলামাবাদ, করাচি এবং লাহোর থেকে যাত্রী বৃটিনে ফিরিয়ে নিতে কমপক্ষে ২০টি ফ্লাইট চালানোর কথা। তা সত্ত্বেও কয়েক হাজার মানুষ পাকিস্তানে আটকা পড়েছেন। বল্টন সাউথ ইস্টের লেবার দলীয় এমপি ইয়াসমিন কুরেশি বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের কাছে ভাড়া করা বিমান ব্যবহার করে ফ্লাইট বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন। তার উদ্যোগে এমন আহ্বান সম্বলিত চিঠিতে স্বাক্ষর করেছেন বৃটিশ ৫০ জন এমপি।

উল্লেখ্য, পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত বৃটিশ জনসংখ্যা ১০ লাখের বেশি। এসব মানুষ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে দেশে ফিরেছিলেন। এখন দেশের বাইরের এসব ব্যক্তিকে পাকিস্তানে সংক্রমণ বৃদ্ধির জন্য দায়ী করা হচ্ছে। বুধবার পাকিস্তানে করোনায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৩০০ মানুষ। সেখানে তৃতীয় দফার সংক্রমণ চলছে। ইংল্যান্ডের কেন্টের করোনা ভাইরাস ভ্যারিয়েন্ট থেকে সেখানে সংক্রমণ ছড়িয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। পাকিস্তানে আটকে পড়া বৃটিশদের ইসলামাবাদ থেকে বৃটেনে উড়িয়ে আনতে উদ্যোগ নিয়েছে পোল্যান্ডে নিবন্ধিত বিমান সংস্থা এন্টার এয়ার। উদ্ভূত চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে তারা এক্ষেত্রে ভাল ব্যবসা করে নিচ্ছে। তারা ইসলামাবাদ থেকে তিনটি বোয়িং ৭৩৭ ব্যবহার করে পাকিস্তানিদের মস্কো হয়ে বৃহস্পতিবার বার্মিংহামে পৌঁছে। কয়েক দিনে অতিরিক্ত সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনা করেছে বৃটিশ এয়ারওয়েজ, ভার্জিন আটলান্টিক এবং পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্স।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর