× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৪ মে ২০২১, শুক্রবার, ১ শওয়াল ১৪৪২ হিঃ

ডিম নিয়ে বিপাকে পোল্ট্রি খামারিরা

বাংলারজমিন

গোলাম মোস্তফা রুবেল, সিরাজগঞ্জ থেকে
১৭ এপ্রিল ২০২১, শনিবার

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সরকার ঘোষিত ‘সর্বাত্মক লকডাউনে’ সারা দেশে শুরু হয়েছে ব্যাপক কড়াকড়ি। সারা দেশের শহরগুলোতে দোকানপাট বন্ধ থাকায় সিরাজগঞ্জের পোল্ট্রি খামারিরা উৎপাদিত ডিম নিয়ে বিপাকে পড়েছে। দূরপাল্লার যান চলাচল না থাকায় বিক্রি করতে পারছে না সিংহ ভাগ ডিম। এই লকডাউনের কারণে অনেকেই এই পোল্ট্রি শিল্প থেকে মুখ ঘুরিয়ে নিতে শুরু করেছে। ফলে হুমকির মুখে পড়েছে সম্ভাবনাময় এই শিল্পটি। প্রাণীসম্পদ বিভাগ ভ্রাম্যমাণ ভ্যানে ডিম বিক্রির ব্যবস্থা নিলেও সারা নেই ক্রেতাদের মাঝে।

গত ৯ই এপ্রিল থেকে মুজিববর্ষের অঙ্গীকার, নিরাপদ প্রাণিজ পুষ্টি হবে সবার। এই প্রতিপাদ্যকে ধারণ করে দেশে করোনা পরিস্থিতিতে জনসাধারণের প্রাণিজ পুষ্টি নিশ্চিতকল্পে সিরাজগঞ্জে ন্যায্যমূল্যে ভ্রাম্যমাণ ভ্যানে করে ডিম বিক্রির ব্যবস্থা করেছেন জেলা প্রাণীসম্পদ অফিস। কিন্তু সাধারণ মানুষের চলাচল আর দোকানপাট বন্ধ থাকায় ডিম বিক্রি করতে পারছেনা ন্যায্যমূল্যের এই ব্যবসায়ীরা।


জেলা প্রাণীসম্পদ অফিস সূত্রে জানা যায়, বর্তমানে পোল্ট্রি ফার্মের অবস্থা অনেকটাই নাজুক। উৎপাদিত ডিম নিয়ে মহা বিপদে পোল্ট্রি খামারিরা। জেলায় ৩ হাজার ৭৭৭টি পোল্ট্রি খামার হতে প্রতিদিন প্রায় ১০ লাখ ডিম উদৎপাদন হচ্ছে। উৎপাদিত ডিম জেলার চাহিদা মিটিয়ে রাজধানী সহ দেশের অনেক জেলাতে সর্বরাহ করে থাকে। প্রতিদিন ১০ লাখ ডিম উৎপাদিত হলেও এই জেলার চাহিদা মাত্র ২ লাখ বাকি ৮ লাখ ডিম কোনভাবেই অন্যত্র পাঠানো সম্ভব হচ্ছে না। বর্তমানে লকডাউনের জন্য দূরপাল্লার যানবাহন না থাকায় দিন দিন ডিম বিক্রি করতে না পারায় চরম লোকসান গুনতে হচ্ছে খামারিদের। এভাবে চলতে থাকলে পোল্ট্রি ফার্ম বন্ধ করে দিতে বাধ্য হবে খামারিদের।

জেলার শিয়ালকোল এলাকার পোল্ট্রি খামারী শাহীন রেজা মানবজমিনকে বলেন, আমার খামারে ২৮ হাজার মুরগি আছে। প্রতিদিন ১৪ হাজার ডিম উৎপাদন হয় এই খামারে। গত ১০ দিনের লকডাউনে প্রতিদিন প্রাণীসম্পদের এই ভ্রাম্যমাণ ভ্যান ২ হাজার করে ডিম নিচ্ছে। বাকি ১২ হাজার ডিম আমি কি করবো। মুরগির খাদ্যের দাম অনেক বেশি। ডিম বিক্রি করতে না পারলেও মুরগিকে খাবার দিতে হয় সময় মতো।

বাংলাদেশ পোল্ট্রি ইন্ডাস্ট্রিজ এসোসিয়েশন জেলা শাখার সভাপতি এসএম ফরিদুল ইসলাম মানবজমিনকে বলেন, ভালো নেই আমাদের পোল্ট্রি খামারীরা। অথচ দেশের মানুষের পুষ্টির চাহিদা আমরাই পূরণ করে থাকি। গত বছরের লকডাউনের কারনে চরম লোকসান গুনতে হয়েছে আমাদের। সরকার হাতে গোনা কয়েকজন খামারীকে কিছু সহযোগিতা করলেও সিংহ ভাগ খামারী কিছুই পায়নি সরকারি সহযোগিতা। এবছর লকডাউনে যা শুরু হয়েছে এতে করে আর এই শিল্প টিকিয়ে রাখা সম্ভব হবে না। প্রতিদিন গড়ে ৮ লাখ ডিম নিয়ে মহাবিপদে আছে আমাদের খামার মালিকরা।

জেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ আক্তারুজ্জামান ভূইয়া মানবজমিনকে বলেন, বর্তমানে করোনা ভাইরাসের জন্য আমার জেলার খামারীরা উৎপাদিত ডিম নিয়ে যাতে সমস্যায় না হয়। সে কারণে বাংলাদেশ পোল্ট্রি ফার্মারস এসোসিয়েশন (বিপিএফএ) এর বাস্তবায়ন এবং প্রাণী সম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন প্রকল্প (এলডিডিপি), প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তর, মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় সারাদেশের ন্যায় সিরাজগঞ্জ জেলা ও উপজেলা সদরগুলোতে ১০ দিন ব্যাপী মোট ৪৪টি ন্যায্যমূল্যের ভ্রাম্যমাণ ভ্যানে বিক্রয় কেন্দ্র চালু করা হয়েছে। এ কেন্দ্রগুলোতে ফার্মের মুরগীর ডিম ২৬ টাকা হালি, সোনালী মুরগির মাংস প্রতি কেজি ২৫০ টাকা মূল্যে বিক্রি করা হচ্ছে। এই ভ্রাম্যমাণ বিক্রয় কেন্দ্র চালুর ফলে খামারিরা তাদের উৎপাদিত ডিম ও মুরগি অতি সহজে বিক্রি করতে পারবে। তবে অবশিষ্ট ডিম যাতে করে রাজধানী সহ অন্যত্র জেলাতে পাঠানো যায় তার জন্য জেলা প্রশাসকের মাধ্যেম দিয়ে মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। তবে খামারিরা যাতে লোকসানে না পড়ে সেদিকে কঠোর নজরদারি রাখা হয়েছে।

দেশের সম্ভাবনাময় এই পোল্ট্রি শিল্পকে বাঁচাতে সরকার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবে এমনটিই প্রত্যাশা এ অঞ্চলের প্রান্তিক খামারিদের।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর