× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৩ মে ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৩০ রমজান ১৪৪২ হিঃ

পাকিস্তানে নির্বাসিত হওয়ার শঙ্কায় আহমাদিরা

দেশ বিদেশ

মানবজমিন ডেস্ক
১৫ এপ্রিল ২০২১, বৃহস্পতিবার

জার্মানিতে বসবাসকারী পাকিস্তানের আহমাদি মুসলিমদের অনেকেই এখান থেকে বিতাড়িত হওয়ার আশঙ্কার মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। যদিও অনেক দেশই জানে নিজ দেশে নির্যাতনের শিকার হওয়া এই সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে সুরক্ষা দেয়া খুবই জরুরি।

আহমাদ পরিবারের জার্মানিতে বসবাসের অনুমতি নেই। এমনকি এই দক্ষ প্রকৌশলী জার্মানিতে কোন কাজ করারও অনুমতি পাননি। বর্তমানে তারা একটি শরনার্থী শিবিরে বসবাস করছে এবং যেকোন দিন তাদের দেশে ফেরত পাঠানো হতে পারে। পাকিস্তানে ফিরে গেলে তারা ভয়াবহ বিপদের মধ্যে পড়বে বলে আশঙ্কা করছে।

পাকিস্তানের দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক:    
আহমেদ পরিবার আহমাদিয়া মুসলিম ধর্মীয় সম্প্রদায়ের সদস্য। এটি উনবিংশ শতাব্দীতে বৃটিশ ভারতে শুরু হওয়া একটি আন্দোলনের নাম।
এই আন্দোলনের অনুসারীরা আহমাদিস নামে পরিচিত। আহমাদিরা ইসলামি ধর্মগ্রন্থ অনুসরন করলেও তারা বিশ্বাস করে আন্দোলনটির প্রতিষ্ঠাতা মির্জা গোলাম তাদের ত্রাণকর্তা। এ কারণে পাকিস্তানের অন্যান্য মুসলিমরা আহমাদিদের বিধর্মী বলে মনে করে।
জার্মানির স্টেট থুরিংগিয়া ও স্যাক্সোনির আহমাদি সম্প্রদায়ের মুখপাত্র মোহাম্মদ সোলায়মান মালিক বলেন, ‘পাকিস্তানের সংবিধানেও আহমাদিদের বর্জনের কথা বলা রয়েছে।’ ১৯৭৪ সাল থেকে তাদেরকে মুসলিম হিসেবে পরিচয় দিতে নিষিদ্ধ করা হয়। এমনকি তারা নিজেদের নামাজের ঘরকে ‘মসজিদ’ বলতে পারে না।

দেশটির কঠোর ব্লাসফেমি আইন অনুযায়ী কোন আহমাদিকে ‘আস-সালাম-আইলাইকুম’ বলে সম্ভাষণ করলে প্রাণদন্ডও হতে পারে।  অন্যান্য অমুসলিমদের মতো আহমাদিরা পাকিস্তানের দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক। আহমাদিদের সুরক্ষার প্রয়োজনীয়তা বোধ করছে ইউএনএইচসিআর ও অ্যামনেস্টি

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল জানিয়েছে, আহমাদিদের ওপর দীর্ঘদিন ধরে নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে পাকিস্তান কর্তৃপক্ষ। ইউনাইটেড নেশনস রিফিউজি এজেন্সি (ইউএনএইচসিআর) জানিয়েছে, পাকিস্তান নিপীড়িত সংখ্যালঘুদের প্রতিনিধিত্ব করে এবং এই সম্প্রদায়কে সুরক্ষা দেয়া প্রয়োজন। আর এ কারণেই যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র এবং নেদারল্যান্ডস থেকে আহমাদিদের দীর্ঘদিনের জন্য নির্বাসন দেয়া হয়নি। জার্মানিতেও এমনটি ঘটবে না। কারণ পাকিস্তানের কোথাও আহমাদিরা নিরাপদ নন।

কোথায় যাবে তারা?
জার্মানিতে ৫৩৫ জন আহমাদি নির্বাসনের হুমকিতে রয়েছেন। দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, এই ধর্মীয় সম্প্রদায়ের সদস্যরা পাকিস্তানে অপরাধী হিসেবে সব্যস্ত হয়নি। আর এ কারণেই প্রতিটি বিষয় স্বতন্ত্রভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

জার্মানির প্রশাসনিক আদালতগুলো প্রায়ই রাবওয়াহর মতো স্থানগুলোকে আহমাদিদের জন্য নিরাপদ হিসেবে উল্লেখ করেন। কিন্তু জার্মানিতে আহমাদিরে মুখপাত্র এ বিষয়ে সংশয় প্রকাশ করে বলেন, ‘আহমাদিরা পাকিস্তানের কোথাও নিরাপদ নয়। এমনকি রাবওয়াহতেও আহমাদিদের নিয়মিত হত্যা করা হচ্ছে।’

জার্মানিতে বসবাসকারি আহমাদি পরিবারের সদস্য শহর কুলসুন বলেন, ‘জার্মানিরা স্বাধীনভাবে বসবাস করে, তারা সম্ভবত আমাদের বোঝতে পারবে না। কিন্তু আপনি যখন সবকছিু ছেড়ে পাকিস্তান থেকে এখানে আসবেন এবং তখন একটি বেদনা সবসময় আপনাকে ঘিরে থাকবে।' তিনি আরো বলেন, ‘নিজ দেশ ছেড়ে আসা সহজ কোন বিষয় নয়। আজ আমরা যেখানে রয়েছি সেখানে থাকবো না বলে দিয়েছি। কিন্তু আমরা কোথায় যাবো?’

সূত্র: ডয়েচে ভেলে

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর