× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৩ মে ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৩০ রমজান ১৪৪২ হিঃ
সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট-এর প্রতিবেদন

চীনকে সতর্ক করল যুক্তরাষ্ট্র

দেশ বিদেশ

মাননজমিন ডেস্ক
১৩ এপ্রিল ২০২১, মঙ্গলবার

যুক্তরাষ্ট্রের যুদ্ধজাহাজ এবং চীনা নৌতরীর সাম্প্রতিক সংঘর্ষের পর আরো সতর্ক অবস্থানে রয়েছে মার্কিন সামরিক বাহিনী। উভয় দেশই পূর্ব ও দক্ষিণ চীন সাগরে যথাক্রমে ইউএসএস থিওডোর রোজভেল্ট এবং লিয়াওনিং নামে বিমান বহনকারী স্ট্রাইক মোতায়েন করে রেখেছে। আর এরমধ্যে চীনের এয়ারক্রাফট ক্যারিয়ার গ্রুপকে কড়া পর্যবেক্ষণে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র।

গত রোববার যুক্তরাষ্ট্র একটি ছবি প্রকাশ করেছে। ছবিতে দেখা গেছে, গাইড মিসাইল ধ্বংসকারী জাহাজ ইউএসএস মাস্তিন চীনের বিমানবহনকারী লিয়াওনিংকে পর্যবেক্ষণ করছে।  বিশ্লেষকরা বলছেন, চীনকে একটি পরিস্কার বার্তা দেয়ার উদ্দেশ্যেই যুক্তরাষ্ট্র এ কাজ করেছে। এরপরের দিন অর্থাৎ সোমবার প্রকাশিত একটি ছবিতে দেখা গেছে, পূর্ব চীন সাগরের কোন একটি জায়গায় জাহাজটির ক্যাপ্টেন কমান্ডার রবার্ট জে ব্রিগস এবং উপ কমান্ডার রিচার্ড ডি শ্লিয়ে তাদের থেকে মাত্র কয়েকহাজার মাইল দূরে থাকা লিয়াওনিংকে পর্যবেক্ষণ করছে।

উল্লেখ্য, এই লিয়াওনিং এয়ারক্রাফট ক্যারিয়ার গ্রুপে চীনের সবচেয়ে উন্নত ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসীকারীর একটি টাইপ০৫৫, অন্য আরো দুটি ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসীকারী, একটি ফ্রিগ্রেট এবং একটি সহায়তাকারী জাহাজ রয়েছে।

তাইওয়ানের নেভাল একাডেমির সাবেক প্রশিক্ষক লিউ লি-শিহ বলেন, ‘ছবিতে কমান্ডার ব্রিগসকে খুবই আয়েশি ভঙ্গিতে কয়েকহাজার মিটার দূরে থাকা লিয়াওনিংকে পর্যবেক্ষণ করতে দেখা গেছে।
পাশে তার ডেপুটিও ছিলো। তাদের দেখে মনে হচ্ছে চীনের যুদ্ধজাহাজকে তারা পাত্তা দিচ্ছে না এবং একে তারা কোন ধরনের হুমকি হিসেবেও দেখছে না।’

বেইজিংভিত্তিক সামরিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ইউয়ান ওয়াংয়ের গবেষক ঝু চেনমিং বলেন, ছবিতে দেখা যাচ্ছে ‘অত্যন্ত নিরাপদ দূরত্ব’ থেকে লিয়াওনিংকে নজরদারিতে রেখেছে মার্কিন যুদ্ধজাহাজটি।
বেইজিংভিত্তিক সাউথ চায়না সী স্ট্র্যাটেজিক সিচুয়েশন প্রোবিং ইনিশিয়েটিভের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, পূর্ব ও দক্ষিণ চীন সাগরে বিমান এবং যুদ্ধজাহাজ মোতায়েনের পরিমান বাড়িয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। গত ০৩ এপ্রিল ইয়াংটজে রিভারে ইউএসএস মাস্তিন যুদ্ধজাহাজটি পাঠানো হয় এবং গত রোববার পর্যন্ত পূর্ব ও দক্ষিণ চীন সাগর থেকে লিয়াওনিংকে তারা নজরদারিতে রেখেছে।

এদিকে গত রোববার লিয়াওনিং এয়ারক্রাফট ক্যারিয়ার গ্রুপটি জাপানের ওকিনওয়া এবং মিয়াকো আইল্যান্ডের মধ্য দিয়ে অতিক্রম করায় পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে সেখানে ক্ষেপনাস্ত্র বিধ্বংসীকারী জেএস সুজুতসুকি এবং দুটি টহল পাঠিয়েছে জাপানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়। এছাড়াও, ফিলিপাইনের বিতর্কিত প্রবালপ্রাচীরের চারপাশে চীনা জাহাজ জড়ো হওয়ার প্রেক্ষিতে মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী অস্টিন লয়েড  ফিলিপাইনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী অস্টেন লয়েডকে পাশে থাকার পূর্ব প্রতিশ্রুতি রক্ষার বিষয়ে আস্বস্ত করেছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর