× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৪ মে ২০২১, শুক্রবার, ১ শওয়াল ১৪৪২ হিঃ

বিট কয়েন ও স্ত্রীর জন্য আইফোন নিয়েছিলেন হিথ স্ট্রিক

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক
১৭ এপ্রিল ২০২১, শনিবার

দুর্নীতি বিরোধী ইউনিটের তদন্তে তার বিরুদ্ধে আনা পাঁচটি অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় জিম্বাবুয়ের কিংবদন্তি ক্রিকেটার হিথ স্ট্রিককে ৮ বছরের জন্য নিষিদ্ধ করেছে বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি। কীভাবে ৪৭ বছর বয়সী সাবেক এই ক্রিকেটার অনৈতিক কাজে জড়িয়ে পড়েছিলেন, তারই বিস্তারিত প্রকাশ করেছে জনপ্রিয় ক্রিকেট ওয়েবসাইট ক্রিকইনফো। ভারতীয় ব্যবসায়ী দীপক আগারওয়ালের সঙ্গে জিম্বাবুয়ের কোচ থাকাকালে হিথ স্ট্রিকের পরিচয়। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার সঙ্গে ত্রিদেশীয় সিরিজ এবং আফগানিস্তানের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সিরিজে দলের ভেতরের তথ্য ফাঁস করেন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের পাশাপাশি আইপিএল, বিপিএল ও আফগানিস্তান প্রিমিয়ার লীগে নানা ভূমিকায় দায়িত্ব পালনের সময় এসব বিধি ভঙ্গ করেন তিনি। এই সময়ে জুয়াড়ির সঙ্গে চার খেলোয়াড়কে পরিচয় করান ৩৫ হাজার ডলারের দুটি বিট কয়েন ও স্ত্রীর জন্য আইফোনসহ নানা দামী উপহার নিয়ে। এসব অনৈতিক কাজ বেশিরভাগই হয়েছে ২০১৭ ও ২০১৮ সালে। স্ট্রিক ও আগারওয়ালের সম্পর্ক ছিল ১৫ মাস, ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে আইসিসির দুর্নীতি বিরোধী ইউনিট তদন্ত শুরু করে।
২০১৪ থেকে ২০১৬ সালে এই জিম্বাবুয়ান বাংলাদেশের বোলিং কোচ থাকায় ২০১৭ সালের বিপিএলেও নিজের প্রভাব বিস্তার করেন আগারওয়াল। স্ট্রিককে দিয়ে সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবালের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। আইসিসি বলেছেন, ‘২০১৭ সালের বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ আসে মিস্টার এক্স (পরে তিনি আগারওয়াল নিশ্চিত হওয়া গেছে) স্ট্রিককে যোগাযোগের পথ তৈরি করে দিতে বলেন, দলের অধিনায়ক বা মালিক কিংবা খেলোয়াড়দের ফোন নাম্বার চেয়েছিলেন। এছাড়া দলের ভেতরের তথ্যও বের করতে বলেছিলেন স্ট্রিককে, যেমন কে জিতবে ম্যাচ এমন কিছু। যা ম্যাচ পাতানোর প্রক্রিয়া সহজ করে দেবে।’  শেষ পর্যন্ত স্ট্রিকের সহায়তায় সাকিব ধরা পড়েন আগারওয়ালের ফাঁদে। ২০১৮ সালে জিম্বাবুয়ে ও শ্রীলঙ্কার সঙ্গে ত্রিদেশীয় সিরিজ এবং ওই বছরের আইপিএলে তিনবার প্রস্তাব পেয়েও গোপন করেন, যার কারণে এক বছরের স্থগিতাদেশসহ দুই বছর নিষিদ্ধ হন বাঁহাতি অলরাউন্ডাার। তবে তামিম ছিলেন সতর্ক, তিনি আগারওয়ালের সঙ্গে যোগাযোগের বিষয়টি জানান দুর্নীতি বিরোধী ইউনিটকে। এদিকে হিথ স্ট্রিকের এই শাস্তির ঘটনাকে দেশের ক্রিকেট ইতিহাসের অন্ধকারতম দিন হিসেবে উল্লেখ করেছেন জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ডের চেয়ারম্যান তাবেঙয়া মুকুহলানি। দেশের ভবিষ্যত প্রজন্মের আদর্শ হিসেবে বিবেচিত স্ট্রিকের এমন কাজে মর্মাহত ও বিব্রত তিনি। জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ডের পক্ষ থেকে দেয়া আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে চেয়ারম্যান তাবেঙয়া মুকুহলানি বলেছেন, ্তুএটি অত্যন্ত দুঃখজনক এবং লজ্জাজনক অধ্যায়। যা ইতিহাসে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের সবচেয়ে অন্ধকার দিন হিসেবে জায়গা করে নিতে পারে।্থ তিনি আরও যোগ করেন, ্তুস্ট্রিক ছিলেন অনেকের খুব পছন্দের একজন ব্যক্তি। আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের আদর্শ। কিন্তু এখন আমরা ও সারা বিশ্ব জানে, স্ট্রিক দুর্নীতিগ্রস্ত, লোভী ও স্বার্থপর চরিত্রেরও ছিলেন। যিনি তার মর্যাদা ও অবস্থানের অপব্যবহার করেছেন নোংরা সুবিধার জন্য।্থ উল্লেখ্য, আইসিসির এন্টি-করাপশন কোডের পাঁচটি ধারায় অভিযুক্ত হয়েছেন স্ট্রিক, স্বীকার করে নিয়েছেন নিজের সব অপরাধ। সেই স্বীকারোক্তির পর তাকে এমন নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে আইসিসি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর